ভারতে ‘সেন্সরশিপের মুখে′ নেটফ্লিক্স | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 20.10.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

ভারতে ‘সেন্সরশিপের মুখে' নেটফ্লিক্স

জনপ্রিয় ভিডিও স্ট্রিমিং সাইট নেটফ্লিক্স এবং অ্যামাজন প্রাইম ভিডিও ভারতে সেন্সরশিপের মুখে পড়তে পারে বলে একজন সরকারি কর্মকর্তা জানিয়েছেন৷

নেটফ্লিক্স ভারতে হিন্দুবিরোধী কনটেন্ট প্রচার করছে বলে দেশটির দক্ষিণপন্থী রাজনৈতিক দলগুলো অভিযোগ করে আসেছ৷ নেটফ্লিক্সের 'সেক্রেড গেমস' বা 'লায়লা'র মতো সিরিজে হিন্দুদের অবমাননা করা হয়েছে বলে রয়েছে৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ভারতে নেটফ্লিক্সকে নিষিদ্ধের দাবি জোরালো হচ্ছে৷

দুই বছর আগে ভারতে সার্ভিস চালু করার পর থেকে জনপ্রিয়তার শীর্ষে উঠে যায় নেটফ্লিক্স৷ মাসে ১৯৯ রুপী বা ২.৮ ডলার খরচ করে ভারতে ভিডিও স্ট্রিমিংয়ের এই সাইটের গ্রাহক হওয়া যায়৷

ওই সরকারি কর্মকর্তা বলেন, ‘‘স্বনিয়ন্ত্রণ সবার জন্য এক নয়, উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে...দিকগুলো বেশ স্পষ্ট, আমাদের দেখতে হবে কীভাবে সমস্যার সমাধান করা যায়৷''

নেটফ্লিক্সে কোনো শো বা সিরিজ মুক্তিতে সেন্সর বোর্ডের অনুমোদন লাগে না৷ ভারতে এভাবে নেটফ্লিক্স কার্যক্রম চালাতে দেয়া হবে কিনা, এনিয়েও কথা উঠেছে৷ ভারতে নেটফ্লিক্সে অশ্লীল কনটেন্ট প্রচার এবং ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত এবং ধর্ম অবমাননা নিয়ে আলোচনা চলছে৷

ভারতে নেটফিক্সের সিরিজে আপত্তিকর দৃশ্য সংযোজনের অভিযোগ আদালত পর্যন্ত গড়ায়৷ গতমাসে একজন নেটফ্লিক্স শোতে মানহানির অভিযোগ তুলে পুলিশে অভিযোগ দাখিল করেন৷ তবে পুলিশ এ বিষয়ে এখনো কোনো মন্তব্য করেনি৷

তবে অনেকেই এই প্ল্যার্টফর্ম নিয়ন্ত্রণ করার উপর জোর দিয়েছেন৷ সরকারও এসব প্ল্যার্টফর্ম নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি কিছু বিকল্প নিয়েও ভাবছে বলে ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন৷

নেটফ্লিক্স এবং অ্যমাজনে প্রচারিত সিনেমাগুলোতে ধূমপানের দৃশ্যদেখানো হয়৷ যদিও ভারতের আইনে নাটক বা সিনেমায় এসব দৃশ্য পরিহার করতে হয়৷

নয়া দিল্লিতে প্রযুক্তি নীতি নিয়ে কাজ করেন প্রসান্ত রায়৷ তিনি বলেন, ‘‘নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে সব (গ্লোবাল) বিষয়গুলো ভারতীয়দের জন্য উপযোগী করা দরকার৷''

ভারতে দর্শকদের মন জয় করতে নেটফ্লিক্স ও অ্যামাজন আরো বেশি কনটেন্ট তৈরি করছে৷

আদিত্য কালরা ও শিল্পা জামখণ্ডিকার/এসআই/কেএম (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন