ভ্যাকসিনে কূটনীতিও মাথায় রাখছে ভারত | আলাপ | DW | 08.01.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

ভ্যাকসিনে কূটনীতিও মাথায় রাখছে ভারত

ভারতে করোনার ভ্যাকসিন কর্মসূচি শুরু হওয়া সময়ের অপেক্ষা৷ এখন নয়াদিল্লির সামনে চ্যালেঞ্জ হলো, ভ্যাকসিন কূটনীতিতে সফল হওয়া৷

সমস্যা একটাই, দেশের মানুষকে আগে করোনা ভ্যাকসিন দেয়া হবে, নাকি টিকা পাঠানো হবে প্রতিবেশী দেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন বন্ধু দেশের কাছে, যাতে সেখানকার মানুষ একই সঙ্গে টিকা নিতে পারেন৷ এখনো পর্যন্ত সরকারিভাবে স্বাস্থ্য বা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এই বিষয়ে কোনো স্পষ্ট নীতি ঘোষণা করা হয়নি৷ তবে বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর গত বুধবার কলম্বোয় বলেছেন, ‘‘আমরা এখন কোভিড পরবর্তী সহযোগিতার দিকে তাকিয়ে৷ এখানে আমি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মনোভাবের কথা জানাতে চাই৷ তিনি বলেছেন, ভারত মনে করে, আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সহযোগিতা করা তার কর্তব্য৷’’

কোনো সন্দেহ নেই, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, নেপাল, ভুটান, মালদ্বীপ, মায়ানমারের মতো প্রতিবেশী দেশগুলি করোনার ভ্যাকসিনের জন্য ভারতের দিকে তাকিয়ে আছে৷ সাম্প্রতিক সময়ে নানা কারণে ভারতের সঙ্গে প্রতিবেশী দেশগুলির সম্পর্ক কিছুটা খারাপ হয়েছে বা সম্পর্কে টানাপোড়েন দেখা দিয়েছে৷ এই অবস্থায় ভ্যাকসিন-কূটনীতিকে হাতিয়ার করে আবার সেই সম্পর্ক পুনরুদ্ধার করার সুযোগ ভারতের সামনে এসে পড়েছে৷ আর তারই সদ্ব্যবহার করতে চাইছে মোদী সরকার৷ আর এই কারণেই ভ্যাকসিন-কূটনীতি এতটা গুরুত্বপূর্ণ৷

তবে এ ক্ষেত্রে একটি ব্যালেন্সের খেলা দেখাতে হবে মোদী সরকারকে৷ কারণ, তাদের সামনে এখন দেশের ১৩০ কোটি মানুষকে টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা যতটা জরুরি, ততটাই প্রয়োজনীয় মানবিক কারণে ও কূটনীতির স্বার্থে প্রতিবেশীসহ বন্ধু দেশগুলির কাছে ভ্যাকসিন দ্রুত পৌঁছে দেওয়া৷

ভারতের হাতে এই মুহূর্তে দুইটি করোনার ভ্যাকসিন আছে৷ অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিশিল্ড, যা উৎপাদন করছে পুণের সেরাম ইনস্টিটিউট৷ আর দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি ভারত বায়োটেক ও ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চের উদ্যোগে তৈরি কোভ্যাকসিন৷ এর মধ্যে সেরাম ইনস্টিটিউটের প্রচুর সংখ্যায় ভ্যাকসিন তৈরির ক্ষমতা আছে৷ ইতিমধ্যেই তারা পাঁচ কোটির বেশি ভ্যাকসিন বানিয়ে ফেলেছে৷ অদূর ভবিষ্যতে তারা দশ কোটি ভ্যাকসিন তৈরি করে ফেলবে বলে জানিয়েছে৷ ভারত বায়োটেকের পরিকল্পনা হলো, প্রতি বছর ৭০ কোটি ভ্যাকসিন তৈরি করা, যার ২০ কোটি তৈরি হবে হায়দরাবাদে, বাকি ৫০ কোটি ভারতের অন্য চারটি শহরে, যেখানে তারা উৎপাদন কেন্দ্র তৈরি করছে৷ আর এখনই তাদের হাতে দুই কোটি ভ্যাকসিন আছে৷ ফলে ভারতের হাতে এখনই সাত-আট কোটি ভ্যাকসিন এসে গেছে৷ সেরাম এবং ভারত বায়োটেক তাদের পরিকল্পনা মতো চললে একুশের মধ্যে ভারতের হাতে বেশ কয়েক কোটি ভ্যাকসিন চলে আসবে৷

ভারতের কাছে কারা ভ্যাকসিন পাওয়ার আশা করছে? অবশ্যই প্রতিবেশী দেশগুলি৷ ব্রাজিল থেকে দিন কয়েক আগেই ভারতের কাছ থেকে অবিলম্বে ভ্যাকসিন চাওয়া হয়েছে৷ দক্ষিণ আফ্রিকাও চাইছে৷ তাছাড়া আফ্রিকার গরিব দেশগুলি আছে৷ এশিয়ার দেশগুলিও আছে৷ এশিয়ায় দুইটি দেশ এখন ভ্যাকসিন হাতে পেয়ে গেছে৷ ভারত ও চীন৷ সে কারণেই ভ্যাকসিন কূটনীতিও গুরুত্বপূর্ণ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতাময় হয়ে উঠতে পারে৷ কারণ, এখানেও প্রধাণত চীনের সঙ্গেই লড়াইয়ে নামতে হবে ভারতকে৷

ভারতে খুব সম্ভবত আগামী সপ্তাহে ভ্যাকসিন দেয়া শুরু হবে৷ প্রথমে পাবেন এক কোটি চিকিৎসক, নার্স ও অন্য স্বাস্থ্যকর্মীরা৷ তারপর পুলিশ, পুরসভার কর্মীসহ করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পুরোভাগে থাকা মানুষরা৷ সেই সঙ্গে সিনিয়র সিটিজেন ও গুরুতর অসুখে ভোগা মানুষেরা৷ সবমিলিয়ে তাদের যদি দুইটি করে ডোজ দিতে হয়, তা হলে দশ কোটি ভ্যাকসিন অবিলম্বে লাগবে৷ তবে প্রথম ডোজের পর দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার মধ্যে কিছুটা সময় হাতে থাকবে৷ সেই সময়ে নতুন করে আরো ভ্যাকসিন উৎপাদন হবে৷ ফলে পরিকল্পনা করে চললে, দেশের মানুষের পাশাপাশি প্রতিবেশী দেশের মানুষের কাছেও ভ্যাকসিন পৌঁছনো সম্ভব৷ প্রথমেই বিপুল পরিমাণে না হলেও কিছুটা করে তো বটেই৷

সরকারি সূত্র জানাচ্ছে, ভারত সরকার এভাবেই চিন্তাভাবনা করছে৷ তারা খুব দূরের দেশে এখনই ভ্যাকসিন পাঠাবার কথা ভাবছে না৷ তবে দেশের মানুষের সঙ্গে প্রতিবেশী দেশের মানুষও যাতে তাড়াতাড়ি করোনার ভ্যাকসিন পান, সে কথা মাথায় রাখা হচ্ছে এবং সেই মতোই চলা হচ্ছে৷ আর অবশ্যই খেয়াল রাখা হচ্ছে, দেশের মানুষকে ভ্যাকসিন দেয়ার ক্ষেত্রে যাতে কোনো অসুবিধা না হয়৷

সে জন্যই বলছিলাম, মোদী সরকারকে ব্যালেন্সের খেলা দেখাতে হবে৷ একটা সরু দড়ির উপর দিয়ে হাঁটতে হবে৷ ভ্যাকসিন কূটনীতিও সহজ নয়৷ প্রতিটি দেশের চাহিদা বিশাল৷ তাদের দেয়া প্রতিশ্রুতি বজায় রেখে, দেশের মানুষকে যথাসম্ভব তাড়াতাড়ি ভ্যাকসিন দেয়ার কাজ মোদী সরকার কতটা সুচারু রূপে করতে পারে সেটাই দেখার৷ আর এতে সফল হলে অন্তত প্রতিবেশীদের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নতির ষোলো আনা সম্ভাবনা থাকবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন