মঙ্গলবার দিবাগত রাত থেকে কার্যকর লকডাউন | বিশ্ব | DW | 08.06.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

মঙ্গলবার দিবাগত রাত থেকে কার্যকর লকডাউন

বাংলাদেশে করোনার ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে এবার কার্যকর লকডাউনে যাচ্ছে সরকার৷ মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে রাজধানীর উত্তর সিটি করপোরেশনের ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব রাজাবাজার এলাকা লকডাউনের মধ্য দিয়ে এই প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে৷

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

সারাদেশকে তিনটি জোনে ( রেড, ইয়লো ও গ্রিন) ভাগ করে এই লকডাউন প্রক্রিয়া কার্যকর করা হবে বলে ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ৷   

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ২৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদুর রহমান খান ইরান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘মেয়র আতিকুল ইসলাম সোমবার দুপুরে আমাদের নিয়ে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছেন৷ প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে মেয়রের কাছে আজই এই নির্দেশনা এসেছে৷ মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে পূর্ব রাজাবাজার লকডাউন করা হবে৷ এখানে ১৬ হাজার ভোটার আছে৷ তবে মোট জনসংখ্যা ৫০ হাজারের মতো৷ এখানে কোন অফিস নেই৷ পুরোটাই আবাসিক৷ আমরা পুরো প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি৷ যাদের ঘরে খাবার নেই তাদের খাবারও পৌঁছে দেওয়া হবে৷ আর যারা টাকা দেবেন তাদের বাজার করে পৌঁছে দেওয়া হবে৷ এমনকি চিকিৎসার জন্য সার্বক্ষনিক এ্যাম্বুলেন্স থাকবে৷ আর কেউ মারা গেলে দাফনের ব্যবস্থাও করা হয়েছে৷’’

প্রাথমিকভাবে রাজধানীর রাজাবাজার ছাড়াও ওয়ারী এলাকা লকডাউনের কথা ছিল৷ তবে পুলিশের ওয়ারী বিভাগের উপ-কমিশনার শাহ ইফতেখার আহমেদ ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, ‘‘এমন কোন নির্দেশনা আমি পাইনি৷’’ রাজধানীর বাইরে নারায়ণগঞ্জের তিনটি এলাকাও লকডাউন করার কথা বলা হয়েছে৷

অডিও শুনুন 01:59

যাদের ঘরে খাবার নেই তাদের খাবার পৌঁছে দেওয়া হবে: ওয়ার্ড কাউন্সিলর

পূর্ব রাজাবাজার এলাকা রাজধানীর শের-ই-বাংলা নগর থানার মধ্যে পড়েছে৷ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জানে আলম মুন্সী সোমবার দুপুরে ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আজকেই আমরা মেয়রসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছি৷ সেখানেই আমাদের লকডাউনের বিষয়টি জানিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ সোমবার বিকেল থেকেই ওই এলাকায় মাইকিং করে বলা হচ্ছে, জরুরি প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র যেন তারা কিনে রাখেন৷ ওই এলাকার কাউকেই ঘর থেকে বের হতে দেওয়া হবে না৷’’  

অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘‘গত শনিবার আমরা সরকারের উর্ধ্বতন ব্যক্তিদের সঙ্গে বৈঠক করেছি৷ সেখানেই পুরো বিষয়টি চূড়ান্ত হয়েছে৷ এখন বাস্তবায়নের পালা৷ এছাড়া এটা নিয়ন্ত্রণের তো আর কোন পথ দেখা যাচ্ছে না৷ এই প্রক্রিয়ায় সফল হওয়া যাবে বলেই আমাদের জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা৷’’

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও বর্তমান উপদেষ্টা ডা. মুস্তাক হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা তো শুরু থেকেই এভাবে কাজ করতে বলছি৷ এটাই মহামারি নিয়ন্ত্রণের পদ্ধতি৷ ঢাকার টোলারবাগে বা মাদারীপুরের শিবচরে এটা করে ভালো ফল মিলেছে৷ এখন এটা না করতে পারলে কিন্তু একসময় পুরো দেশটাই রেড জোন ঘোষণা করা লাগতে পারে৷ কারণ হঠাৎ করেই সংখ্যা যেভাবে বাড়ছে তাতে ঝুকি নেওয়া উচিৎ হবে না৷ এটা শুধু হুকুম দিয়ে হবে না, মানুষকে সম্পৃক্ত করতে হবে৷ প্রান্তিক মানুষ যারা তাদের ঘরে খাবার পৌঁছাতে হবে৷ তাদের সামাজিক সহযোগিতা ও রাষ্ট্রীয় সহযোগিতা করতে হবে৷ দেখেন, কার্ফু দিলে কি কোন লাভ হবে? সেনারা কি কাউকে গুলি করতে পারবে? এটা তো আইন শৃঙ্খলার সমস্যা না, এটা জনস্বাস্থ্যের সমস্যা৷’’ 

অডিও শুনুন 03:24

আমরাতো শুরু থেকেই এভাবে কাজ করতে বলছি: ডা. মুস্তাক হোসেন

অধ্যাপক আজাদ বলেন, করোনা সংক্রমণ বিবেচনা করে চিহ্নিত করা রেড, ইয়লো ও গ্রিন এলাকা কীভাবে পরিচালিত হবে, তার গাইডলাইনও ইতিমধ্যে ঠিক করা হয়েছে৷ লকডাউন ঘোষিত এলাকায় চলাচল বন্ধ থাকবে৷ কেবল রাতে মালবাহী যান চলতে পারবে৷ ওই এলাকার মানুষের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের জন্য থাকবে হোম ডেলিভারি ও নির্ধারিত ভ্যানে করে কাঁচাবাজার কেনাবেচার সুযোগ৷ এসব এলাকার অফিস-আদালত বা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানও বন্ধ থাকবে৷ খুব প্রয়োজনে চললেও তা হবে খুবই নিয়ন্ত্রিতভাবে৷

ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইরান বলেন, পূর্ব রাজাবাজারের বাসিন্দাদের জন্য নমুনা সংগ্রহের বুথও করা হয়েছে৷ স্বাস্থ্য অধিদফতরের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের একটি প্যানেল তৈরী করা হয়েছে৷ এটুআইয়ের সহযোগিতায় ২৪ ঘন্টা টেলিফোনে চিকিৎসা সহায়তা পাওয়া যাবে৷ ওই এলাকার বাসিন্দারা চাইলেই যে কোন ধরনের সহযোগিতা পাবেন৷

জোনভিত্তিক লকডাউন কার্যকরের বিষয়ে গাইডলাইনে বলা হয়েছে, রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত গ্রামীণ এলাকায় মুদির দোকান ও ফার্মেসি খোলা রাখা গেলেও কোনো ধরনের রেস্তোরাঁ, চায়ের দোকান ও টং দোকান খোলা রাখা যাবে না৷ গ্রামীণ এলাকায় খোলাবাজার চালানো গেলেও শহরে কোনোভাবেই বাজার খোলা রাখা যাবে না৷ এক্ষেত্রে হোম ডেলিভারির প্রস্তাবনা করা হয়েছে নগর এলাকার জন্য৷ এসব এলাকায় মসজিদ ও ধর্মীয় স্থানে কেবল খাদেম বা কর্মচারীরাই থাকতে পারবেন৷ মোবাইল টপআপ ও এমএফএস সেবা খোলা রাখা গেলেও ব্যাংকিং খাতে কেবল এটিএম বুথ খোলা থাকবে৷ রোগী ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে স্থানীয়ভাবে ২৪ ঘণ্টা নমুনা সংগ্রহের জন্য পর্যাপ্ত বুথ থাকবে৷ এছাড়াও কোভিড-১৯ শনাক্ত হওয়া ব্যক্তির হোম কোয়ারান্টাইন পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা নিশ্চিত করার কথাও বলা হয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন