মন্ত্রীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ, চাপে মাক্রোঁ | বিশ্ব | DW | 23.05.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ফ্রান্স

মন্ত্রীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ, চাপে মাক্রোঁ

এক মন্ত্রীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁর নতুন সরকারের প্রথম বৈঠকের উপর কালো ছায়া ফেলেছে ৷ দেশটির ‘সলিডারিটি অ্যান্ড দ্য ডিসঅ্যাবল্ড’ মন্ত্রী দামিয়েন আবাদ অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷

ফ্রান্সের ‘সলিডারিটি অ্যান্ড দ্য ডিসঅ্যাবল্ড’ মন্ত্রী দামিয়েন আবাদ

ফ্রান্সের ‘সলিডারিটি অ্যান্ড দ্য ডিসঅ্যাবল্ড’ মন্ত্রী দামিয়েন আবাদ

ফরাসি সংবাদপত্র মিডিয়াপার্টকে দেয়া সাক্ষাৎকারে দুই নারী এই রাজনীতিবিদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ তোলেন৷ মাক্রোঁর নতুন প্রধানমন্ত্রী এলিজাবেথ বোর্ন অবশ্য জানিয়েছেন আবাদকে নতুন সরকারে অন্তর্ভূক্ত করার সময় এই অভিযোগের বিষয়ে তিনি জানতেন না৷

আবাদ এর আগে দেশটির নিম্নকক্ষে বিরোধী রক্ষণশীল দলের নেতা ছিলেন৷

মিডিয়াপার্টকে দেয়া সাক্ষাৎকারে দুই নারীর অভিযোগ হচ্ছে ২০১০ সালের শেষ থেকে ২০১১ সালের শুরুর দিককার সময়ে আবেদ তাদের সঙ্গে তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন৷

দুই নারীর একজন ২০১৭ সালে আবেদের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে অভিযোগ করেছিলেন৷ তবে সেই অভিযোগ কোনো ধরনের পরবর্তী পদক্ষেপ ছাড়াই বাতিল হয়েছিল বলে আবেদ এবং মিডিয়াপার্ট জানিয়েছে৷

বিশেষভাবে সক্ষম ব্যক্তি আবেদ জানিয়েছেন যে, তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে, তিনি শারীরিকভাবে সেটা করতে অক্ষম৷ বিরোধী রাজনীতিবিদদের মধ্যে থাকা বামেরা অবশ্য আবেদকে পদচ্যুত করার দাবি জানিয়েছেন৷

সবুজ দলের নেতা স্যাঁনড্রিন রুসো এই বিষয়ে বলেন, ‘‘আমি মনে করি প্রশ্ন এটা হওয়া উচিত নয় যে তিনি পদত্যাগ করবেন কিনা৷ সতর্কতা হিসেবে তাকে পদচ্যুত করা যেতে পারে৷ নারীদের প্রতি আমাদের এই বার্তা পৌঁছানো উচিত যে তাদের কথা আমরা শুনছি৷''

এদিকে টেলিভিশনে দেয়া এক বক্তব্যে নতুন সরকারের বিভিন্ন দিক তুলে ধরলেও আবেদের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি এমানুয়েল মাক্রোঁ৷

এআই/এসিবি (রয়টার্স, এপি)