মমতার বিরুদ্ধে প্রার্থী না দিয়ে রাজনৈতিক বার্তা কংগ্রেসের | বিশ্ব | DW | 08.09.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

মমতার বিরুদ্ধে প্রার্থী না দিয়ে রাজনৈতিক বার্তা কংগ্রেসের

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে প্রার্থী দেবে না কংগ্রেস। ভবানীপুর উপনির্বাচনে মমতার বিরুদ্ধে প্রচারও করা হবে না।

মমতার বিরুদ্ধে উপনির্বাচনে প্রার্থী দেবে না কংগ্রেস।

মমতার বিরুদ্ধে উপনির্বাচনে প্রার্থী দেবে না কংগ্রেস।

রাজ্য নেতৃত্ব চেয়েছিল প্রার্থী দিতে, কিন্তু কংগ্রেসের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব তা খারিজ করে দিয়েছে। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী মঙ্গলবার সাংবাদিক সম্মেলন করে জানিয়ে দিয়েছেন, ভবানীপুরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে প্রার্থী দেবে না কংগ্রেস। তারা প্রচারও করবে না। অল ইন্ডিয়া কংগ্রেস কমিটি(এআইসিসি) এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তবে কংগ্রেস প্রার্থী না দিলেও সিপিএম দেবে। ফলে ভবানীপুরের উপনির্বাচনে বাম থাকলেও বাম-কংগ্রেস জোট থাকছে না। সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী বলেছেন, শুধু-একটি বিষয় নিয়ে জোট ভেঙে যায় না। কংগ্রেস আগেই প্রার্থী না দেয়ার কথা বলেছিল। এখন ওরা সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে বামেরা প্রার্থী দেবে।

মুর্শিদাবাদের দুইটি কেন্দ্রের উপনির্বাচনে বামেরা প্রার্থী দেবে। অধীর জানিয়েছেন, সেখানে কংগ্রেস তাদের সমর্থন করছে। ফলে মুর্শিদাবাদে বাম-কংগ্রেস জোট থাকছে। 

কেন এই সিদ্ধান্ত

জাতীয় রাজনীতির কথা মাথায় রেখে কংগ্রেস এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিছুদিন আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিল্লি এসে সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন। রাহুল গান্ধীও সেখানে ছিলেন। ওই বৈঠকে ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে মোদী-বিরোধী জোট করার জন্য সব বিরোধী দলকে একজোট হওয়ার কথা বলেন। তাতে সোনিয়াও সম্মত হন।

এখন মমতার বিরুদ্ধে প্রার্থী না দিয়ে কংগ্রেস ও সোনিয়া গান্ধী একটি বার্তা দিতে চেয়েছেন। লোকসভা নির্বাচনে জাতীয় স্তরে মমতার সঙ্গে হাত মেলানোর বার্তা।

প্রবীণ সাংবাদিক আশিস গুপ্তের ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, ''ভবানীপুর হলো তৃণমূলের শক্ত ঘাঁটি। উপনির্বাচনে মমতা হেসেখেলে জিতবেন। এখানে প্রার্থী দেয়ার অর্থ হলো, মমতা-বিরোধিতার পথে যাওয়া। মমতা লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিরোধী জোটের একজন প্রার্থীকে দাঁড় করাতে চাইছেন। সেই জায়গায় কংগ্রেস ভবানীপুর উপনির্বাচনে প্রার্থী দিলে ভুল বার্তা যেত। সেজন্য সোনিয়া এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।''

তৃণমূল কংগ্রেস এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে। দলের মুখপাত্র সুখেন্দু শেখর রায় বলেছেন, তৃণমূল নেত্রী তো প্রথম থেকেই সম্মিলিত বিরোধী প্রার্থী দেয়ার কথা বলছেন।

পাশাপাশি বামেরা বোঝাতে চান, বিজেপি-র মতো রাজ্যে তৃণমূলও তাদের প্রতিপক্ষ। তারা মমতা-বিরোধিতার জায়গাটা বিজেপি-কে সম্পূর্ণভাবে ছেড়ে দিতে রাজি নন। জাতীয় ক্ষেত্রে বিরোধী জোটের পক্ষে হলেও তারা রাজ্যে মমতার বিরোধিতা করবে। সেজন্যই তারা প্রার্থী দিচ্ছে।

জিএইচ/এসজি(অধীর চৌধুরীর সাংবাদিক সম্মেলন)