ভোটারদের দুই বার ভোট দিতে বলে সমালোচনার মুখে ট্রাম্প | বিশ্ব | DW | 04.09.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র

ভোটারদের দুই বার ভোট দিতে বলে সমালোচনার মুখে ট্রাম্প

নর্থ ক্যারোলাইনা রাজ্যে ডাকযোগে ভোটগ্রহণের প্রাক্কালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ভোটারদের দুই বার ভোট দেবার পরামর্শ দিয়েছেন৷ এমন ‘বেআইনি’ প্ররোচনার ফলে সমালোচনার ঝড় উঠছে৷

অ্যামেরিকায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের তারিখ ৩রা নভেম্বর হলেও শুক্রবার থেকেই ডাকযোগে ভোটগ্রহণের প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে৷ এ দিন নর্থ ক্যারোলাইনা রাজ্যের মানুষকে ‘মেল ইন’ ভোটের কাগজপত্র পাঠানো হচ্ছে৷ করোনা সংকটের প্রেক্ষাপটে চলতি বছরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সংখ্যাগুরু ভোটারই ডাকযোগে ভোট দেবেন বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷ সে কারণে একাধিক রাজ্য সব ভোটারের কাছে ‘মেল ইন’ ভোটের ব্যালট পেপার পাঠাচ্ছে৷ কিছু রাজ্যে নির্বাচনের দুই সপ্তাহ আগে এমন ভোট গণনা করা হয়৷ বাকি রাজ্যে নির্বাচনের পর সেই কাজ করা হয়৷ বিশেষজ্ঞদের মতে, রেকর্ড সংখ্যক ডাকযোগে ভোটের কারণে নির্বাচনের রাতে সার্বিক চিত্র উঠে আসবে না৷

প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প শুরু থেকেই ‘মেল ইন’ ভোটের বিরোধিতা করে চলেছেন৷ তাঁর অভিযোগ, এই প্রক্রিয়ায় কারচুপির আশঙ্কা বেশি৷ কোনো তথ্যপ্রমাণ ছাড়াই তিনি এমন আশঙ্কার উল্লেখ করে চলেছেন৷ সেই প্রক্রিয়া থামাতে না পেরে এবার তিনি নর্থ ক্যারোলাইনার ভোটারদের দুই বার ভোট দেবার ডাক দিয়েছেন৷ একবার ডাকযোগে, একবার সশরীরে ভোটগ্রহণ কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেবার পরামর্শ দিয়েছেন খোদ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প৷ তাঁর মতে, একমাত্র এভাবেই নির্বাচন প্রক্রিয়ার কার্যকারিতা যাচাই করা সম্ভব৷ সেই প্রক্রিয়া নিখুঁত হলে ডাকযোগে ভোট দেবার পর কোনো ভোটার দ্বিতীয়বার ভোট দেবার সুযোগ পাবেন না৷

উল্লেখ্য, নর্থ ক্যারোলাইনার মতো কিছু রাজ্যে শুধু একাধিকবার ভোট দেওয়াই বেআইনি নয়, কাউকে সে কাজে উৎসাহ দেওয়াও অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয়৷ নর্থ ক্যারোলাইনা রাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেল ও ডেমোক্র্যাটিক দলের সদস্য জশ স্টাইন এক টুইট বার্তায় প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে সেই অভিযোগ এনেছেন৷ তাঁর মতে, ভোটারদের আইন ভাঙতে উৎসাহ দিয়ে নির্বাচনে অরাজকতা সৃষ্টির কাজে সহায়তা চাইছেন ট্রাম্প৷

ট্রাম্প শিবির অবশ্য এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছে৷ হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র কেলেই ম্যাকএনানি ফক্স নিউজ চ্যানেলকে বলেন, প্রেসিডেন্ট মোটেই কাউকে বেআইনি কাজ করতে বলছেন না৷ তিনি ভোটারদের সচেতন করতে শুধু বলেছেন, যে প্রত্যেকের ভোট যাতে সত্যি নথিভুক্ত হয়, তা যাচাই করতে হবে৷ সেটা না হলে সশরীরে ভোট দিতে যাবার পরামর্শ দিয়েছেন ট্রাম্প৷

ফেসবুক জানিয়েছে, ট্রাম্পের যে ভিডিওতে দুই বার ভোট দেবার ডাক দিয়েছেন, কোম্পানির নীতি মেনে সেটি সরিয়ে ফেলা হবে৷ কোনো মন্তব্য ছাড়া অথবা প্রেসিডেন্টের পক্ষ নিয়ে সেই ভিডিও শেয়ার করলেও ভিডিওর যে কোনো সংস্করণ সরিয়ে ফেলা হবে৷ টুইটারও ট্রাম্পের মন্তব্য ‘ফ্ল্যাগ’ করেছে৷

চলতি বছরে অ্যামেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডাকযোগে ভোট নিয়ে বিতর্কের পাশাপাশি আরও কিছু সমস্যার আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ আদালতে নির্বাচনি প্রক্রিয়াকে ঘিরে একাধিক মামলার কারণে অনেক রাজ্যে বিঘ্নের আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ আদালতের রায়ের কারণে শেষ মুহূর্তে নিয়মকানুন বদলাতে হলে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হতে পারে৷ ভোটগণনার অর্থের জোগান নিশ্চিত করার বাজেট নিয়েও মার্কিন কংগ্রেসে দুই দলের মধ্যে বচসা চলছে৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, এপি)

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন