ভোটার হলেন সন্তু লারমা | বিশ্ব | DW | 27.09.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

ভোটার হলেন সন্তু লারমা

পাহাড়িদের কাছে জনপ্রিয় নেতা জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা ওরফে সন্তু লারমা অবশেষে  ৭৭ বছর বয়সে বাংলাদেশের ভোটার তালিকায় নাম উঠিয়েছেন৷

Santu Larma

দীর্ঘ বছরে ধরে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের জনগণের নাগরিক সুবিধা আদায়ে আন্দোলন করছেন এ নেতা৷ ফলে বাংলাদেশের তিন পাহাড়ি জেলাসহ আদিবাসীদের অধিকার নিয়ে কাজ করেন এমন অনেক মানুষের কাছেই তিনি বেশ জনপ্রিয়৷

১৯৪৪ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি রাঙামাটি জেলার মহাপুরম এলাকায় জন্ম সন্তু লারমার বয়স এখন ৭৭৷ তবে এতো বছর দেশের ভোটার হিসেবে লিপিবদ্ধ ছিলেন না তিনি৷ তাই ছিল না জাতীয় পরিচয়পত্রও৷

বলা হয়ে থাকে যে, আঞ্চলিক পরিষদের আইনে তিন পার্বত্য জেলা রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানের স্থানীয় বাসিন্দাদের নিয়ে নতুন ভোটার তালিকা প্রণয়নের দাবিতে দীর্ঘদিন ভোটার হওয়া থেকে বিরত ছিলেন সন্তু লারমা৷

তবে গত মাসে জনপ্রিয় এ প্রবীণ নেতা রাঙ্গামাটি জেলায় ভোটার হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছে বাংলাদেশে ডয়চে ভেলের কনটেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম৷ আর সে অনুসারে বাংলাদেশের জাতীয় পরিচয়পত্রও পাচ্ছেন তিনি৷ 

রাঙামাটি জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শফিকুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘‘নিয়মানুসারে তিনি ভোটার তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্ত করার আবেদন করেছেন এবং আমরা তাকে অন্তর্ভুক্ত করেছি৷ তিনি সেই অনুসারে জাতীয় পরিচয়পত্রও পাবেন৷''

অগাস্টে মাসের ২৯ তারিখ তিনি ভোটার হয়েছেন বলে জানান শফিকুর রহমান৷

দীর্ঘ বছর বাংলাদেশের জাতীয় পরিচয়পত্র না নেওয়া পাহাড়ি এ নেতা কেন হঠাৎ করেই ভোটার তালিকায় নাম লিপিবদ্ধ করলেন সে বিষয়ে অবশ্য কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি৷

তবে ধারণা করা হচ্ছে যে, করোনা ভাইরাসের মহামারির কারণেই হয়তো ভোটার হয়েছেন এ নেতা৷ কেননা সরকারের সিদ্ধান্ত আছে যে, জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকলে কোভিড-১৯ এর টিকা পাওয়ার সুযোগ নেই৷

এদিকে রাঙ্গামাটির জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাসের দুটি টিকাই নিয়েছেন তিনি৷ ভোটার তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্তির পর সার্ভার থেকে পাওয়া অস্থায়ী জাতীয় পরিচয়পত্রের মাধ্যমে তিনি টিকা নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন রাঙামাটির সিভিল সার্জন ডা. বিপাশ খীসা৷

উল্লেখ্য, শিক্ষা জীবনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন সন্ত লারমা৷ তিনি ১৯৮৩ সালে নিহত পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি নেতা মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার ছোট ভাই৷

১৯৭৬ সালে বড় ভাইয়ের হাত ধরে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সশস্ত্র শাখা ‘শান্তিবাহিনীতে' যোগদান করেন৷ পরে ভাইয়ের মৃত্যুর পর সংগঠনের নেতৃত্ব দিতে এগিয়ে আসেন তিনি৷

পরে ১৯৯৭ সালে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরের পর গঠিত পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পান তিনি৷ প্রতিমন্ত্রী পদমর্যাদায় এখনও সেই দায়িত্বে বহাল আছেন সন্তু লারমা৷

আরআর/কেএম (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়