ভালোর মুখোশের আড়ালে ভয়াল বাস্তব | আলাপ | DW | 25.09.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

ভালোর মুখোশের আড়ালে ভয়াল বাস্তব

নির্ভরশীলতা, আস্থা, বিশ্বাসের জায়গাগুলোকে প্রশ্নবিদ্ধ করে চলেছে কিছু লোকের লোভ-লালসা-নিষ্ঠুরতা৷

স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের মূল ভিত্তি বিশ্বাস৷ কিন্তু পরিসংখ্যান বলছে, সেখানেই বিশ্বাসভঙ্গের ঘটনা ঘটছে সবচেয়ে বেশি৷ বিশ্বাস ভঙ্গের ফলে জীবনও দিতে হচ্ছে৷ যৌনপল্লীতে স্ত্রীকে বিক্রি করে দেয়ার মতো ঘটনাও ঘটছে৷

গত আগস্টে স্ত্রীকে ভারতের যৌনপল্লীতে বিক্রি করে দেয়ার অভিযোগে মামলা হয় যশোরের অভয় নগরের উজ্জ্বল শিকদারের বিরুদ্ধে৷ অভিযোগে বলা হয়, ২০১৮ সালের ২১ মার্চ উজ্জ্বল শিকদার তার স্ত্রীকে নিয়ে বিনা পাসপোর্টে বেনাপোল হয়ে ভারতে যায়৷ প্রায় দুই বছর ভারতে অবস্থানের পর চলতি বছরের ২ ফেব্রুয়ারি উজ্জ্বল তার স্ত্রীকে ব্যাঙ্গালুরুর এক যৌনপল্লীতে বিক্রি করে চলে আসে৷ ২৩ দিন যৌনপল্লীতে মানবেতর জীবন-যাপন শেষে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি যৌনপল্লীর এক দারোয়ানের সহযোগিতায় বেনাপোল হয়ে দেশে ফিরে আসেন সেই নারী৷ ভুক্তভোগী নারী আদালতে বলেন, ‘‘উজ্জ্বল ও তার ভাই আমার মতো অনেক নারীকে প্রেমের বন্ধনে আবদ্ধ করে বিদেশে পাচার করে৷’’ উজ্জ্বল ও তার ভাই এখন পলাতক৷

অডিও শুনুন 03:13

সমাজে অপরাধ যখন নিয়ন্ত্রণহীন ও বিচারহীন হয় তখন পশুত্ব বেশি প্রকাশ পায়: ডা. তাজুল ইসলাম

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ভোলার আদালতে বিয়ে অস্বীকার করার অভিযোগে মনির হোসেন নামে একজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়৷ মনির হোসেন ভোলার বোরহানউদ্দিনের নির্বাচন অফিসের অফিস সহকারি৷ তার বিরুদ্ধে বিয়ের নামে প্রতারণার অভিযোগ করা হয়েছে৷ সে বিয়ের ভুয়া কাবিননামা তৈরি করে এক নারীর সাথে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে দীর্ঘদিন বসবাসের পর সম্পর্ক অস্বীকার করছে৷ ওই নারী এখন স্ত্রীর অধিকার ফিরে পেতে আদলতে মামলা করেছেন৷

মোবাইল ফোনে কথা বলে মুগ্ধ হয়ে প্রেমে জড়িয়ে জীবন দিতে হয়েছে বগুড়ার জয়তারা লিমা নামে এক প্রতিবন্ধী নারীকে৷ দুই স্ত্রী থাকার পরও গাইবান্ধার হাবিবুর রহমান লিমার সাথে প্রেমের অভিনয় করে৷ শেষ পর্যন্ত ওই নারী গাইবন্ধায় গিয়ে দেখের হাবিবুরের আরো দুই স্ত্রী আছে৷ এরপরও বিয়ের জন্য চাপ দিলে লিমা প্রতিবন্ধী বলে তাকে বিয়ে না করে হত্যা করে লাশ গুমের চেষ্টা করে হাবিবুর৷

এ ধরনের অপরাধীদের বিষয়ে জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক ডা. তাজুল ইসলাম বলেন, ‘‘বিশ্বাস ভঙ্গের মাধ্যমে এই প্রতারণা ও অপরাধ নতুন কিছু নয়৷ আগেও ছিল৷ মানুষের মধ্যেই পশুত্ব আছে৷ তারই ফল এটা৷ আর সমাজে অপরাধ যখন নিয়ন্ত্রণহীন এবং বিচারহীন হয়, তখন পশুত্ব প্রকাশ পায় বেশি৷’’

তিনি বলেন, ‘‘মূল্যবোধের চর্চার মাধ্যমে এই ধরনের অপরাধ নিয়ন্ত্রণের কথা বলা হলেও প্রধান দায়িত্ব রাষ্ট্রের৷ যারা রাষ্ট্র পরিচালনা করেন, তাদের কাজ হলো এগুলো নিয়ন্ত্রণ করা৷ আর তা সম্ভব আইনের শাসনের মাধ্যমে৷ যদি  এমন হয় যে, অপরাধ করে পার পাওয়া যাবে না, তাহলে এটা নিয়ন্ত্রণে আসবে৷’’

ইন্টারনেটের যুগে প্রতারণা নতুন মাত্রা পেয়েছে বলে বিশ্লেষকরা মনে করেন৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরিচয় ও রাতারাতি প্রেমে পড়ে ধর্ষণ এবং অপহরণের শিকার হওয়ার ঘটনাও ঘটছে৷ দাম্পত্য কলহের জের ধরে নির্যাতন ও হত্যাকাণ্ডও বাড়ছে৷ আবার  পাত্র-পাত্রীর বিজ্ঞাপন দিয়ে বিয়ের নামে সর্বস্ব লুটে নিতে তৎপর হয়ে উঠেছে প্রতারক চক্র৷ এমন এক প্রতারক চক্রের সদস্য জান্নাতুল ফেরদৌসকে গত সপ্তাহে আটক করেছে পুলিশ৷

অডিও শুনুন 03:58

সামাজিক ও ধর্মীয় মূল্যবোধের ওপরও আমাদের জোর দিতে হবে: সাবেক আইজি নূর মোহাম্মদ

আইনজীবী মনজিল মোরসেদ মনে করেন, বিশ্বাস ভঙ্গের মাধ্যমে অপরাধ প্রবণতা সবখানেই আছে৷ রাজনীতিবিদদের কথায় বিশ্বাস করে মানুষ তাদের ভোট দেন৷ কিন্তু পরে তারা কথা রাখেন না৷ তারা দুর্নীতির মাধ্যমে  টাকার পাহাড় গড়েন৷ এটাও বিশ্বাসভঙ্গ, প্রতারণা৷ আর যারা সরকারি চাকরি করছেন, তারাও বিশ্বাস ভঙ্গ করে দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ছেন৷ আসলে বিশ্বাসভঙ্গ এখন সবখানে৷ তিনি বলেন, ‘‘এর বিপরীতে শাস্তি তেমন নেই৷ আইন তাদের ধরতে পারে না৷ পার পেয়ে যায়৷ যার ক্ষমতা যত বেশি, সে তত বেশি বিশ্বাস ভঙ্গ করে৷’’

এখন সবখানে যেন প্রতারণার ফাঁদ পাতা৷ বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)-র কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক জলি তালুকদার যৌন হয়রানির অভিযোগ তুলেছেন দলের ঢাকা মহানগর কমিটির সদস্য জাহিদ হোসেন খানের বিরুদ্ধে৷ অভিযোগের তদন্ত চলছে৷  বহুল আলোচিত ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনকে ধর্ষণ মামলার আসামি হওয়ার কারণে সংগঠন থেকে সাময়িকভাবে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে৷ মামুনসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী ধর্ষণের মামলা করেছেন৷ পুলিশ মামলাটি তদন্ত করছে৷

পুলিশের সাবেক আইজি নূর মোহাম্মদ মনে করেন, ‘‘বিশ্বাস ভঙ্গ করে অপরাধ ও প্রতারণা নিয়ন্ত্রণে আইন প্রয়োগই যথেষ্ঠ নয়৷ আমাদের জোর দিতে হবে সামাজিক ও ধর্মীয় মূল্যবোধের ওপর৷ আর ব্যক্তিকেও সচেতন হতে হবে৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন