ভোজ্য তেলের বাজারে সরকারি হস্তক্ষেপ বন্ধের দাবি | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 12.05.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

ভোজ্য তেলের বাজারে সরকারি হস্তক্ষেপ বন্ধের দাবি

সয়াবিনের বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকার যে পদক্ষেপগুলো নিচ্ছে, তা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা৷ বুধবার দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর ডাকে ভোজ্য তেল নিয়ে এক মতবিনিয়ম সভায় এসে তারা এই দাবি তোলেন৷

দোকান-গুদামে সরকারি অভিযান বন্ধের দাবি জানান ব্যবসায়ীরা (সাম্প্রতিক ছবি)

দোকান-গুদামে সরকারি অভিযান বন্ধের দাবি জানান ব্যবসায়ীরা (সাম্প্রতিক ছবি)

ডয়চে ভেলের কনটেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোরের প্রতিবেদন অনুসারে, ভোজ্য তেল আমদানিকারক ব্যবসায়ীরা দাবি করেছেন, মুক্তবাজার অর্থনীতিতে বাজারে সরকারের হস্তক্ষেপ পরিস্থিতি জটিল করে তুলছে৷ বরং বাজারকে বাজারের উপর ছেড়ে দিলেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসবে৷

মহামারীর মধ্যে ভোজ্য তেলের বাজারে যে অস্থিরতার শুরু হয়েছিল, তিন মাস আগে ইউক্রেইন যুদ্ধের পর তা আরও বাড়তে থাকে৷ এই পরিস্থিতিতে ভোজ্য তেল আমদানি, পরিশোধন, বিপণন পর্যায়ে ভ্যাট ৩০ শতাংশ তুলে নেয় সরকার৷ আমদানি পর্যায়ে ৫ ‍শতাংশ ভ্যাটই কেবল এখন রয়েছে৷

এরপর ব্যবসায়ীরা দাম আরও বাড়াতে চাইলেও সরকার সায় দেয়নি৷ এর মধ্যেই এ মাসের শুরুতে ঈদের আগে খুচরা বাজার থেকে উধাও হয়ে যায় সয়াবিন তেল৷ তারপর সরকার সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ৪০ টাকা বাড়ালেও আগের তেল অনেক ব্যবসায়ী মজুদ রেখে বাড়তি দরে বিক্রি করছেন বলে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযানে প্রকাশ্য হয়৷

এই পরিস্থিতিতে খুচরা বাজার স্বাভাবিক না হওয়ার মধ্যে বুধবার মতিঝিলে ফেডারেশন ভবনে ভোজ্য তেলের আমদানি, মজুদ, সরবরাহ, ও মূল্য পরিস্থিতি নিয়ে সভায় আসেন ব্যবসায়ীরা, যাতে সভাপতিত্ব করেন এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন৷ এফবিসিসিআই‘র জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি মোস্তফা আজাদ বাবু, তেল আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান টিকে গ্রুপের পরিচালক মো. শফিউল আতহার তাসলিম, এস আলম গ্রুপের জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক কাজী সালাহ উদ্দিন এবং সিটি গ্রুপের উপদেষ্টা অমিতাভ চক্রবর্তী, মৌলভী বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি গোলাম মাওলা এবং দোকান মালিক সমিতির সহ সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম তালুকদারসহ আরও অনেকে ছিলেন সভায়৷

আলোচনায় টি কে গ্রুপের পরিচালক আতহার তাসলিম বলেন, ‘‘এই মার্কেট যদি স্থিতিশীল রাখতে হয়, তাহলে প্রথমেই মার্কেটকে মার্কেটের মতো প্লে করতে দিতে হবে৷ আজকের এই পরিস্থিতির জন্য আমরা মিলমালিক, পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ী একে অন্যকে ব্লেইম করছি (দোষ চাপাচ্ছি), এটা মার্কেটের ডিস্ট্রিবিউশন চ্যানেলটাকে টুডে অর টুমরো ধংস করে দিবে৷ এটা ব্যবসার জন্য একটা অশনি সংকেত৷’’

মিল মালিক প্রতিনিধিদের মধ্যে এস আলম গ্রুপের কাজী সালাহ উদ্দিন আহমদ মুক্তবাজার অর্থনীতিতে বাজারে হস্তক্ষেপ বন্ধের পক্ষে মত দেন৷ তিনি বলেন, ‘‘প্রত্যেক বছর রমজানের আগে সরকার ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক করে পণ্যের দাম কমানোর নির্দেশনা দেন৷ এই নির্দেশনার কারণে বাজারে অস্থিরতা তৈরি হয়৷ ২০০৯-১০ সালেও এরকম একটা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল৷ এর আগে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলেও এরকম হয়েছিল৷ কিন্তু পরে বিষয়টি ব্যবসায়ীদের উপর ছেড়ে দেওয়ায় বাজার ঠিকই নিয়ন্ত্রণে চলে আসে৷’’

সিটি গ্রুপের উপদেষ্টা অমিতাভ চক্রবর্তী বলেন, ‘‘ব্যবসাকে তার নিজের মতো চলতে দিতে হবে৷ সে তার ধারা অনুযায়ী চলবে৷ তাকে বাধা দিলে অস্থিরতা তৈরি হবে৷ বিশ্ববাজারে তেলের দাম বেড়েছে বলেই দেশের বাজারে বেড়েছে৷ এটা বাজারের উপর ছেড়ে দিতে হবে৷ তাহলে আস্তে আস্তে বাজার নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে৷ সরকার যদি মনে করে ব্যবসায়ীরা বেশি লাভ করছে, তাহলে টিসিবির মাধ্যমে তেল আমদানি করুক৷ আমরা সহযোগিতা করব৷ এরপর সরকারই বাজারজাত করুক৷’’

টি কে গ্রুপের তাসলিম বলেন, ‘‘মিল মালিকরা স্বচ্ছভাবে কাজ করছে কি না, তার জন্য টিসিবির মাধ্যমে দেশের ভোজ্যতেলের চাহিদার অন্তত ২০ শতাংশ তেল আমদানি করার প্রস্তাব করছি৷ যাতে সরকার জানে যে টিসিবি কত দামে আমদানি করছে৷ তখন সরকার আমাদের আমদানি দরও জানতে পারবে৷’’

মৌলভীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি গোলাম মাওলা বলেন, ‘‘আন্তর্জাতিক বাজারে ৭৫০ ডলারের তেল এখন ১৯০০ ডলার ছাড়িয়ে গেছে৷ এই পরিস্থিতিতে সরকারের উচিৎ ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বসে আলোচনা করে বাজার পরিচালনা করা৷ কিন্তু চাপাচাপি করলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলের মতো পরিস্থিতি তৈরি হবে৷ তখন পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে উঠতে পারে৷’’

ব্যবসায়ীদের দোকান-গুদামে অভিযানের বিরোধিতা করে তাসলিম বলেন, ‘‘একজন পাইকার যদি ৫০ ড্রাম তেল বিক্রি করে, তার কাছে ৩০ ড্রাম থাকতে পারে৷ বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আইন অনুযায়ী ওই ব্যবসায়ী ২ মাস পর্যন্ত ওই মাল রাখতে পারে৷ এখন যদি ওই মালকে মজুদ দাবি করে ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়, সেটা অন্যায়৷’’

দুদিন আগে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি ব্যবসায়ীদের আচরণে হতাশা প্রকাশ করে বলেছিলেন, ‘‘আমরা ব্যবসায়ীদের বিশ্বাস করেছিলাম এটাই আমাদের ব্যর্থতা৷ বিশ্বাস করা ভুল হয়েছে৷ মিল মালিকরা কথা রাখলেও খুচরা ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা পরিস্থিতির সুযোগ নিয়েছে৷’’

বুধবারের আলোচনায় এফবিসিসিআই সভাপতি জসিমও ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে বলেন, ‘‘এরকম সংকটময় সময়ে আপনাদের লাভ কম করা উচিৎ৷ এই পরিস্থিতি তো অবশ্যই স্বাভাবিক হবে৷ তখন আপনার স্বাভাবিক লাভ করতে পারবেন৷ অল্প কয়েকজন অসৎ ব্যবসায়ীদের কারণে পুরো ব্যবসায়ী সমাজের বদনাম হতে পারে না৷ তাই আপনারা নিজেদের উদ্যোগে যারা এরকম মজুদ করে বেশি দামে তেল বিক্রি করছেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেন৷’’

সভায় টি কে গ্রুপের তাসলিম বলেন, ‘‘দেশের ৯৯ শতাংশ ব্যবসায়ী সৎ হওয়া সত্ত্বেও অসাধু ব্যবসায়ী শুনতে হচ্ছে৷ আমরা অসাধু ব্যবসায়ী শোনা থেকে পরিত্রাণ চাচ্ছি৷’’

এএস /কেএম (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডট কম)

নির্বাচিত প্রতিবেদন