ভাকেন ‘তীর্থে′ বাংলাদেশের অদম্য ছেলেরা | বিশ্ব | DW | 06.08.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

ভাকেন ‘তীর্থে' বাংলাদেশের অদম্য ছেলেরা

হেভি মেটালের তীর্থ হিসেবে পরিচিত ভাকেন ওপেনে এবার বাংলাদেশের ব্যান্ড ‘ট্রেনরেক' অংশ নিয়েছে৷ কোনো পুরস্কার জিততে না পারলেও প্রথমবারের মতো ইউরোপে পারফর্ম করাকেই বড় প্রাপ্তি হিসেবে দেখছে তারা৷

‘ট্রেনরেক'-এর পাঁচজন শিল্পী ভাকেন ওপেন এয়ারে অংশ নেন৷ ভারতের ব্যাঙ্গালুরুতে ‘ভারতীয় উপমহাদেশ' অঞ্চল তথা ভারত, নেপাল এবং শ্রীলঙ্কার ব্যান্ডের সঙ্গে জিতে ‘ধাতব যুদ্ধের' এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার সুযোগ পায় ব্যান্ডটি৷

এই উৎসবের প্রতিষ্ঠাতা টমাস জেনসেন ডয়েচে ভেলের রাইনার শিল্ডকে এক সাক্ষাৎকারে প্রতিযোগিতাটিকে ‘অলিম্পিক গেমস অব মেটাল' বলে অভিহিত করেছেন৷ তিনি বলেন, এখানে ‘ইউনাইটেড নেশনস অব মেটাল' মিলিত হয়েছিল৷ ২০০৪ সালে এই প্রতিযোগিতাটি শুরু করেছিলেন জেনসেন৷

আন্তর্জাতিক জুরি বোর্ডকে নিজেদের সক্ষমতা দেখাতে ৩০ মিনিট সময় পেয়েছিলেন ‘ট্রেনরেক'৷ শেষ পর্যন্ত তারা কোনোটিতেই জয়ী না হলেও বেশ আনন্দিত৷ ডয়েচে ভেলেকে এক সাক্ষাৎকারে এই ব্যান্ডের প্রধান আবির আহমেদ শুভ বলেন, ‘‘মেটালের তীর্থে পারফর্ম করার অনুমতি পাওয়া সবগুলো ব্যান্ডই প্রশংসার দাবিদার৷''

১৯৯০ সালে মাত্র ছয়টি ব্যান্ডের পারফর্ম্যান্স দেখতে এক হাজার ৮০০ জনেরও কম দর্শক ভাকেন ওপেন এয়ারে যোগ দিয়েছিলেন৷ এবার ৮০টি দেশের ৭৫ হাজার মেটাল ফ্যান নয়টি স্টেজে এই উৎসবে অংশ নেওয়া ২০০টি ব্যান্ডের পারফর্ম্যান্স দেখার সুযোগ পান৷

ডয়েচে ভেলে ২০১০ সাল থেকে এই ওপেন এয়ার আয়োজনে সহযোগিতা করে আসছে৷

তিন দিনব্যাপী ভাকেনের উৎসবের সময় দর্শনার্থীদের কারণে গ্রামটি জার্মানির শ্লেসভিগ-হলস্টাইেনর তৃতীয় বৃহত্তম গ্রামে পরিণত হয়৷ আয়োজকরা দর্শনার্থীদের তাঁবু, টয়লেট, ঝর্না, সাইনপোস্টসহ প্রয়োজনীয় অবকাঠামো সরবরাহ করেন৷

এবারের উৎসবটি ৩৩০টি ফুটবল মাঠের চেয়ে বড় এবং ৪৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে যায়, মেটাল প্রেমীরা যাকে ‘পবিত্র ভূমি' বলে ডাকে৷ উৎসবের সময় ঘণ্টায় ১০ হাজার লিটার বিয়ার সরবরাহ করা হয়৷

১৯৯০ সালে ভাকেনের দুইজন মেটাল মিউজিশিয়ান পরিকল্পনা করেছিলেন তাদের জনপ্রিয় সঙ্গীতগুলো নিয়ে গ্রামে উৎসবের আয়োজন করবেন৷ তখন থেকে এই উৎসব চলছে৷

রাইনার শিল্ড/এসআই

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন