1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
অভিবাসীদের সঙ্গে কথা বলছেন ডয়চে ভেলের সাংবাদিক আরাফাতুল ইসলাম
অভিবাসীদের সঙ্গে কথা বলছেন ডয়চে ভেলের সাংবাদিক আরাফাতুল ইসলামছবি: Anupam Deb Kanunjna/DW
অভিবাসনগ্রিস

ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কায় গ্রিসের বাংলাদেশিরা

২১ আগস্ট ২০২২

গ্রিসের রাজধানী এথেন্সের ওমোনিয়ার রাস্তায় বাংলাদেশিদের ভিড়৷ কেউ বানাচ্ছেন ঝালমুড়ি, কেউ খুলেছেন দোকান৷ গ্রিসে সেই অর্থে কোনো ভবিষ্যৎ নেই, দাবি করছেন তারা৷ নিজেদের শঙ্কার কথা তারা তুলে ধরেছেন ডয়চে ভেলের কাছে৷

https://p.dw.com/p/4Fpua

নামেই গ্রিসের রাজধানী এথেন্স৷ কিন্তু ওমোনিয়ার এই এলাকায় প্রবেশ করলে মনে হবে ঢাকা কিংবা চট্টগ্রামে সন্ধ্যাবেলার আড্ডা চলছে৷ রয়েছে সিলেটি মার্কেটও৷ ওমোনিয়ার রাস্তায় সর্ষের তেল, লঙ্কা, ছোলা, চানাচুর আর পেঁয়াজ দিয়ে মুড়ি মাখার গন্ধও পাওয়া যাচ্ছে৷ এক ইউরোতে মানে ১০০ টাকায় মিলছে এক ঠোঙা ঝালমুড়ি৷ অনেক বাংলাদেশি জীবিকার সন্ধানে গ্রিসে পাড়ি জমান৷ তেমনই একজন মোহাম্মদ এনায়েত৷ ১২ বছর আগে এখানে এসেছিলেন তিনি৷ ২০১০ সাল থেকে এথেন্সের রাস্তায় ঝালমুড়ি বিক্রি করছেন৷ বাড়ি বাংলাদেশের বরিশালে৷ দুবাই থেকে তুরস্ক হয়ে গ্রিসে পৌঁছেছিলেন তিনি জীবিকার সন্ধানে৷ ভেবেছিলেন যে ব্যবসা করবেন৷ সেইভাবেই শুরু করেন৷ তারপর থেকে এই কাজটাই করছেন, অন্য কোনো কাজের কথা ভাবেননি৷ শুধু বাংলাদেশি নয়, পাকিস্তান, ভারত, এশিয়ার দেশ ইউরোপীয়রাও এই ঝালমুড়ি চেখে দেখেন৷ গ্রিসের অন্য শহর থেকে বাংলাদেশি যুবক হাবিব এসেছিলেন ওমোনিয়ায়৷ তিনিও দেশের খাবারের স্বাদ পেতে ঝালমুড়ি খেতে এসেছিলেন৷

এথেন্সের ‘বাংলা গলি’

এই ঝালমুড়ির দোকানের রাস্তার পাশেই রয়েছে বাংলা গলি নামে একটি দোকান৷ গোটা এই এলাকাটি বাংলাদেশি অধ্যুষিত৷ আগে মূলত নাইজেরীয়রা এখানে থাকতেন৷ বাংলাদেশিদের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় জায়গাটিও তাই এখন পরিচিত হয়ে উঠেছে বাংলা গলি নামে৷ এখানে ২২ বছর আগে এসেছিলেন জামালউদ্দিন সরদার৷ তিনি জানান, বাঙালিরা একটি মসজিদও তৈরি করেছে এখানে৷ তার দাবি, বাঙালিদের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় এখানে নেশাদ্রব্য বিক্রি বন্ধ হয়েছে৷ আগে হেরোইনসহ একাধিক মাদক বিক্রি হতো৷

গ্রিসে কেমন আছেন বাংলাদেশিরা, ডয়চে ভেলের সংবাদকর্মীর প্রশ্নের উত্তরে জামালউদ্দিন বলেন, ‘‘কারিগরদের জন্য গ্রিস খুব ভালো৷'' তবে তার আক্ষেপ, ‘‘বাংলাদেশিরা বেশিরভাগ ইটালি, ফ্রান্সে চলে গিয়েছে৷ ২০ থেকে ৩০ বছর গ্রিসে থাকার পরেও বৈধ কাগজ না হওয়ায় তারা এ দেশে থাকতে চাইছেন না৷ পাসপোর্ট মেলে না, কাগজ রেখে দেয়া হয়, নানা যুক্তি দেখানো হয়৷ চলতি বছরে কয়েক হাজার বাংলাদেশি গ্রিস ছেড়েছেন৷ ইটালি, ফ্রান্সের পাশাপাশি জার্মানি আর সুইডেনেও গিয়েছেন কেউ কেউ৷ ৫০ বছর থাকলেও হয়তো পাসপোর্ট পায় না৷ কারিগরদের বেতন ভাল৷ কিন্তু নথি সংক্রান্ত সংকটের কারণে কেউ থাকতে চান না৷ ৮০ শতাংশ বাঙালি গ্রিস ছেড়ে চলে যাচ্ছে৷ পর্তুগালে গেলে পাঁচ বছরে পাসপোর্ট হয়ে যায়৷’’

‘জেলে যারা রয়েছেন আগে তাদের কাগজ হোক'

গত ফেব্রুয়ারিতে গ্রিসের অভিবাসনমন্ত্রী নোতিস মিতারাচির বাংলাদেশ সফরকালে দুই দেশের মন্ত্রণালয় একটি সমঝোতা চুক্তি করে৷ সেই চুক্তির ভিত্তিতে প্রতিবছর চার হাজার করে পাঁচ বছরে মোট ২০ হাজার বাংলাদেশিকে মৌসুমি কাজের ভিসা দেবে গ্রিস৷ পাশাপাশি অনুমতি ছাড়া দেশটিতে অবস্থানরত ১৫ হাজার বাংলাদেশিকেও দেয়া হবে সাময়িক বসবাস ও মৌসুমি কাজের অনুমতি৷

কিন্তু গ্রিসে বসবাসরত বাংলাদেশিরাএতে খুব একটা আশ্বস্ত হতে পারছেন না৷ জামালউদ্দিন বলেন, ‘‘চুক্তিটা ভাল৷ কিন্তু নিজেদের কোনো ভবিষ্যৎ নেই৷ কাগজ সংক্রান্ত নিয়ম বারবার বদল হচ্ছে৷’’ জামালের কথায়, ‘‘আগে আনলিমিটেড ছিল, তারপর তা হয়েছে ১০ বছর, তারপর সেটা দাঁড়িয়েছে তিন বছরে৷ অভিবাসীরা তাই গ্রিসে ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত৷’’ ২২ বছর থেকেও নাগরিকত্বের কার্ড পাননি তিনি৷ তার মনে হয়, বাংলাদেশের বেকার মানুষদের জন্য গ্রিস এবং বাংলাদেশের চুক্তিটা জরুরি হলেও যে বাংলাদেশিরা গ্রিসে অনিয়মিতভাবে রয়েছেন, আগে তাদের কথা ভাবা উচিত সরকারের৷ তিনি বলেন, ‘‘তিন-চার হাজার বাংলাদেশি ১৮ মাস ধরে জেলে রয়েছেন৷ তাদের আগে নিয়মিত করা হোক৷ তারপর যদি এ দেশ মনে করে মৌসুমি শ্রমিক আনবে, সমস্যা নেই৷ দূতাবাসের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেয়া উচিত যাতে জেলে যারা রয়েছেন, তাদের আগে কাগজ দেয়া হয়৷’’

চুক্তি নিয়ে সন্দেহ বাংলাদেশিদের

১২ বছর ধরে গ্রিসে রয়েছেন ইব্রাহিম৷ কাজ করছেন, কিন্তু এখনও বসবাসের বৈধতা পাননি তিনি৷ এরমধ্যে গ্রিসের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ধরপাকড় বেড়েছে৷ তিনি বলেন, ‘‘পুলিশের হয়রানি অনেক বেশি৷ সবাই এ দেশ থেকে চলে যায়৷ আমিও চলে যাব৷ স্পেন, পর্তুগালসহ ২৯টি দেশ আছে৷ সেখানে যেতে চেষ্টা করব৷’’গ্রিসের সঙ্গে বাংলাদেশের কর্মী নেয়ার চুক্তি বিশ্বাসযোগ্য মনে হচ্ছে না ইব্রাহিমের কাছে৷ তার দাবি, ‘‘লোক আনবে এটা বিশ্বাস হচ্ছে না৷ বাংলাদেশ সরকার গ্রিসের অবস্থা জানে না৷ বিদেশি দেখতেই পারে না গ্রিস৷ গ্রিসে অনেক অনিয়মিত বাংলাদেশি আছেন৷ কেউ কাগজ পাচ্ছেন না৷ আগে এখানকার লোকদের কাগজ দিলে তারপর বিশ্বাস হবে৷ এদেশে নানা দেশের অনিয়মিত অভিবাসীরা রয়েছেন৷ তাদের ফেলে বাংলাদেশ কেন এটা বিশ্বাস করা মুশকিল৷''

এথেন্সে ২০ বছর কাজ করেছেন ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তি মানিক৷ ২০০৫ সালে বৈধ কাগজ পেয়েছেন তিনি৷ কিন্তু তবুও গ্রিসে থাকতে চান না৷ ফিরে যাবেন বাংলাদেশে৷ আজিমানুল্লা নামে আরেক ব্যক্তি বলেন তিনিও ২০ বছর গ্রিসে রয়েছেন কিন্তু কাগজ নিয়ে এখনও তার সমস্যা রয়েছে৷ তাই বন্দি হওয়ার শঙ্কাও রয়েছে মনে৷ গ্রিসের সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি নিয়ে সন্দেহ তার মনেও৷ তার কথায়, ‘‘অনিয়মিতভাবে আসা বাংলাদেশিরা অনেকেই কাগজ পাননি, তারাও দীর্ঘদিন এই দেশে রয়েছেন৷ তাদের কী হবে?’’

গ্রিস অনুমোদন দিলেও বাংলাদেশে সমঝোতা চুক্তিটির অনুমোদন প্রক্রিয়া এখনও শেষ হয়নি৷ বাংলাদেশে এর চূড়ান্ত অনুমোদন দেবে মন্ত্রিসভা৷ গ্রিসে বিপুল পরিমাণে বাংলাদেশি থাকলেও এই চুক্তি নিয়ে তাদের মধ্যে কোথাও যেন সংশয় রয়েছে৷ দীর্ঘদিন ধরে গ্রিসে বাস করেও স্থায়ী বসবাসের আইনি কাগজ না মেলায় ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তায় বাংলাদেশিরা৷

অভিবাসীদের নিয়ে তথ্যচিত্র- ‘রুটের নাম বলকান’

স্কিপ নেক্সট সেকশন সম্পর্কিত বিষয়
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা ছাড়াও সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজিসহ নানা অপরাধের ‘সাজানো মামলা’ দেয়া হচ্ছে

ঢাকার বাইরের সাংবাদিকদের বড় চাপ ‘সাজানো মামলা’

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান