ভ্যাকসিন নিয়ে ভারতে যত বিভ্রান্তি | আলাপ | DW | 18.12.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

ভ্যাকসিন নিয়ে ভারতে যত বিভ্রান্তি

আজ না হয় কাল ভ্যাকসিন দেয়া শুরু হবে ভারতে৷ কিন্তু ১৩০ কোটির দেশে ভ্যাকসিন দিতে প্রতি পদে সমস্যায় পড়তে হতে পারে৷ 

ভারতে ভ্যাকসিন-রাজনীতির সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যায় না

ভারতে ভ্যাকসিন-রাজনীতির সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যায় না

যুক্তরাজ্য ও অ্যামেরিকায় শুরু হয়েছে করোনার ভ্যাকসিন দেয়ার কাজ৷ ভারতেও অদূর ভবিষ্যতে তা শুরু হয়ে যাবে৷ তিনটি কোম্পানি জরুরি ভিত্তিতে ভ্যাকসিন চালুর অনুমতি চেয়েছে৷ নীতি আয়োগের সদস্য বিনোদ পল জানিয়েছেন, খুব তাড়াতাড়ি ভারতেও ভ্যাকসিন দেয়া শুরু হয়ে যাবে৷ নিঃসন্দেহে সুখবর৷ কিন্তু এই সুখবরের সঙ্গে সঙ্গে অত্যন্ত জরুরি ও প্রাসঙ্গিক কয়েকটি প্রশ্ন উঠছে৷ কীভাবে দেয়া হবে এই ভ্যাকসিন? কারা প্রথমে পাবেন? বাকিরা কখন পাবেন? কীসের ভিত্তিতে রাজ্যগুলিকে ভ্যাকসিন দেয়া হবে? কারা দেবেন? এ তো এক আধ লক্ষ টিকা দেয়া নয়, ১৩০ কোটি মানুষকে দুই বার করে ভ্যাকসিন দেয়া মানে ২৬০ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন লাগবে৷ কবে পাওয়া যাবে অত ভ্যাকসিন? এই ভ্যাকসিন কি বাধ্যতামূলক হবে?

এই প্রশ্নগুলি দেখেই বোঝা যাচ্ছে, বিষয়টা বেশ জটিল৷ একটু অসাবধান হলেই পুরো প্রক্রিয়া বেহাল হয়ে যেতে পারে৷ উপমহাদেশে সরকারি বহু কর্মসূচির মতোই ঘেঁটে যেতে পারে পুরোটা৷ আর যেহেতু ভারতে সবকিছুর মধ্যেই রাজনীতি ঢুকে পড়ে, তাই করোনা-ভ্যাকসিন দেয়ার মধ্যেও যে তার প্রবেশ ঘটবে না, এই গ্যারান্টি কে দেবে? বিশেষ করে আগামী বছর পশ্চিমবঙ্গ সহ পাঁচটি রাজ্যে বিধানসভা ভোট, তখন ভ্যাকসিন-রাজনীতির সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যায় না৷ ফলে পরিস্থিতি বেশ জটিল৷

করোনা ভ্যাকসিন দেয়া নিয়ে নীতি নির্ধারণ করার জন্য ন্যাশনাল এক্সপার্ট গ্রুপ অন ভ্যাকসিন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অন কোভিড তৈরি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার৷ তারা অন্তত বার দশেক বৈঠকে বসেছেন৷ প্রধানমন্ত্রী আলোচনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে৷ রাজনৈতিক দলগুলির সঙ্গে সরকার আলোচনা করেছে৷ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিশেষজ্ঞদের কথা হয়েছে৷ তারপর ঠিক হয়েছে, প্রথমে ভ্যাকসিন দেয়া হবে চিকিৎসক ও চিকিৎসাকর্মীদের৷ সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রের সঙ্গে জড়িত এক কোটি মানুষ প্রথমে এই প্রতিষেধক নিতে পারবেন৷ তারপর পাবেন পুলিশ, পুরসভার কর্মীদের মতো ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কাররা, যাঁরা করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে একেবারে সামনে আছেন৷ তাঁদের সংখ্যা দুই কোটির মতো৷ এঁদের মধ্যে কেন্দ্রীয় ও রাজ্য পুলিশ, সেনা, হোমগার্ড, সিভিল ডিফেন্সের সঙ্গে জড়িত কর্মী, ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে জড়িত কর্মী ও পুরসভার কর্মীরা আছেন৷ তারপর প্রতিষেধক নিতে পারবেন পঞ্চাশ বছর বা তার বেশি বয়সীরা৷  তাঁদের সংখ্যা প্রায় ২৭ কোটি৷ ভোটার তালিকা থেকে তাঁদের চিহ্নিত করা হবে৷ তার সঙ্গে কম বয়সী অথচ যাঁরা ডায়াবেটিস, হাইপারটেনশন সহ বিভিন্ন গুরুতর অসুখে ভুগছেন, তাঁরা প্রতিষেধক নেয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন৷

এখনো পর্যন্ত অগ্রাধিকারের এই তালিকা তৈরি করতে পেরেছে কমিটি৷ শিক্ষকেরা কবে প্রতিষেধক নিতে পারবেন তা নিয়ে কমিটিতে আলোচনা হয়েছে৷ কিন্তু কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি৷ গত নয় মাস ধরে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে শুধু অনলাইন ক্লাস হচ্ছে৷ ফলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার আগে শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মীদের প্রতিষেধক দেয়া জরুরি৷

প্রাথমিক যে তালিকা তৈরি করেছে কমিটি, সেখানে ৩০ কোটি মানুষকে রাখা হয়েছে৷ তার মানে মোট ৬০ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন লাগবে তাঁদের জন্য৷ কিন্তু এখন কত ভ্যাকসিন হাতে পাবে ভারত? সেরাম ইনস্টিটিউট, যারা অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন কোভিশিল্ড তৈরি করছে, তারা প্রথমেই চার কোটি ডোজ দিতে পারবে৷ কিন্তু ফাইজার বা ভারতীয় কোম্পানি ভারত বয়োটেক ও ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল রিসার্চের যৌথ উদ্যোগে তৈরি ভ্যাকসিন প্রথমে কতটা হাতে পাওয়া যাবে তা তারা জানায়নি৷ ফাইজারের ভ্যাকসিনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ ভারতে হয়নি৷ তর্কের খাতিয়ে যদি ধরে নেয়া যায়, তিনটি ভ্যাকসিনই অনুমোদন পেল এবং প্রথমেই তারা চার কোটি ডোজ করে দিতে পারবে, তা হলে মোট ১২ কোটি ভ্যাকসিন নিয়ে কাজ শুরু করা যাবে৷ তার মানে তালিকায় উল্লিখিত তিনটি গোষ্ঠীর মানুষই ভ্যাকসিন পাবেন৷ তবে সেখানেও সকলে পাবেন না৷ ৩০ কোটির মধ্যে মাত্র ছয় কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দেয়া যাবে৷ সেরাম ইনস্টিটিউট হলো বিশ্বের সব চেয়ে বেশি ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারক,  ফলে তাঁদের কাছে বেশি পরিমাণে ভ্যাকসিন তৈরির ক্ষমতা আছে৷ যুক্তরাজ্য, অ্যামেরিকা, ইইউ-কে দেয়ার পর ফাইজার কি প্রথমেই চার কোটি ভ্যাকসিন ভারতকে দিতে পারবে? সম্ভবত না৷ ভারত বায়োটেকের পক্ষেও অত ভ্যাকসিন প্রথমেই তৈরি করা সম্ভব হবে বলে মনে হয় না৷

এই ভ্যাকসিনগুলি খুবই কম তাপমাত্রায় রাখতে হয়৷ ভারতে এখন যা ব্যবস্থা আছে, তাতে ছয় কোটি ডোজ ভ্যাকসিন একবারে দেয়া যাবে৷ সে ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যকর্মী ও ফ্রন্টলাইন কর্মীদের দুইটি ডোজ দেয়া যাবে৷ ইতিমধ্যে একটা অ্যাপ তৈরি হয়েছে, যেখানে কাকে ভ্যাকসিন দেয়া হচ্ছে, তাপমাত্রা ঠিক আছে কি না, কোনো প্রতিক্রিয়া হচ্ছে কি না, সেই সব তথ্য জানা যাবে৷ ঠিক হয়েছে, প্রথমে একশ জন করে গ্রুপ তৈরি করে ভ্যাকসিন দেয়া হবে৷ আধঘণ্টা অপেক্ষা করে দেখা হবে, তাঁদের কোনো বিরূপ প্রতিক্রিয়া হচ্ছে কি না৷ তারপর তাঁদের ছেড়ে দেয়া হবে৷ প্রতি বছর ভারতে দুই কোটি ৬০ লাখ নবজাতককে বিভিন্ন টিকা ও ইঞ্জেকশন দেয়া হয়৷ ফলে ভারতে প্রশিক্ষিত টিকা কর্মীর কোনো অভাব নেই৷ সব রাজ্যে তাঁরা আছেন৷ এরকম বড় ইভেন্ট পরিচালনা করার দক্ষতাও তাঁদের আছে৷

কিন্তু গোলমাল এখানেই শেষ হচ্ছে না৷ ভারতে একাধিক ভ্যাকসিন ব্যবহার করা হবে৷ ধরা যাক, কোনো রাজ্যে পাঁচ লাখ লোককে ফাইজারের ভ্যাকসিন দেয়া হলো৷ তাঁকে দ্বিতীয় ডোজ তো ফাইজারেরই দিতে হবে৷ কিন্তু পরে দেখা গেল, ফাইজারের ভ্যাকসিন আসতে দেরি হচ্ছে৷ তখন? এ বিষয়ে একটি নির্দিষ্ট নীতি নেয়ার প্রয়োজন৷ সে বিষয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে৷ প্রস্তাব এসেছে, একটি রাজ্যে একটি কোম্পানির ভ্যাকসিনই দেয়া হবে৷ কিন্তু তা নিয়ে সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি৷

দ্বিতীয় সমস্যা হলো, ভ্যাকসিনের খরচ কি শুধু কেন্দ্রীয় সরকার বহন করবে? বিহার নির্বাচনের আগে বিজেপি নেতাদের প্রতিশ্রুতি ছিল, সকলকে ভ্যাকসিন বিনামূল্যে দেয়া হবে৷ ধারণা হয়েছিল, কেন্দ্রীয় সরকারই পুরো খরচ দেবে৷ এখন কেন্দ্র পুরো দেবে, না কি, রাজ্য সরকারগুলিকে ৪০ শতাংশ খরচ দিতে বলবে তা পরিষ্কার নয়৷ ইউনিভার্সাল ইমিউনাইজেশন প্রোগ্রামের ক্ষেত্রে রাজ্য সরকার ৪০ শতাংশ খরচ দেয়৷

গৌতম হোড়, ডয়চে ভেলে

গৌতম হোড়, ডয়চে ভেলে

কিন্তু করোনাকালে রাজ্য সরকারের কোষাগার খালি৷ কেন্দ্রের হালও যে খুব ভালো, তা নয়৷ কেন্দ্র তো রাজ্যগুলিকে জিএসটির ক্ষতিপূরণ পর্যন্ত দিতে পারছিল না৷ ভ্যাকসিনের দাম যদি পাঁচশ টাকাও হয়, তা হলে ২৬০ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন কিনতে খরচের ধাক্কা প্রবল৷ তা হলে? এত টাকা সরকার পাবে কোথায়? গরিবদের অবশ্যই বিনা পয়সায় ভ্যাকসিন দেয়া উচিত৷ কিন্তু যাঁরা দুই ডোজ ভ্যাকসিনের জন্য হাজার টাকা খরচ করতে পারবেন, তাঁদের কাছ থেকে টাকা নেয়া উচিত৷ আম্বানি, আদানিদের কথা ছেড়ে দিন, ভারতে উচ্চ মধ্যবিত্ত ও মধ্য মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষের সংখ্যা তো কম নয়৷ তাঁরা এই ভ্যাকসিন নিজের খরচেই নিতে পারবেন৷ এখন রাজ্য সরকার যদি টাকা দেয়, তা হলে কি তারা ঠিক করতে পারবে, কোন ভ্যাকসিন নেবে, কোনটা নয়? এর উত্তরও অজানা৷

বেশ কিছু রাজ্য সরকার ভ্যাকসিন নিয়ে ঘোষণা শুরু করে দিয়েছে৷ তেলেঙ্গানা জানিয়েছে, জানুয়ারির মাঝামাঝির মধ্যে তারা প্রায় ৮০ লাখ মানুষকে ভ্যাকসিন দেবে৷ কী করে? জানা নেই৷ তেলেঙ্গানা যদি জানুয়ারির মাঝামাঝির মধ্যে ৮০ লাখ ভ্যাকসিন পায়, তা হলে বাকি রাজ্যের কী হবে? কমিটির নীতি হলো, রাজ্যে ৫০ বছরের উপরে ও কো-মর্বিডিটি সহ যত মানুষ আছেন, তার অনুপাতে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে৷ নজরদরির জন্য কুড়িজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী থাকবেন৷ এখন রাজ্যে কারা প্রথমে ভ্যাকসিন পাবেন, সেটা কে ঠিক করবে? কোনো রাজ্য যদি বলে বিদ্যুৎ কর্মীরাও ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কার, তাঁদের প্রথমে ভ্যাকসিন দিতে হবে, তখন কী হবে? ফলে ছিদ্র অনেক৷ এই সব ছিদ্র দিয়ে পিঁপড়ে তো দূরস্থান, বড় বড় হাতিও গলে যাবে৷ ফলে অব্যবস্থার ভরপুর সম্ভাবনা রয়েছে৷ সব চেয়ে বড় কথা, খাতায় কলমে পরিকল্পনা করা এক, দিনের পর দিন তা ১৩০ কোটি মানুষের কাছে মসৃণভাবে পৌঁছে দেয়া আরেক কথা৷ তবে যে হারে ভ্যাকসিন আসবে, তাতে দেশের সকলের ভ্যাকসিন পেতে কয়েক বছর লেগে যাবে৷

এখানেই শেষ নয়৷ ভ্যাকসিন নেয়ার পর তার বিরূপ প্রতিক্রিয়া হতে পারে৷ খুবই তড়িঘড়ি করে ভ্যাকসিন দেয়া হচ্ছে৷ একমাত্র অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের রিপোর্ট হলো, তা বয়স্কদের উপর ভালো কাজ করছে৷ বাকিদের ক্ষেত্রে সেরকম কোনো রিপোর্ট নেই৷ এরপর প্রতিক্রিয়া দেখা দিলে পরে তা সারাবার জন্য যে খরচ করতে হবে, সেটা কে দেবে? ক্যানাডা সরকার ঘোষণা করেছে, এই খরচ বিমা কোম্পানি দেবে৷ কিন্তু ভারতে তো তেমন কোনো ঘোষণা হয়নি৷ তাই প্রতিক্রিয়া হলে, তা সারাবার জন্য হাসপাতালের খরচ গুণতে তো আম জনতাকে পাগল হয়ে যেতে হবে!

ফলে সাধু সাবধান৷ ভ্যাকসিন এসে গেলেই সব সমস্যার সমাধান হবে, করোনা পালাবে বলে যাঁরা ভাবছেন, তাঁদের অতটা উল্লসিত হওয়ার কোনো কারণ নেই৷ অন্তত ভারতে৷ সমস্যা অনেক৷ পদে পদে পুরো প্রক্রিয়া ঘেঁটে যেতে পারে, ঢুকে যেতে পারে রাজনীতি৷ আর প্রাথমিকভাবে ৩০ কোটি মানুষের জন্য ৬০ কোটি ভ্যাকসিন জোগাড় করে তাঁদের দিতেই কালঘাম ছুটে যাবে৷ তখনো বাকি থাকবে একশ কোটি লোকের ভ্যাকসিন নেয়া৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়