ভারত পাকিস্তানকে সংযমের আহ্বান ট্রাম্পের | বিশ্ব | DW | 20.08.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

কাশ্মীর

ভারত পাকিস্তানকে সংযমের আহ্বান ট্রাম্পের

কাশ্মীর ইস্যুতে উত্তেজনা কমাতে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীদের সঙ্গে কথা বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনান্ড ট্রাম্প৷

সোমবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেন ট্রাম্প৷ কাশ্মীরের স্বায়ত্বশাসন প্রত্যাহারের পর থেকে প্রতিবেশী এই দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চলছে৷

এক টুইটে ট্রাম্প বলেছেন, ‘‘আমার দুই ভালো বন্ধু, ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদী ও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী খানের সঙ্গে কথা বললাম। বাণিজ্য, কৌশলগত অংশীদারি এবং সবচেয়ে গুরুত্ব দিয়ে ভারত ও পাকিস্তানকে কাশ্মীরে উত্তেজনা হ্রাসের জন্য কাজ করতে বললাম। কঠিন পরিস্থিতি, কিন্তু ভালো আলাপ হয়েছে৷'''

ভারতের সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করে কাশ্মীরের স্বায়ত্ত্বশাসনের মর্যাদা তুলে নেওয়ার পর থেকে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে দিন দিন সম্পর্কের অবনতি হচ্ছে৷

এক বিবৃতিতে ভারত সরকার জানিয়েছে, ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ট্রাম্পকে বলেছেন যে ভারতের বাণিজ্যমন্ত্রী ও মার্কিন বাণিজ্য প্রতিনিধি দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য নিয়ে ফের আলোচনায় বসবেন বলে আশা করছেন তিনি।

অন্যদিকে হোয়াইট হাউস এক বিবৃতিতে বলেছে, "বাণিজ্য বৃদ্ধির মাধ্যমে তারা যুক্তরাষ্ট্র-ভারতের অর্থনৈতিক মিত্রতা কীভাবে আরও জোরদার করার দিকে এগিয়ে নিতে পারেন তা নিয়ে ফের আলোচনা করেছেন দুই নেতা এবং তারা শিগগিরই আবার দেখা করার প্রত্যাশা করছেন।”

ফোনে কথা বলার সময় ট্রাম্প ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা হ্রাসের প্রয়োজনীয়তার বিষয়টিতেও জোর দিয়েছেন বলে হোয়াইট হাউস জানিয়েছে৷ ‘‘কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে ভারতের সঙ্গে উত্তেজনা ও বাদানুবাদ হ্রাসের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আলোচনার জন্য ট্রাম্প পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গেও কথা বলেছেন৷ পরিস্থিতির আরও অবনতি এড়ানোর প্রয়োজনীয়তা পুনর্ব্যক্ত করে উভয়পক্ষকে সংযত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ট্রাম্প৷''

স্বায়ত্ত্বশাসনের মর্যাদা তুলে নেওয়ার পর কাশ্মীরের জনগণের চলাফেলায় স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা হয়, বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছিল ইন্টারনেট ও ফোনের সংযোগ৷ এর প্রতিশোধ হিসেবে পাকিস্তান ভারতের সঙ্গে পরিবহন ও বাণিজ্যিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন এবং পাকিস্তানে ভারতের রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করে৷

ভারতীয় সংবিধানের যে অনুচ্ছেদের ফলে জম্মু ও কাশ্মীর বিশেষ স্বায়ত্তশাসনের মর্যাদা পেয়ে আসছিল সেই ৩৭০ ধারা বাতিল করে নরেন্দ্র মোদীর সরকার। পাশাপাশি রাজ্যটিকে কেন্দ্রের শাসনের আওতায় আনা হয়৷

এসআই

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন