ভারতের এক সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের পেঁয়াজের বাজারে পাগলা ঘোড়া | বিশ্ব | DW | 30.09.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

ভারতের এক সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের পেঁয়াজের বাজারে পাগলা ঘোড়া

ভারত রপ্তানি নিষিদ্ধ করার পর বাংলাদেশে পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা বেড়েছে৷ কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই কেজিতে দাম বেড়েছে ৪০ টাকা৷ পরিস্থিতি সামাল দিতে খোলা বাজারে ৪৫ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার৷

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

মজুত ঠেকাতে গঠন করা হয়েছে মনিটরিং টিম৷

বাংলাদেশে পেঁয়াজের ঘাটতি আছে৷ মোট চাহিদার দুই তৃতীয়াংশ পেঁয়াজ উৎপাদন হয় স্থানীয়ভাবে৷ বাকিটা আমদানি করতে হয়৷  প্রধানত ভারত থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ দিয়েই ওই ঘাটতি মেটানো হয়৷ তাই ভারতে পেঁয়াজের দাম বাড়লে বাংলাদেশেও বাড়ে৷ ভারত পেঁয়াজের দাম প্রতি টন ৩৫০ ডলার থেকে বাড়িয়ে ৮৫০ ডলার করায় গত দু'মাস ধরে পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা চলছিল৷ এবার পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করার  সিদ্ধন্ত নিয়েছে ভারত সরকার৷ ফলে  এক রাতেই বাংলাদেশে পেঁয়াজের কেজি ৮০ টাকা থেকে ১২০ টাকা হয়েছে৷ দু'মাস আগে স্বাভাবিক সময়ে পেঁয়াজের কেজি ছিল ৪০ টাকা৷ ব্যবসায়ীরা বলছেন, পরিস্থিতি যা তাতে পেঁয়াজের দাম কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় বলা মুশকিল৷ 

অডিও শুনুন 01:20

‘‘আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই’’

কলাবাগানের খুচরা বিক্রেতা আব্দুর রহিম বলেন, ‘‘ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে এই খবরের পর রবিবার রাত থেকে পেঁয়াজের দাম বাড়তে শুরু করে৷ কয়েক ঘণ্টায় দেশি পেঁয়াজ ৮০ টাকা থেকে কেজি ১২০টাকা হয় আর ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ টাকা থেকে হয়ে যায় ১১০টাকা৷ তবে আগস্ট মাসে দেশি পেঁয়াজ ছিল প্রতি কেজি ৪৫ টাকা, ভারতীয় পেঁয়াজ ছিল ৩৫ টাকা কেজি৷''

হিলির ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানিকারক মোবারক হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশ যত পেঁয়াজ আমাদনি করে তার ৭০ ভাগই আসে ভারত থেকে৷ আমরা অতি মাত্রায় ভারতনির্ভর৷ তাই ভারতে পেঁয়াজের সংকট হলে আমাদের এখানেও সংকট হয়৷ এই বছর তারা পেঁয়াজের দাম দুই দফা বাড়িয়েছে৷ আর শেষ পর্যন্ত রপ্তানিই বন্ধ করে দিলো৷ আবার কবে রপ্তানি শুরু করবে তার ঠিক নেই, কারণ, ভারতেই এখন পেঁয়াজের সংকট৷ তাদের উৎপাদন ব্যাহত হয়েছে৷ ভারতে যে পেঁয়াজের কেজি ছিল ৫টাকা, তা হয়ে গেছে ৩৫ টাকা৷''

পরিস্থিতি সামাল দিতে এরই মধ্যে কিছু ব্যবস্থা নিয়েছে বাংলাদেশের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়৷ ভারতীয় পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৪৫ টাকা দরে টিসিবি'র মাধ্যমে ঢাকায় ৩৫টি স্থানে, চট্টগ্রামে ১০টি স্থানে আর বাকি ছয়টি বিভাগীয় শহরের পাঁচটি করে স্থানে বিক্রি হবে মঙ্গলবার থেকে৷ 

আর পেঁয়াজ যাতে ব্যবসায়ীরা মজুদ করতে না পারে সেজন্য ১০টি টিম গঠন করে দেশের ১০টি এলাকায় পাঠানো হয়েছে৷ মিশর, তুরস্ক এবং মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমাদানির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে৷ মিশর থেকে দুটি পেঁয়াজবাহী জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দরে এসে পৌঁছেছে বলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে৷

বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দিন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আগামী দেড় মাসের মধ্যে বাজারে স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত নতুন পেঁয়াজ উঠবে৷ আমদানির পাইপ লাইনে যা আছে তা মিলিয়ে আমাদের দুই মাসের পেঁয়াজ মজুদ আছে৷ তাই আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই৷ যাতে কেউ মজুদ করতে না পারে সেই ব্যবস্থা নিচ্ছি আমরা৷ এজন্য ১০টি টিম  ঢাকা ও ঢাকার বাইরে কাজ শুরু করেছে৷ পেঁয়াজ পচনশীল ভোগ্যপণ্য, এটা যারা মজুদ করবেন, তারা ক্ষতির মুখে পড়বেন৷''

তিনি জানান, ‘‘খোলাবাজারে আগেও পেঁয়াজ বিক্রি হতো৷ এখন আমরা দ্বিগুণ করে দিয়েছি৷ ঢাকার বাইরে প্রয়োজন হলে আরো বাড়াবো৷ তাছাড়া তুরস্ক, মিশর ও মিয়ানমার থেকে আমরা পেঁয়াজ আনছি৷ মজুদ ঠেকানোর ওপর আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছি৷ এটা ঠেকাতে পারলেই কোনো সংকট হবে না৷'' 

অডিও শুনুন 01:49

‘‘রবিবার রাত থেকে পেঁয়াজের দাম বাড়তে শুরু করে’’

বাণিজ্য মন্ত্রনালয় জানায়, বাংলাদেশে বছরে পেঁয়াজের চাহিদা ২৪ লাখ টন৷ এবছর উৎপাদন হয়েছে ২৩ লাখ ৭৪ হাজার টন৷ তাহলে পেঁয়াজের এত ঘাটতি কেন? মন্ত্রণালয় জানাচ্ছে, প্রায় ৮ লাখ টন পেঁয়াজ পচে যায় বা নানা কারণে নষ্ট হয়ে যায়, সেজন্যই প্রতিবছর ৮-১০ লাখ টন পেঁয়াজ আমাদানি করতে হয়৷

বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, পেঁয়াজ নিয়ে যে সংকট হবে তার আভাস কয়েক মাস আগে থেকেই পাওয়া যাচ্ছিলো৷ তখন থেকেই বিকল্প বাজার থেকে পেঁয়াজ আমদানি শুরু করলে এই সংকট হতো না৷ আর একটি দেশের ওপর নির্ভর করাও সঠিক নীতি নয় বলে মনে করেন তারা৷

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের শেষ দিকেও বাংলাদেশে পেঁয়াজের সংকট দেখা দিয়েছিল৷ ভারত তখন পেঁয়াজের রপ্তানিমূল্য ৪৩০ ডলার থেকে বাড়িয়ে ৮৫০ ডলার করে৷ তার প্রভাবে বাংলাদেশে ভারতীয় পেঁয়াজের কেজি ৭৫ টাকা এবং দেশি পেঁয়াজের কেজি ১০০ টাকা হয়েছিল৷ এবার সংকট অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন