ভূমধ্যসাগরে নিখোঁজ ৪৩ অভিবাসী, উদ্ধার ১২ বাংলাদেশি | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 04.07.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

টিউনিসিয়া

ভূমধ্যসাগরে নিখোঁজ ৪৩ অভিবাসী, উদ্ধার ১২ বাংলাদেশি

ভূমধ্যসাগরে ১২০ জনের বেশি অভিবাসী বহনকারী একটি নৌকা ডুবে যাওয়ার ঘটনায় ৪৩ জন নিখোঁজ রয়েছেন৷ বাংলাদেশি নাগরিকসহ বাকিদের উদ্ধার করেছে টিউনিশিয়া৷

সাম্প্রতিক সময়ে লিবিয়া ও টিউনিশিয়া থেকে ইউরোপে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ঝুঁকিপূর্ণ যাত্রা বেড়েছে৷

সাম্প্রতিক সময়ে লিবিয়া ও টিউনিশিয়া থেকে ইউরোপে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ঝুঁকিপূর্ণ যাত্রা বেড়েছে৷

শুক্রবার টিউনিশিয়ার উপকূলবর্তী শহর জারজিস এর কাছে পৌঁছানোর পর নৌকাটি ডুবে যায়৷ গত সপ্তাহের শুরুর দিকে লিবিয়ার জুয়ারা থেকে ইউরোপের উদ্দেশে সেটি যাত্রা করেছিল৷  

রেড ক্রিসেন্টের কর্মকর্তা মুনজি সেলিম জানিয়েছেন, নৌকাটিতে ১২৭ জন অভিবাসী ছিলেন৷ কর্তৃপক্ষ ৮৪ জনকে উদ্ধারে সমর্থ্য হয়েছেন৷ এখনও নিখোঁজ রয়েছেন ৪৩ জন৷ টিউনিশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, উদ্ধারকৃতদের মধ্যে ৪৬ সুদানি, ১৬ ইরিত্রিয়ান, ১২ বাংলাদেশি ও পাঁচজন মিশরীয় রয়েছেন৷ তাদের বয়স তিন থেকে ৪০ এর মধ্যে৷ তবে নিখোঁজদের মধ্যে কোন দেশের কতজন রয়েছেন সে ব্যাপারে তথ্য পাওয়া যায়নি৷

উদ্ধারকৃতদের জারজিস বন্দরে স্থানান্তর করা হয়েছে৷ টিউনিশিয়ার দক্ষিণে আশ্রয় কেন্দ্রগুলো এরইমধ্যে অভিবাসীতে পরিপূর্ণ হয়ে গেছে বলে জানান সেলিম৷

এর আগে ২৪ জুন টিউনিশিয়ার কোস্ট গার্ড সদস্যরা একটি ডুবন্ত নৌকা থেকে ২৬৭ অভিবাসীকে উদ্ধার করেছেন৷ এরমধ্যে ২৬৪ জনই ছিলেন বাংলাদেশি৷ 

সাম্প্রতিক সময়ে লিবিয়া ও টিউনিশিয়া থেকে সমুদ্রপথে যাত্রার প্রবণতা বেড়েছে৷ বিভিন্ন দেশের নাগরিকরা ইউরোপে আশ্রয়ের উদ্দেশ্যে এই ঝুঁকিপূর্ণ অভিবাসনের পথ বেছে নিচ্ছেন৷ আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএম জানিয়েছে চলতি বছর এখন পর্যন্ত ইউরোপ পাড়ি দিতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন সাড়ে পাঁচশ জনেরও বেশি৷ 

এফএস/এসএস (এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়