মধ্যপ্রাচ্য থেকে ‘যোদ্ধা’ আনার অনুমতি পুটিনের  | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 12.03.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

রাশিয়া

মধ্যপ্রাচ্য থেকে ‘যোদ্ধা’ আনার অনুমতি পুটিনের 

ইউক্রেনে যুদ্ধরত রাশিয়ান সেনাদের সহায়তায় মধ্যপ্রাচ্য থেকে স্বেচ্ছাসেবী যোদ্ধাদের আনার অনুমতি দিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিন৷

শুক্রবার প্রতিরক্ষামন্ত্রণালয়ের এক সভায় পুটিন বলেন, ‘‘যদি এমন লোকজন থাকে, যারা অর্থের বিনিময়ে নয়, বরং নিজের ইচ্ছায় ডনবাসের স্থানীয় জনগণকে সহযোগিতা করতে চায়, তাহলে তাদেরকে সংঘাতপূর্ণ এলাকায় আসতে দেওয়া দরকার৷'' 

সভায় রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী সেরেগেই শোইগু জানান, মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের ১৬ হাজার লোক স্বেচ্ছায় পূর্ব ইউক্রেনের ডনবাস অঞ্চলে রাশিয়ান সেনাদের পক্ষে যুদ্ধ করতে চায়৷

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দাবি, ইউক্রেন যুদ্ধের সময় স্টিংগার মিসাইল এবং বহনযোগ্য এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমসহ নানা ধরনের অস্ত্র রাশিয়ান বাহিনীর হাতে এসেছে৷ এসব অস্ত্র ডনবাসে যুদ্ধরত রাশিয়ান সেনাদের পাঠানো উচিত মনে করেন রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী৷

প্রতিরক্ষামন্ত্রীর মতকে সমর্থন করে পুটিন বলেন, ‘‘তাদেরকে অস্ত্রগুলো দিন৷ উদ্ধারকৃত এসব অস্ত্র রাশিয়ান বাহিনীকে দেওয়ায় আমার সমর্থন রয়েছে৷'' 

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রতিবেশী দেশ ইউক্রেনে হামলা চালায় রাশিয়া৷ এ হামলাকে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান' বলছে রাশিয়া৷ পুটিনের দাবি, ‘‘সম্প্রসারিত হয়ে ন্যাটো রাশিয়ার সীমানায় চলে আসছে এবং কিয়েভে পশ্চিম-সমর্থিত সরকারকে  সহযোগিতা দিচ্ছে৷ আর এ কারণে রাশিয়ার নিরাপত্তার জন্য ইউক্রেনে এমন একটি সামরিক অভিযান জরুরি৷’’   

তবে ইউক্রেন বলছে, অস্তিত্ব রক্ষার জন্য তারা লড়ছে৷

আরআর/এসিবি (রয়টার্স) 

নির্বাচিত প্রতিবেদন