ভিসাপ্রার্থীদের ‘সোশ্যাল মিডিয়া′ পরীক্ষা করবে যুক্তরাষ্ট্র | বিশ্ব | DW | 01.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

ভিসাপ্রার্থীদের ‘সোশ্যাল মিডিয়া' পরীক্ষা করবে যুক্তরাষ্ট্র

যাঁরা যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণে বা অভিবাসনে আগ্রহী ভবিষ্যতে তাঁদের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টগুলোর তথ্য জমা দিতে হবে৷ শুধু তাই নয়, তাঁদের পূর্ববর্তী সব টেলিফোন নম্বর ও ই-মেল অ্যাড্রেসও দিতে হবে৷

আগামী মে মাসের শেষ নাগাদ এই নতুন নিয়ম চালু করা হতে পারে, যা বছরে প্রায় এক কোটি যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণপ্রত্যাশীর ওপর কার্যকর হবে৷

শুক্রবার প্রকাশ হওয়া স্টেট ডিপার্টমেন্টের পরিকল্পনায় বলা হয়, সাধারণ ভ্রমণকারী  (ডিএস-১৬০) ও অভিবাসনপ্রত্যাশী (ডিএস-২৬০) উভয়ক্ষেত্রেই এই নিয়ম কার্যকর হবে৷ যাঁরা ব্যবসার কাজে কিংবা পড়াশোনার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে যেতে চান, তাঁদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে এটি৷ তবে কূটনীতিক বা আনুষ্ঠানিক সফরগুলো এই নিয়মের আওতামুক্ত থাকবে৷

নতুন নিয়ম অনুযায়ী, ভিসার জন্য ‘আবেদন জমা দেয়ার তারিখ থেকে পাঁচ বছর আগ পর্যন্ত' যতগুলো সামাজিক মাধ্যমে আবেদনকারী সক্রিয় ছিলেন, সবগুলোর তথ্য দিতে হবে আবেদনের সঙ্গে৷ 

ফেডারেল রেজিস্ট্রারে প্রকাশিত ঐ নোটিশে আরো লেখা হয়েছে, ‘‘এছাড়াও আবেদনের তারিখের পূর্ববর্তী পাঁচ বছরের সব ফোন নম্বর, ই-মেল অ্যাকাউন্ট ও আন্তর্জাতিক ভ্রমণের তথ্য'' জমা দিতে হবে৷

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নির্বাচনে জয়ের পর যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণকারীদের বিষয়ে ‘কড়া নজরদারির' ঘোষণা দেয়ার পর গত বছরই এই ধরনের উদ্যোগের পরামর্শ আসে৷ তবে বিভিন্ন পর্যায় থেকে তখনই একে ‘ব্যক্তি স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ' হিসেবে উল্লেখ করে প্রতিবাদও জানানো হয়৷ 

কিন্তু কর্তৃপক্ষের ভাষ্য যে, এতে করে তারা সম্ভাব্য সন্ত্রাসীদের খুঁজে বের করতে পারবে৷ উদাহরণ হিসেবে বলা হয়, ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে স্যান বার্নাডিনোতে বন্দুক নিয়ে হামলাকারী আগেই সামাজিক গণমাধ্যমে ‘জিহাদ'-এর ঘোষণা দিয়েছিলেন৷ কিন্তু তারপরও তিনি ভিসা পান

গত বছর যুক্তরাষ্ট্রে সাড়ে পাঁচ লাখেরও বেশি অভিবাসন ভিসার আবেদন জমা পড়েছে৷ আর সাধারণ ভ্রমণপ্রত্যাশীদের আবেদন জমা পড়েছে প্রায় ৯৭ লাখ৷ 

এমন একটি ব্যবস্থা আরো আগে থেকেই চালু আছে যুক্তরাষ্ট্রে৷ তবে যাঁরা জঙ্গি গোষ্ঠী নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে ভ্রমণ করেছেন, শুধু তাঁদের সামাজিক গণমাধ্যমের তথ্যগুলো পর্যালোচনা করা হতো৷ আনুমানিক বছরে ৬৫ হাজার মানুষ সেই নিয়মে পড়তেন৷

শুক্রবারের ঘোষণার পর আগামী ৬০ দিন এই নতুন নিয়মের বিষয়ে আগ্রহীদের মন্তব্য জমা নেয়া হবে৷ ২৯ মে থেকে এই নিয়ম চালুর সম্ভাবনা রয়েছে৷

জেডএ/এসিবি (এএফপি, এপি)

এই নতুন নিয়ম সম্পর্কে আপনার মন্তব্য লিখুন নিচের ঘরে৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন