ভারতে ‘তিন তালাক′ নিষিদ্ধ | বিশ্ব | DW | 19.09.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

ভারতে ‘তিন তালাক' নিষিদ্ধ

তিনবার ‘তালাক' শব্দটি উচ্চারনের মাধ্যমে বিবাহবিচ্ছেদ নিষিদ্ধ করতে বুধবার এক অধ্যাদেশ জারি করেছে ভারত সরকার৷ এর মাধ্যমে দেশটি কার্যত মুসলমানদের তাৎক্ষণিক বিবাহবিচ্ছেদের চর্চায় ইতি টানতে আদালতের একটি রায় বাস্তবায়ন করলো৷

ভারতের সর্বোচ্চ আদালত এক বছর আগেই মুসলমানদের বিবাহ বিচ্ছেদে ‘তিন তালাক' প্রথা বাতিলের রায় দিয়েছিল৷ শুধু তাই নয়, এই প্রথা কেউ পালনের চেষ্টা করলে তাঁকে শাস্তি প্রদানের কথাও বলেছেন আদালত৷ কিন্তু দেশটির সংসদে আদালতের এই রায়কে আইনি ভিত্তি দেয়ার প্রস্তাব অনুমোদিত হয়নি৷ ফলে মোদী সরকার এক অধ্যাদেশের মাধ্যমে আদালতের রায় বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছে৷

প্রসঙ্গত, ভারতে বসবাসরত সতের কোটি মুসলমানের অধিকাংশই সুন্নি এবং তারা পারিবারিক বিষয়াদি ও বিরোধ নিষ্পোত্তিতে সাধারণত দেশটিতে প্রচলিত ‘মুসলিম পার্সোনাল ল' ব্যবহার করে থাকেন৷ এই আইনে একজন পুরুষ চাইলে তিন বার ‘তালাক' শব্দটি উচ্চারনের মাধ্যমে তাঁর স্ত্রীর সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদকার্যকর করতে পারেন৷ আর এজন্য কোনো সময়সীমা নেই, এমনকি মোবাইল ম্যাসেজ বা ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমেও এভাবে তালাক দেয়া সম্ভব৷

ভারতের আদালত মনে করে, বিবাহবিচ্ছেদের এই পন্থা মুসলমান নারীর সাংবিধানিক অধিকারের পরিপন্থি৷ তাই, এই পন্থা বিলুপ্তির পক্ষে রায় দেন আদালত৷ এদিকে, অধ্যাদেশ আকারে ভারত সরকার আগামী ছয় মাসের জন্য আদালতের এই রায় বাস্তবায়নে সক্ষম হয়েছে৷ তবে অধ্যাদেশটিকে চূড়ান্ত আইনি রূপ দিতে এই সময়ের মধ্যে আবারো সেটিকে সংসদে উত্থাপন করতে হবে৷

ভারতের আইনমন্ত্রী রবি শঙ্কর প্রসাদ এই বিষয়ে জানান, প্রতিবেশী পাকিস্তান এবং বাংলাদেশসহ বিশ্বের প্রায় ২২টি দেশে ‘তিন তালাক' নিষিদ্ধ করা হয়েছে৷ তিনি ভারতেও এটি নিষিদ্ধ করতে বিরোধী দলগুলোর প্রতি সহায়তার আহ্বান জানিয়েছেন৷

ভারতের ‘মুসলিম ল বোর্ড' আদালতে জানিয়েছিল যে, তারা তিন তালাককে একটি ভুল পন্থা মনে করলেও সেটি প্রতিরোধে আদালতের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন আছে বলে মনে করে না৷ বরং বিষয়টিকে সংশ্লিষ্ট সম্প্রদায়ের হাতে ছেড়ে দেয়ার পক্ষে তারা৷ অবশ্য দেশটির প্রগতিশীল অনেক মুসলমান অ্যাক্টিভিস্ট এক্ষেত্রে আদালতের সিদ্ধান্তকেই সঠিক মনে করছেন৷ উল্লেখ্য, ভারতের সংসদের নিম্নকক্ষে শাসকদল ভারতীয় জনতা পার্টির সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে৷ ফলে নিম্নকক্ষে তিন তালাক নিষিদ্ধের বিষয়টি সহজে অনুমোদন পেলেও দেশটির প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের বাধার মুখে উচ্চকক্ষে তা আটকে যাচ্ছে৷ কংগ্রেস তিন তালাকের চর্চা করার চেষ্টা কেউ করলে তাঁকে তিন বছরের শাস্তি দেয়ার যে বিধান রাখা হয়েছে, তার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে৷ দলটি শাস্তির এই মাত্রা কমানোর এবং একটি সংসদীয় কমিটির মাধ্যমে মুসলমান সম্প্রদায়ের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে বিষয়টি সমাধানের পক্ষে৷

এআই/এসিবি (এপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন