ভারতীয় অভিনেত্রীর ‘নগ্ন′ প্রতিবাদ | বিশ্ব | DW | 01.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

ভারতীয় অভিনেত্রীর ‘নগ্ন' প্রতিবাদ

ভারতের হায়দ্রাবাদ শহরে তেলেগু অভিনেত্রী শ্রী রেড্ডি প্রকাশ্যে তাঁর বেশবাস অপসারণ করে তেলুগু ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে নারীদের শোষণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছেন৷ অভিনব প্রতিবাদের সেই ভিডিও দেখা হয়েছে কোটি বার!

Gewaltbereite Jugend Berlin Deutschland Symbolbild (Imago/photothek/L. Johannssen)

প্রতীকী ছবি

একজন ভারতীয় নারীর পক্ষে জনসমক্ষে – অর্থাৎ পুরুষদের সামনে তাঁর জামাকাপড় খুলে ফেলাটা যে কতটা সাহস বা দুঃসাহসের কাজ, তা পশ্চিমের ‘ফেমেন' থেকে শুরু করে ‘#মিটু' আন্দোলনের নারীবাদীদের পক্ষে উপলব্ধি করা সম্ভব নয়৷

অপরদিকে ভারতের মতো দেশে শ্রী রেড্ডির ‘নগ্ন প্রতিবাদ' যে প্রতিবাদের পাশাপাশি – এমনকি তার পরিবর্তে নগ্নতাকেই বেশি গুরুত্ব দেবে, এতেও আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই৷

অথচ পূর্ব কিংবা পশ্চিমের ‘সমৃদ্ধ' ও ‘সংস্কারমুক্ত' দেশ কিংবা ভারতের মতো দারিদ্র্যের সাগর থেকে মাথা তুলে দাঁড়াতে প্রয়াসী সনাতনপন্থি ও রক্ষণশীল দেশ – সর্বত্রই নারীদের পুরুষদের লালসা ও শোষণের শিকার হতে হয়৷ হলিউড থেকে শুরু করে বলিউড বা তেলেগু ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি, সর্বত্রই সুন্দর মুখ এবং সেই সঙ্গে সুন্দর শরীরের চাহিদা, যেমন সেলুলয়েডের পর্দায়, তেমনই তথাকথিত ‘কাস্টিং কাউচ'-এর উপর৷ এক কথায়, পুরুষ শাসিত ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে উঠতি অভিনেত্রীদের কাছ থেকে অনেক ক্ষেত্রে যে বিশেষ মূল্যটি দাবি করা হয়, তা দৃশ্যত ক্যালিফোর্নিয়া থেকে তেলেঙ্গানা, সর্বত্রই এক৷

তফাৎটা হলো এই যে, সেই শোষণের বিরুদ্ধে তেলেঙ্গানায়‘নগ্ন প্রতিবাদ' জানালে একটির বদলে দু'টি ইস্যু এসে পড়ে, একটির বদলে দু'টি ভীমরুলের চাকে ঢিল ছোঁড়া হয়৷ প্রথমত, পুরুষ কর্তৃক নারীর শোষণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ; দ্বিতীয়ত, সেই প্রতিবাদের অস্ত্র হিসেবে নারীর প্রকাশ্য  নগ্নতা৷ শ্রী রেড্ডি যখন প্রথম ইস্যুটির কথা বলতে চাইছেন, তখন অনেকেই দেখছেন শুধু শ্রী রেড্ডির নগ্নতা, খোলা রাস্তায় ক্যামেরার সামনে তাঁর সালোয়ার-কামিজ ও বক্ষাবরণী খুলে ফেলে হাত দিয়ে বুক ঢেকে দাঁড়ানো এবং পরে পর্যায়ক্রমে আবার বেশবাস পরা৷

পশ্চিমের ‘ফেমেন' গোষ্ঠীর প্রতিবাদে নগ্ন বক্ষদেশ প্রদর্শিত হয় বটে, কিন্তু তা থেকে শ্রী রেড্ডির এই ‘স্ট্রিপ প্রটেস্ট' বা জামাকাপড় খোলার প্রতিবাদের অনেক ফারাক৷ শ্রী রেড্ডি প্রতিবাদের এই পন্থা বেছে নিয়েছেন, কেননা, তেলুগু ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে দৃশ্যত উঠতি অভিনেত্রীদের কাছ থেকে এ ধরনের নগ্ন ভিডিও ও নগ্ন ফটো দাবি করা হয়ে থাকে৷ বস্তুত তিনি তেলেগু ফিল্ম চেম্বার অফ কমার্সের সামনের কার পার্কে তাঁর ‘নগ্ন প্রতিবাদের' উপস্থাপনা করেন৷ তাঁর এই প্রতিবাদের আরেকটি লক্ষ্য ছিল নাকি মুভি আর্টিস্টস অ্যাসোসিয়েশন বা এমএএ, যারা তাঁকে কয়েকটি ফিল্মে অভিনয় করা সত্ত্বেও তাঁদের সদস্য করেনি৷ তৃতীয়ত, শ্রী রেড্ডির দাবি হলো যে, তেলেগু চলচ্চিত্রে ৭০ ভাগ ভূমিকা তেলুগু অভিনেত্রীদের জন্য সংরক্ষণ করা উচিত৷

তাঁর নগ্ন প্রতিবাদ থেকে শ্রী রেড্ডি এযাবৎ যা পেয়েছেন, তা হলো অসংখ্য ট্রলস আর ইন্টারনেটে নারীবিদ্বেষী গালিগালাজ৷ এছাড়া পবন কল্যাণের মতো নামকরা অভিনেতা ও তাঁর ফ্যানদের সঙ্গে তাঁর কাজিয়া বেঁধেছে৷ ইন্ডাস্ট্রির অন্যান্য অভিনেত্রীর আচরণ সম্পর্কে ইঙ্গিত করেও তিনি তাঁর শত্রুর সংখ্যা বাড়িয়েছেন৷ অর্থাৎ, তাঁর প্রতিবাদ শেষ হলেও, তার ফলশ্রুতি শেষ হতে এখনও অনেক বাকি৷

তবে শ্রী রেড্ডির কাপড় খুলে প্রতিবাদ জানানোর ভিডিও সব মাধ্যম মিলিয়ে কোটি বারেরও বেশি দেখা হয়েছে৷ ইউটিউবে ওপরের ভিডিওটিই দেখা হয়েছে ২৮ লক্ষ ৭১ হাজার বার৷

এসি/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন