মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি আনতে জামাইকে পাঠালেন ট্রাম্প | বিশ্ব | DW | 25.08.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মধ্যপ্রাচ্য

মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি আনতে জামাইকে পাঠালেন ট্রাম্প

নানা সংকটে জর্জরিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প স্পষ্ট কোনো রূপরেখা না থাকা সত্ত্বেও মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি আনার উদ্যোগ নিচ্ছেন৷ তাঁর জামাই জ্যারেড কুশনার আঞ্চলিক নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করছেন৷

মধ্যপ্রাচ্য শান্তি প্রক্রিয়া আবার চাঙ্গা করে তুলতে ইসরায়েলি ও ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে আলোচনা করছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিশেষ উপদেষ্টা ও জামাই জ্যারেড কুশনার৷ক্ষমতায় আসার পরেই ট্রাম্প দুই পক্ষের মধ্যে চূড়ান্ত চুক্তির আশা প্রকাশ করেছেন৷ সেই উদ্যোগের আওতায় কুশনার ট্রাম্প প্রশাসনের কয়েকজন প্রতিনিধিদের সঙ্গে এই মুহূর্তে গোটা অঞ্চলের নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করছেন৷ মিশর, সৌদি আরব, কাতার ও জর্ডানের পর এবার তিনি ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনি এলাকায় সংলাপ চালাচ্ছেন৷ উল্লেখ্য, গত মে মাসে ডোনাল্ড ট্রাম্প ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনি এলাকা সফর করে শান্তি প্রক্রিয়া তরান্বিত করার অঙ্গীকার করেছিলেন৷ কিন্তু সেই শান্তির কোনো স্পষ্ট রূপরেখা দিতে পারেনি ট্রাম্প প্রশাসন৷

ট্রাম্প যতই উৎসাহ প্রকাশ করুন না কেন, এই মুহূর্তে ইসরায়েলি ও ফিলিস্তিনি নেতৃত্ব পরস্পরকে কোনো ছাড় দিতে প্রস্তুত নয়৷ তেল আভিভে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু কুশনারের সঙ্গে আলোচনা করতে গিয়ে বলেন, অনেক বিষয়ে কথা বলার আছে৷ শুধু শান্তি চুক্তি নয়, গোটা অঞ্চলে স্থিতিশীলতা, নিরাপত্তা ও সমৃদ্ধি আনার উদ্যোগের কথা বলেন তিনি৷ তবে তাঁর দফতর ‘গঠনমূলক' বিস্তারিত আলোচনা ছাড়া অন্য কোনো আশার আলো দিতে পারে নি৷ নিজের শিবিরের দক্ষিণপন্থি অংশের চাপে তাঁর পক্ষে ফিলিস্তিনিদের কোনো ছাড় দেওয়াকঠিন হবে৷ ফিলিস্তিনিদের বদলে আঞ্চলিক আরব শক্তিগুলির সঙ্গে বোঝাপড়ার প্রতি বেশি আগ্রহ দেখাচ্ছে ইসরায়েল৷

পশ্চিম তীরে রামাল্লাহ শহরে ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস কুশনার ও তাঁর প্রতিনিধিদলের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন৷ এক ফিলিস্তিনি সংবাদ সংস্থাকে তিনি বলেন, কঠিন ও জটিল হলেও শান্তি আনার প্রয়াস অসম্ভব নয়৷

তবে ট্রাম্প নিজেদ্বিরাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানসূত্রের বিষয়ে অঙ্গীকার না করায়ফিলিস্তিনি পক্ষ ক্ষুণ্ণ হয়েছে৷ উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারি মাসে ওয়াশিংটনে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর সঙ্গে আলোচনার পর ট্রাম্প বলেছিলেন, তিনি শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে আগ্রহী৷ একটি রাষ্ট্রের মধ্যেই যদি তা সম্ভব হয়, তাতেও তিনি সমর্থন দিতে প্রস্তুত৷ এমন মন্তব্যের পর ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ বার বার নিজেদের অস্তিত্ব ভেঙে দিয়ে পশ্চিম তীরের প্রশাসনিক দায়িত্ব ইসরায়েলের হাতে তুলে দেবার হুমকি দিয়ে আসছে৷ একতরফাভাবে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র ঘোষণার বিষয়েও ভাবনাচিন্তা করছে পশ্চিম তীরের নেতৃত্ব৷ অধিকৃত এলাকায় ইহুদি বসতি নির্মাণ বন্ধ করার বদলে আরও নতুন বসতির অনুমতির কারণেও ফিলিস্তিনিরা শান্তির আশা করছে না৷

এসবি/ডিজি (এএফপি, এপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়