মরুভূমিতে বাতাস থেকেই পানি উৎপাদন! | অন্বেষণ | DW | 11.08.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

মরুভূমিতে বাতাস থেকেই পানি উৎপাদন!

মরুভূমির রুক্ষ পরিবেশে পানির অভাব বড় সমস্যা৷ এক ডাচ শিল্পী ও উদ্ভাবক অভিনব উপায়ে বাতাস থেকেই পানি সৃষ্টি করতে চান৷ তাঁর পরীক্ষামূলক প্রকল্প মালির মরুভূমিতে সফলভাবে কাজে লাগানো হয়েছে৷

মালির মরুভূমিতে সূর্যের গনগনে উত্তাপের মাঝে পাঁচদিন ধরে নতুন এক উদ্ভাবনের ফল যাচাই করা হচ্ছে৷ দেখতে সাধারণ মনে হলেও দু'টি বাক্স আসলে এক শিল্পীর সৃষ্টি৷ নেদারল্যান্ডসের সেনাবাহিনী মালিতে তাদের শান্তি মিশনে এই আইডিয়া কাজে লাগাতে চায়৷ এখনো বড়ো আকারে তার প্রয়োগ সম্ভব না হলেও এর মাধ্যমে একদিন মরুভূমিতে পানি আনার সম্ভাবনা রয়েছে৷

সাহারা মরুভূমির মাঝে গাও অঞ্চলের জন্য এমন সম্ভাবনা সামরিক কমান্ডারের মনে ধরেছে৷ ডাচ সেনা ইউনিটের প্রধান জেনারেল টম মিডেনডর্প বলেন, ‘‘এমন প্রকল্প জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে সাহায্য করতে পারে৷ পানির অভাবের মধ্যে আমরা স্থানীয় মানুষের জন্য বোঝা হতে চাই না, বরং তাদের আরও সাহায্য করতে চাই, এই এলাকায় সংকটের অন্যতম কারণের সমাধান করতে চাই৷ পানির জন্য তাদের সংঘর্ষে যেতে না হলে তো সমস্যার একটা অংশের সমাধান হয়ে যাবে৷’’

গড়ে তোলার কাজসহজ হলেও সমস্যা কম ছিল না৷ চারিদিকে বালু, উচ্চ তাপমাত্রা – যা এমনকি সোলার প্যানেলের জন্যও অত্যন্ত বেশি৷ যন্ত্র শীতল রাখার তরল পদার্থ নিয়েও সমস্যা রয়েছে৷ এই উদ্ভাবনের মূলে রয়েছে সোলার সেল ও সাধারণ কিছু বাক্স৷ বাক্সের গায়ে ধাতুর তৈরি হিটিং ব্যবস্থা লাগানো আছে৷ বাতাসের তাপমাত্রা বেশি হওয়া সত্ত্বেও তার উপর শীতল পানির বিন্দু তৈরি হয়৷ সবকিছু ঠিকমতো চললে সৌরশক্তি চালিত একটা ছোট পাম্প ভিতরেই তরল পদার্থকে শীতল রাখে৷ তখন বাতাসে আর্দ্রতা বৃষ্টির মতো ঝরে পড়ে৷ ২৪ ঘণ্টায় ৮ লিটার পরিষ্কার পানি পাওয়া যাবে৷ শিল্পী ও উদ্ভাবক হিসেবে আপ ফ্যারহেখেন বলেন, ‘‘অর্থ বা ব্যয় নিয়ে কথা হচ্ছে না৷ আমি বলতে পারি, যে আমরা নিজেরাই প্রকল্পের জন্য অর্থ দিচ্ছি৷ তাই সস্তার ও নির্ভরযোগ্য সরঞ্জাম ব্যবহার করতে বাধ্য হচ্ছি৷’’

উদ্ভাবক একটি ছোট সংস্করণও তৈরি করেছেন, যা দিয়ে দিনে এক গ্লাস পানি সংগ্রহ করা যায়৷ তিনি গোটা বিশ্বের বিশ্ববিদ্যালয়গুলির উদ্দেশ্যে এই প্রকল্পে অংশ নেবার ডাক দিচ্ছেন, যাতে আরও উন্নত সরঞ্জাম তৈরি করা যায়৷ দ্য হেগ ইনস্টিটিউট ফর গ্লোবাল জাস্টিস-এর ড. পাট্রিক হুন্টইয়েন্স বলেন, ‘‘আরও পানি উৎপাদন করতে এই ইউনিটকে আরও নিখুঁত করে তুলতে হবে, কারণ দু'টিই আসলে প্রোটোটাইপ৷ কৃষিক্ষেত্রে ড্রিপ সেচের জন্যও এই সমাধানসূত্র বড় অবদান রাখতে পারে৷’’

এই উদ্ভাবন এখনো বড় আকারে প্রয়োগ করার সময় আসেনি৷ কিন্তু মরুভূমিতে এই আইডিয়া কাজে লাগিয়ে হাতেনাতে মৌলিক ফল পাওয়া গেছে৷

এলকে মাইভাল্ড/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

বিজ্ঞাপন