ভূমিকম্প সামলাতে ইন্দোনেশিয়ায় বাঁশের বাড়িঘর | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 18.12.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

ভূমিকম্প সামলাতে ইন্দোনেশিয়ায় বাঁশের বাড়িঘর

প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের পর মানুষের পুনর্বাসন একটা বড় চ্যালেঞ্জ৷ ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্পপ্রবণ একটি এলাকায় বাঁশের তৈরি চিরায়ত বাড়িঘর তৈরির এক উদ্যোগ স্থানীয় মানুষের নিরাপদ আবাসন ও পেশাগত সুবিধা সৃষ্টি করছে৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

ইন্দোনেশিয়ার সুলাওয়েসি দ্বীপের কেন্দ্রস্থলে কুলাউই মালভূমি অত্যন্ত বিপর্যয়-প্রবণ এলাকা৷ বন্যা, ধস, ভূমিকম্প লেগেই রয়েছে৷ রিশটার স্কেলে সাত দশমিক চার মাত্রার ভূমিকম্পের ফলে গ্রামের অনেক বাড়িঘর ধ্বংস হয়েছে৷ কুলাউই জেলার পর্যটন কেন্দ্র পালু সিটি সেই বিপর্যয়ের কয়েক সপ্তাহ পর বাইরের জগত থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন ছিল৷

বোলাপাপু গ্রামে একদল তরুণ বাঁশ দিয়ে বাড়ি তৈরি করছে৷ এএসএফ-আইডি সহযোগীদের সঙ্গে তারা বসবাস ও অর্থনৈতিক কার্যকলাপের জন্য একটি জায়গা গড়ে তুলছে৷ গ্রামের বাসিন্দা মারওয়ান বলেন, ‘‘দেখলে লোবো, অর্থাৎ গ্রামের চিরায়ত সমাবেশের জায়গা মনে হতে পারে৷ তবে ভালো করে দেখলে গামপিরি বা বোলানোয়া, অর্থাৎ কুলাউই-র মূল বাড়িঘরের সঙ্গে মিল পাওয়া যাবে৷ সামান্য কিছু পার্থক্য অবশ্যই রয়েছে৷ আজকাল বেশিরভাগ মানুষ শুধু লোবো চেনেন বলে বাঁশের তৈরি এই বাড়িগুলিকেও লোবো মনে করেন৷ বাস্তবে সেগুলির আকার-আয়তন অতীতের কুলাউয়ি বাড়ির মতো৷ আশ্রয়ের প্রয়োজনের তাগিদই মূল কারণ ছিল৷ বাসস্থানের পাশাপাশি কোনো পেশাগত দক্ষতা শেখানো হবে বলে আমাদের বলা হয়েছিল৷ প্রথমে আমাদের ডিজাইন দেখানো হয়েছিল৷ তারপর বিভিন্ন কর্মশালায় বীজ বপন থেকে শুরু করে চূড়ান্ত প্রক্রিয়া পর্যন্ত সব ধাপ বোঝানো ও হাতেনাতে পরখ করার সুযোগ দেওয়া হয়েছিল৷ আমাদের কাছে এ সবই ছিল নতুন৷ সংরক্ষণ প্রক্রিয়া থেকে শুরু করে নির্মাণ পর্যন্ত সবকিছু আমাদের শিখতে হয়েছিল৷ শিখতে অনেক সময় লেগেছিল বটে, তবে কী আর করা যেত!

অনেককাল আগে কুলাউয়ি-তে কাঠ ও বাঁশ দিয়ে বাড়িঘর তৈরির ঐতিহ্য ছিল৷ আধুনিক সভ্যতার বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে মানুষ ইঁটপাথর ও কংক্রিট দিয়ে নির্মাণকাজ শুরু করে৷ ইঁটের বাড়ি বিশেষ মর্যাদা পেতে থাকে৷ কিন্তু ভয়ংকর ভূমিকম্পের ফলে এ সব বাড়ি ভেঙে পড়লে ভারি কাঠামোর নীচে অনেকের মৃত্যু হয়৷ নির্মাণের ভারি উপকরণের ভয়ে মানুষ তখন বিকল্পের খোঁজ শুরু করে৷

হালকা ও নমনীয় উপকরণ হিসেবে বাঁশ বেছে নেওয়া হয়৷ ভূমিকম্পের মতো বিপর্যয় সামলানোর ক্ষমতা বাঁশের রয়েছে৷ আর্কিটেক্টস উইদাউট বর্ডার্স সংগঠনের সদস্য রোব্বানি এ রোমিস৷ তিনি মারওয়ান ও তার বন্ধুদের সঙ্গে বেশ কয়েক মাস ধরে কাজ করেছেন৷ রোব্বানি বলেন, ‘‘বাঁশ ব্যবহারের অন্যান্য পরিবেশগত সুবিধার মধ্যে সীমিত কার্বন নির্গমন, পানি সংরক্ষণও রয়েছে৷ কারণ বাঁশ গাছ শুকনা এলাকায় ভূগর্ভস্থ পানির স্তর ফিরিয়ে আনতে পারে, গোটা অঞ্চলের ক্ষতিগ্রস্ত ইকোসিস্টেম পুনরুদ্ধার করতে পারে৷ সবচেয়ে বড় বিষয় হলো, বাঁশ নিয়ে কাজের গোটা প্রক্রিয়ার জন্য দক্ষ শ্রমিক ও কর্মীর প্রয়োজন৷ অর্থাৎ বিপর্যয়ের পর ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য বাড়িঘর তৈরির পাশাপাশি আমরা সেই সব মানুষের জন্য অর্থনৈতিক সুযোগ করে দেই, যারা প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছে৷''

ভিডিও দেখুন 05:29

নিরাপদ বাঁশের বাড়ি

কেন্দ্রীয় সুলাওয়েসি কার্সা ইনস্টিটিউটের প্রধান রহমত সালেহ-র মতে, বাঁশ দিয়ে বাড়ি তৈরি আসলে শুধু উপলব্ধির বিষয়৷ ‘রিবিল্ডিং বেটার' নামের অভিযানের আওতায় এই প্রতিষ্ঠান বাঁশের তৈরি বাড়িঘরের একটি আবাসন প্রকল্পে সহযোগিতা করছে৷ রহমত জানান, ‘‘সাধারণত সামাজিক ও পরিসংখ্যান সংক্রান্ত এজেন্সিগুলি দারিদ্র্য সম্পর্কে তথ্য সরবরাহ করে৷ বাড়িঘর তৈরির উপকরণের মতো সূচক ব্যবহার করে সেই তথ্য সৃষ্টি হয়৷ কংক্রিট ছাড়া সবকিছুই নিম্ন মানের হিসেবে দেখানো হয়৷ এমন বিভাজন আমাদের উপলব্ধিকে প্রভাবিত করে৷ # যে সব পরিবার নিজেদের দরিদ্র হিসেবে চিহ্নিত হতে দিতে চায় না, অথবা দারিদ্র্য কাটিয়ে সচ্ছলতার দিকে এগোনোর সাফল্য তুলে ধরতে চায়, তাদের মধ্যে কংক্রিট ব্যবহার করে বাড়িঘর তৈরির প্রবণতা দেখা যায়৷ অনেক বেশি দামী হওয়া সত্ত্বেও এবং এলাকার চরিত্রের সঙ্গে খাপ না খেলেও তারা কংক্রিটের বাড়িঘর চায়৷ # প্রশাসনিক সংস্কার সহযোগিতা কর্মসূচি, বাম্বু লেস্তারি ফাউন্ডেশন ও এএসএফ-এর সাহায্য নিয়ে কার্সা বাঁশ দিয়ে তৈরি একাধিক বাড়িঘরের মডেল সৃষ্টি করেছে৷ ব্যক্তিগত মালিকানার বাড়ি, বিকল্প আবাসন এবং স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও স্কুলের মতো গণ পরিষেবার ভবনের মডেলও রয়েছে৷''

মারওয়ান অদূর ভবিষ্যতে সপরিবারে বাঁশের তৈরি বাড়িতে প্রবেশের পরিকল্পনা করছে৷ নিজের প্রশিক্ষণ সম্পর্কেও তিনি গর্ব অনুভব করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘যে চেয়ারে আমি এখন বসে আছি, সেটি এই প্রশিক্ষণের সাক্ষাৎ ফল৷ আগে এমন চেয়ার তৈরির কাজ অত্যন্ত কঠিন ছিল৷ কয়েক মাসের প্রশিক্ষণের অন্যতম সুফল এটি৷ # আমি কেন এই শিক্ষা কর্মসূচিতে যোগ দিলাম? আমি খুচরো কাজ করে আয় করতাম৷ কোনো কাজে তেমন দক্ষতা ছিল না৷ এই কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে আমি যথেষ্ট দক্ষতা অর্জন করে বাঁশ দিয়ে বাড়ি তৈরির কাজকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করতে পারবো বলে আশা করছি৷ আশাকরি এটি আমার পরিবারের আয়ের উৎস হয়ে উঠবে৷''

প্রয়োজনীয় জ্ঞান অর্জন করে বেশিরভাগ বাসিন্দাই নিরাপদ আবাসন ও পেশার ক্ষেত্রে সুবিধা ভোগ করতে পারবেন৷

বানগুনান বাম্বু রামাহ বেনকানা/এসবি

বিজ্ঞাপন