‘ভালো ছবি বানাতে হলে কাজের ক্ষেত্রে সৎ হতে হবে′ | বিশ্ব | DW | 26.02.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সাক্ষাৎকার

‘ভালো ছবি বানাতে হলে কাজের ক্ষেত্রে সৎ হতে হবে'

তরুণ নির্মাতাদের কাজের ক্ষেত্রে সৎ থাকার পরামর্শ দিলেন ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের  পরিচালক আহমেদ মুজতবা জামাল৷ ডয়চে ভেলের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে বার্লিনালে এবং বাংলাদেশের চলচ্চিত্র নির্মাণ নিয়ে কথা বলেছেন তিনি৷

আহমেদ মুজতবা জামাল

আহমেদ মুজতবা জামাল

ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব ফিল্ম ক্রিটিকস ফিপ্রেস্কি-র সদস্য হিসেবে ৬৮তম বার্লিন ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের ক্রিটিক জুরি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন আহমেদ মুজতবা জামাল৷

ডয়চে ভেলে:বার্লিনালেতে এ নিয়ে কতবার এলেন? কেমন লেগেছে এবারের উৎসব?

আহমেদ মুজতবা জামাল: এ নিয়ে আমার পাঁচবার আসা  হলো৷ প্রথমবার এসেছিলাম ১৯৯৭ সালে৷ ১৯৯৮ তে ক্রিটিক্স জুরি হয়ে এসেছিলাম৷ এবারও ক্রিটিক্স জুরি হিসেবে এসেছি৷

Deutschland Berlinale 2018 in Berlin (DW/A. Parvez)

দর্শকরা চলচ্চিত্র উৎসবের প্রাণ

এ বছর কী ধরনের চলচ্চিত্র এসেছে এবং কোনগুলো আপনার কাছে বেশি ভালো লেগেছে?

ফিপ্রেস্কিতে জুরি হওয়ার সুবাদে ফোরামের অনেক ছবি দেখার সুযোগ হয়৷ এখানে বড় বাজেটের বা বাণিজ্যিক কোনো ছবি থাকে না, তাই তরুণ প্রতিভাবান অনেক পরিচালক এখানে তাদের মুভিগুলো দেখানোর সুযোগ পান, যেগুলোর বেশ কয়েকটি আমাকে অভিভূত করেছে৷ তাদের চিন্তা ভাবনায় নতুনত্ব আছে৷ এরা ভবিষ্যতে বড়  পরিচালক হবে বলে মনে করি আমি৷ ফোরাম থেকে অ্যাওয়ার্ড পাওয়া একটি ছবির পরিচালক মুভিটি বানানোর পরে আত্মহত্যা করেন, তার বয়স হয়েছিল মাত্র ২৯ বছর৷ তার ছবিটি অসাধারণ ছিল৷

আপনারা যাঁরা বিচারক হিসেবে থাকেন, তাঁরা পুরস্কার দেয়ার ক্ষেত্রে সাধারণত কোন বিষয়গুলোকে প্রাধান্য দেন?

এক এক ফেস্টিভ্যালের এক এক ক্যারেক্টার থাকে৷ ১৯৯৮ সালে আমি যখন প্রথম ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে আসি, তখন সেন্ট্রাল দ্য ব্রাজিল, ওয়াল্টার সিলেসের একটা মুভি সেবার গোল্ডেন বেয়ার পায় বার্লিনালেতে৷ আমি যে বিভাগের জুরি ছিলাম, সেখানে বললাম এই মুভিটাকে পুরস্কার দিতেই হবে৷ ডিরেক্টর ম্যালকম ছিলেন আমাদের জুরি চেয়ারম্যান৷ তিনি বললেন, এই ছবি বার্লিন বেয়ারসহ অনেক পুরস্কার পাবে, তাই অন্যরকম একটা ছবি নির্বাচন করো, যেটা তৃতীয় বিশ্বের তরুণ কোনো প্রতিভাবান  নির্মাতার, যার হয়তো প্রথম ছবি, তাকে প্রমোট করো৷ তখন আমরা জাপানের একটা ছবিকে অ্যাওয়ার্ড দেই৷ ছবি নির্বাচনের ক্ষেত্রে স্ক্রিপ্ট, লাইটিং, অভিনয়,  সিনেমাটোগ্রাফি, ছবি বানানোর উদ্দেশ্য – নানা বিষয় নিয়ে জুরিরা ঘন্টার পর ঘন্টা আলোচনা করে ঠিক করি কাকে দেয়া উচিত এবং কেন৷

বার্লিন ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের ভিন্নতাটা কোথায়?

কান, বার্লিন, ভেনিস – এগুলোর একটা আলাদা চরিত্র দাঁড়িয়ে গেছে৷ এদের জায়গা কেউ নিতে পারবে না৷ এছাড়া আছে টরন্টো ফেস্টিভ্যাল৷ বার্লিনালের বিশেষ সুনাম আছে ফোরামের জন্য৷ উলরিক গ্রেগর এর প্রতিষ্ঠাতা৷

বার্লিনালের প্যানারোমাতে ট্রান্সজেন্ডারদের উপর মুভিগুলো প্রাধান্য দেয়া হয়৷ তবে একেক ফেস্টিভ্যালে  এর একেকটা ধরন থাকে৷ বার্লিনালেরও ভিন্নতা রয়েছে সেই জায়গায়৷ এটার কোনো বৈশ্বিক ফর্ম নাই৷ ঢাকা ফেস্টিভ্যালে যেমন আর্ট হাউস ফিল্মগুলোকে প্রাধান্য দেয়া হয়৷

এবারের উৎসব কেমন দেখলেন?

আমি বার্লিনে এলে অবাক হয়ে যাই৷ কারণ, বাংলাদেশে ফিল্ম ফেস্টিভ্যালগুলোতে তেমন লোক হয় না৷ বার্লিনে দর্শক দেখে আমি রীতিমতো স্তম্ভিত৷ এত দর্শক দেখে আমি  আনন্দিত যে, ফিল্মের জন্য এখনো মানুষ আছে৷ তারা ছবি দেখছে৷ অনেক বড় বড় ফেস্টিভ্যালে গিয়ে দেখেছি দর্শক নাই, অথচ বার্লিনে প্রচুর দর্শক, এটা বার্লিনের একটা সম্পদ৷

বাংলাদেশে কি ধরনের চলচ্চিত্র নির্মাণ হচ্ছে? বর্তমান অবস্থাটা কী?

বাংলাদেশে এখন ২০-২৫ জন ফিল্ম মেকার আছে, যারা আগামী ৫-১০ বছর বিশ্ব দাপিয়ে বেড়াবে৷ বাংলাদেশে সৌখিন ফিল্মমেকার ৫০ হাজার৷ এর মধ্যে ৫ হাজার প্রফেশনাল৷ এফডিসির অবস্থা খুব শোচনীয়৷ তাই ডিজিটালি যারা ছবি নির্মাণ করছে, তারা বেশ ভালোভাবেই করছে৷ ঢাকায় প্রত্যেকটা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিল্ম নিয়ে বিভাগ হয়েছে, যেখানে এ বিষয়ে পড়ানো  হয়৷ আমি মনে করি, বাংলাদেশে ফিল্মের ভবিষ্যৎ খুবই ভালো৷

বাংলাদেশের তরুণ নির্মাতাদের জন্য আপনার পরামর্শ কী?

বাংলাদেশে তরুণদের জন্য পরামর্শ হলো, সৎ ও ভালো ভালো ছবি বানান, কোনো জালিয়াতি না করে সোজা রাস্তায় হাঁটলে কেউ আপনাকে আটকে  রাখতে পারবে না, বিশ্ব আপনাকে চিনবে৷ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে যেটা হয়, একটা ছবি ভালো হলে নির্মাতাদের এত অহংকার হয় যে, এরপরের ছবিগুলো ভালো হয় না৷ ঢাকায় অন্তত ১০ জন নির্মাতা আছেন, যাঁরা বলেন, তাঁদের চেয়ে ভালো নির্মাতা এদেশে নেই৷ যারা ভালো ছবি বানাতে চায়, তাদের জন্য পৃথিবী খোলা আছে৷

পুরো সাক্ষাৎকারটি দেখতে ক্লিক করুন এখানে

(আহমেদ মুজতবা জামাল, রেইনবো ফিল্ম সোসাইটির প্রধান৷ এই আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র সমালোচক ১৯৯৪ সাল থেকে ফিপ্রেস্কির সঙ্গে যুক্ত৷ এ পর্যন্ত অংশ নিয়েছেন কান চলচ্চিত্র উৎসবসহ বিশ্বখ্যাত প্রায় ২৫টি উৎসবে৷)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন