ভারত থেকে অনুপ্রবেশ, সীমান্তে নজরদারি বৃদ্ধি | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 30.11.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

ভারত থেকে অনুপ্রবেশ, সীমান্তে নজরদারি বৃদ্ধি

বাংলাদেশের ছয়টি জেলার সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে অনুপ্রবেশ বাড়ছে৷ গত এক মাসে প্রায় ছয়শ নারী, পুরুষ ও শিশুকে আটক করে থানায় দেয়া হয়েছে৷ বিজিবি বলছে তারা বাংলাদেশি কীনা তা যাচাই করা সম্ভব হচ্ছে না৷ 

ভারত থেকে অনুপ্রবেশ বাড়ায় দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম সীমান্তে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)৷ স্থানীয় লোকজনকেও সতর্ক করে দেয়া হয়েছে তথ্য দেয়ার জন্য৷ বিজিবি সূত্র জানায়, সীমান্ত জেলা যশোর, ঝিনাইদহ, সাতক্ষীরা, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর ও কুষ্টিয়ার বিভিন্ন এলাকা দিয়ে এই অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটছে৷

সবচেয়ে বেশি অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটছে ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্ত থেকে৷ গত এক মাসে সেখান দিয়ে অনুপ্রবেশের সময় ২৬০ জনকে আটক করা হয়৷ আর অন্য সীমন্ত থেকে আটক করা হয় ২৫১ জনকে৷ এই পাঁচ শতাধিক নারী পুরুষের বিরুদ্ধে থানায় পাসপোর্ট আইনে মামলা হয়েছে৷ কারণ তারা পাসপোর্ট ভিসা ছাড়াই বাংলাদেশ অনুপ্রবেশ করেছেন৷

অডিও শুনুন 01:24

আগের চেয়ে অনুপ্রবেশ কিছুটা বেড়েছে: মামুন খান

বেনাপোল বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আগের চেয়ে অনুপ্রবেশ কিছুটা বেড়েছে৷ আমার থানায় গত মাসে ৫৬ জনকে হস্তান্তর করেছে বিজিবি৷ এরা বেশির ভাগই বাগেরহাট, মোড়েলগঞ্জ, শরণখোলা ও মোংলা এলাকার বাসিন্দা বলে আমাদের জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন৷ তারা ভারতের কর্নাটকের ব্যাঙ্গালুরু ও  কেরালা এলাকায় বাসা বাড়িতে কাজের জন্য গিয়েছিলেন।’’

তবে বিজিবি বলছে বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে দাবি করলেও জাতীয় পরিচয়পত্র বা পাসপোর্ট কোনটাই তারা দেখাতে পারছে না৷ যে কারণে তারা বাংলাদেশের নাগরিক কীনা প্রাথমিকভাবে সেটি প্রমাণ করা সম্ভব হচ্ছে না৷

অনুপ্রবেশ ঘটতে পারে আসাম থেকেও

৫৮ বিজিবির কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল কামরুল হাসান বলেন, ‘‘আগে প্রতিমাসে মহেশপুর সীমান্ত থেকে অনুপ্রবেশের সময় আমরা দুই-চার জনকে আটক করতাম৷ কিন্তু নভেম্বরে এই সংখ্যা ছিল ২৬০ জন৷ অনুপ্রবেশের সংখ্যা অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে গত এক মাসে৷’’

তিনি বলেন, ‘‘যাদের আটক করা হয়েছে তারা নিজেদের বাংলাদেশের নাগরিক দাবি করছেন৷ কিন্তু স্বপক্ষে কোনো তথ্য প্রমাণ দেখাতে পারছেন না৷ এমনকি যেই এলাকার তারা বাসিন্দা ছিলেন বলে দাবি করছেন সেখানকার কোনো যোগাযোগ নম্বর তাদের কাছে নেই, বলতে পারছেন না জনপ্রতিনিধির নামও৷’’

তারা কেন আসছে জানতে চাইলে কামরুল হাসান বলেন, ‘‘তারা ভারতের যেসব এলকায় ছিলেন সেসব জায়গায় পুলিশের অভিযান বেড়ে গেছে৷ পুরো ভারতে এনআরসির কথা বলেছেন অমিত শাহ৷ এতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে৷’’ তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, আসামের নাগরিকপঞ্জিতে বাংলাভাষী যেসব মুসলিমের জায়গা হয়নি, অবৈধ ঘোষণা করা হলে তারাও বাংলাদেশে প্রবেশের চেষ্টা করতে পারে৷ 

অডিও শুনুন 03:41

আসামের ঢল ঠেকানোর জন্য বিজিবি কড়াকড়ি অবস্থায় আছে: লে. কর্নেল কামরুল হাসান

‘‘আমাদের (সীমান্তের) পূর্বাঞ্চলে আসামের ঢল ঠেকানোর জন্য (বিজিবি সদস্যরা) কড়াকড়ি অবস্থায় আছে৷ তবে তারা ঘুরেও আসতে পারে, সেই আশঙ্কাও রয়েছে৷’’ অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সব সীমান্তেই নজরদারি ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে বলে জানান তিনি৷ 

কামরুল হাসান বলেন, ‘‘যারা বাংলাদেশের নাগরিক বলে দাবি করছেন তারা যদি বাড়ি ঘর বিক্রি করে গিয়ে থাকেন তাহলে তারা এখানে উদ্বাস্তুতে পরিণত হবে৷ আবার নারীরা সেখানে যদি যৌনকর্মী হিসেবে কাজ করে থাকেন তাহলে সেটাও আমাদের জন্য একটা হুমকি৷ কারণ এইডস ছড়ানোর আশঙ্কা আছে৷’’

‘আর যাতে কেউ না ঢুকতে পারে’

এদিকে, আসামের নাগরিকপঞ্জির কোনো প্রভাব বাংলাদেশে পড়বে না বলে দাবি করে আসছে সরকার৷ সম্প্রতি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন সিলেটে এক অনুষ্ঠানে বলেছেন, ‘‘ভারত সরকার ইতিমধ্যে বাংলাদেশকে আশ্বস্ত করেছে যে এনআরসির কারণে ভারত থেকে কাউকে বাংলাদেশে পুশইন করবে না৷’’

এর দুইদিন পর সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, ‘‘সরকারের কাছে ভারত থেকে অনুপ্রবেশ সংক্রান্ত কোন তথ্য নেই৷ গণমাধ্যমেই তিনি এই খবর দেখেছেন৷’’

এই মুহূর্তে সরকারের করণীয় কী এ বিষয়ে সাবেক রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল(অব.) শহিদুল হক বলেন, ‘‘পররাষ্ট্রমন্ত্রীতো বলেছেন তিনি অনুপ্রবেশের বিষয়টি সংবাদপত্রে দেখেছেন৷ এখন সরকারের উচিত হবে যারা এসেছেন তাদের নাগরিকত্ব যাচাই করা৷ যদি তারা আমাদের নাগরিক না হয় তাহলে ভারতের কাছে তাদের ফিরিয়ে নেয়ার জন্য বলা৷’’

তবে তিনি বলেন, ‘‘এর একটা বিপদের দিকও আছে যদি ভেরিফাই শুরু হয় তাহলে এনআরসির কারণে ওখান থেকে বাংলাভাষীদের ঢল শুরু হতে পারে৷ তাই প্রথম কাজ হলো আর যাতে কেউ না ঢুকতে পারে সেটা নিশ্চিত করা, সেজন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া৷ তারপর অন্য প্রক্রিয়ায় কূটনৈতিকভাবে জোর দিতে হবে৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন