ভিডিও ফরেনসিক গোয়েন্দার আশ্চর্য ক্ষমতা | বিশ্ব | DW | 26.10.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ভিডিও ফরেনসিক গোয়েন্দার আশ্চর্য ক্ষমতা

সিসিটিভি, সার্ভেইলেন্স ক্যামেরা, পথচারীদের হাতে মোবাইল কিংবা ভিডিও ক্যামেরা৷ এই সব ভাসা ভাসা, অসংবদ্ধ ফুটেজ জুড়ে অপরাধী ধরেন যুক্তরাষ্ট্রের গ্র্যান্ট ফ্রেডরিক্স৷

ভিডিও দেখুন 04:04
এখন লাইভ
04:04 মিনিট

ফরেনসিক গোয়েন্দার ক্ষমতা

এক চালক রাস্তায় একটি শিশুকে গাড়ি চাপা দিলেন – শিশুটি মারা গেল, চালক পলাতক৷ একমাত্র হদিশ হল একটি ভিডিও, কিন্তু তাতে তো কিছুই দেখা যাচ্ছে না – নাকি যাচ্ছে?

ভিডিও ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ গ্র্যান্ট ফ্রেডরিক্সের মতে, ‘‘কোনো ভিডিওই অকেজো নয়৷ যতো খারাপই হোক না কেন, সব ভিডিওতেই প্রচুর তথ্য থাকে৷ তবে সেই তথ্য বার করার জন্য সঠিক পদ্ধতি ও পর্যাপ্ত অভিজ্ঞতা থাকা চাই৷''

গ্র্যান্ট ফ্রেডরিক্স হলেন একজন ভিডিও ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ৷ তাঁর কাজ হল ভিডিও যতোই ভাসা ভাসা হোক না কেন, তা থেকে আততায়ী বা অপরাধীর চূড়ান্ত হদিশটি খুঁজে বার করা৷

গ্র্যান্ট ফ্রেডরিক্স-এর ভিডিও ফরেনসিক ল্যাবরেটরি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন রাজ্যে – স্পোকেইন নামের ছোট্ট একটি শহরে৷ গুরুতর অপরাধের ক্ষেত্রে গ্র্যান্ট ফ্রেডরিক্স সিসিটিভি বা সার্ভেইল্যান্স ক্যামেরার ছবি, অথবা অপেশাদারি ভিডিও ছবি বিশ্লেষণ করে অপরাধী-আততায়ীদের খুঁজে বার করতে সাহায্য করেন৷ 

নাইটক্লাবে হত্যাকাণ্ড

একটি উদাহরণ: একটি নাইট ক্লাবে একটি হত্যাকাণ্ড ঘটার সময় এই ভিডিও ফুটেজগুলি তোলা হয়৷ একজনকে সন্দেহ করা হচ্ছে বটে, কিন্তু এই ভিডিও ছবিগুলি ছাড়া কোনো সাক্ষ্যপ্রমাণ নেই৷ গ্র্যান্ট ফ্রেডরিক্স দেখালেন, ‘‘এখানে সন্দেহভাজন ব্যক্তি ও তার এক বন্ধু নাইট ক্লাবে ঢুকছে৷ সম্ভাব্য আততায়ী একটি খোলা-গলা ডোরাকাটা শার্ট পরে আছে – তিনটি কালো ডোরা দেখা যাচ্ছে৷ ওর টুপিটাও লক্ষ্য করা দরকার: টুপির সামনে একটা গোলাকার ব্যাজ লাগানো আছে৷''

ভিডিও ফরেনসিক গোয়েন্দা গ্র্যান্ট ফ্রেডরিক্স প্রথমে সন্দেহভাজন ব্যক্তির জামাকাপড় বিশ্লেষণ করেন; তারপর তিনি সমস্ত ভিডিও ফুটেজ সাজিয়ে হত্যাকাণ্ড পর্যন্ত কী ঘটেছে, তা বোঝার চেষ্টা করেন৷

গ্র্যান্ট ফ্রেডরিক্স দেখালেন, ‘‘আমরা ওকে ট্র্যাক করতে পারি৷ ও প্রথমে বাথরুমে ছিল৷ একটা ক্যামেরা ভিউ থেকে আরেকটা ক্যামেরা ভিউতে গেলে আমরা হত্যাকাণ্ডের কয়েক মুহূর্ত আগে পর্যন্ত দেখতে পাই৷ এটা এর বন্ধু, কাজেই ও চলে যাবার মুখে, ও এবার বেরোবে ও বন্দুক থেকে গুলি চালানো হবে৷ এখানে গুলিচালক গুলি চালানোর পর বেরোচ্ছে৷ ওর মুখের কোনো ছবি নেই, কিন্তু আমরা ওকে বেরোতে দেখছি৷ জামাকাপড় বিশ্লেষণ করে আমরা দেখাতে পারছি যে, যে ব্যক্তি ঢুকেছিল আর যে গুলিচালক পিছন দিক দিয়ে বেরোচ্ছে, তারা একই লোক৷'' 

গাড়ি দুর্ঘটনা, চালক পলাতক

ভাসা ভাসা ও গোড়ায় অসংবদ্ধ ভিডিও ফুটেজ থেকে এভাবেই হত্যাকারী ধরা যায়৷ আরেকটি উদাহরণ: রাস্তায় একটি শিশু গাড়ি চাপা পড়ল – পলাতক চালককে পরে ধরা সম্ভব হলেও, তাকে অপরাধী হিসেবে শনাক্ত করার মতো পর্যাপ্ত সাক্ষ্যপ্রমাণ নেই৷ একমাত্র হদিশ হল একটি সার্ভেইল্যান্স ক্যামেরার এই ছবি৷

গ্র্যান্ট ফ্রেডরিক্স বললেন, ‘‘তদন্তকারীরা গাড়ির নম্বরটা দেখতে চেয়েছিলেন; ছবিতে সেটা না থাকলেও, আরো অনেক তথ্য আছে৷ এক্ষেত্রে গাড়ির হেডলাইটের আলোটা রাস্তায় কীভাবে পড়েছে ও ছড়িয়েছে, তার ছবি৷ প্রতিটি গাড়ির হেডলাইটের স্প্রেড প্যাটার্ন বা আলো ফেলার ধরণ আলাদা৷ এটাই হল সেই গাড়ি৷ এর তিনটি আলোর বিম রাস্তায় গিয়ে পড়েছে৷ প্রতিটি বিম পরিমাপ করা সম্ভব৷ গাড়ির হেডলাইটের আলো হল গাড়ির ফিঙ্গারপ্রিন্ট৷''

অকুস্থলে ঐ একই মডেলের তিনটি গাড়ি ও তাদের হেডলাইট নিয়ে পরীক্ষা চালিয়ে প্রমাণ করা সম্ভব হল যে, শুধু অপরাধীর গাড়ির হেডলাইটের স্প্রেড প্যাটার্ন নজরদারি ক্যামেরার ছবির সঙ্গে মেলে৷ এরই নাম ভিডিও ফরেনসিক্স৷

শুধু পিক্সেল বা অন্যান্য ক্যামেরার তথ্য দিয়েই যে ভিডিও ফরেনসিক্স-এর গোয়েন্দারা কাজ করেন, এমন নয়: কোথায় যেন তাদের মধ্যে আজও শার্লক হোমস লুকিয়ে রয়েছেন৷

প্রতিবেদন: পেট্রা স্টাইন/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন