ব্লাসফেমি: পাকিস্তানে স্কুল-মন্দির তছনছ | বিশ্ব | DW | 16.09.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

পাকিস্তান

ব্লাসফেমি: পাকিস্তানে স্কুল-মন্দির তছনছ

পাকিস্তানে একজন হিন্দু অধ্যক্ষের ব্লাসফেমির অভিযোগে একটি বিদ্যালয় ও মন্দিরে সহিংসতা চালানো হয়েছে৷ এ ঘটনায় মুসলিম প্রধান এই দেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে৷

Pakistan Karatschi Hindu Tempel (Getty Images/AFP/R. Tabassum)

করাচির একটি মন্দির (ফাইল ফটো)

দেশটির দক্ষিণ প্রদেশের সিন্ধু প্রদেশে মহানবীকে (সা.) নিয়ে একজন হিন্দু অধ্যক্ষ অবমাননাকর মন্তব্য করেছিলেন বলে একজন শিক্ষার্থী অভিযোগ তুললে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে৷

জেলা পুলিশ প্রধান ফুররুখ আলী রয়টার্সকে বলেন, বিক্ষুব্ধ জনতা একটি স্কুলে ভাংচুর করে এবং একটি মন্দিরে হামলা চালায়৷ এরপর অধ্যক্ষকে নিরাপত্তা হেফাজতে নেওয়া হয়েছে৷ পুলিশ উভয় ঘটনারই তদন্ত শুরু করেছে৷ মনে হচ্ছে অধ্যক্ষ ইচ্ছা করে কিছু করেননি৷

ইসলাম ধর্মের মহানবীকে অপমান করলে পাকিস্তানে বাধ্যতামূলকভাবে মুত্যুর সাজা হয়৷ প্রায় ৯৫ শতাংশ মুসলমানের এই দেশে কঠোর ব্লাসফেমি আইন কার্যকর রয়েছে৷ পাকিস্তানে ব্লাসফেমির জন্য এখনও কোনো ফাঁসি কার্যকর করা না হলেও এই আইনের বলে সংঘবদ্ধ জনতাকে কখনো কখনো হত্যা করা হয়েছে৷

মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে, ধর্মবিরোধী এই ব্লাসফেমি আইনটি সাধারণত ধর্মীয় কট্টরপন্থিদের পাশাপাশি সাধারণ বহু পাকিস্তানদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হয়৷

পাকিস্তানের স্বাধীন মানবাধিকার কমিশন এই সহিংসতার নিন্দা জানিয়ে কর্তৃপক্ষকে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে৷ এই টুইটে কমিশন এই ঘটনাকে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে বর্বর হিংস্রতা এবং একে অগ্রহণযোগ্য হিসেবে আখ্যা দিয়েছে৷

পাকিস্তানের ২০৮ মিলিয়ন মানুষের মধ্যে বেশিরভাগ সুন্নি মসুলমান, হিন্দু সম্প্রদায়ের ১ দশমিক ৬ শতাংশ মানুষ সেখানে বসবাস করে৷

গত জানুয়ারিতে সুপ্রিম কোর্ট একটি মামলায় ব্লাসফেমির দায়ে মৃত্যুদণ্ডে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পরে কয়েক বছর জেলে কাটানো এক খ্রিস্টান নারীর খালাসের আদেশ বহাল রেখেছে৷

কাশ্মীরে জঙ্গি হামলার পরে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে হিন্দুদের নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করার গত মার্চে পাকিস্তানের এক প্রাদেশিক মন্ত্রীকে বরখাস্ত করা হয়৷

এসআই/কেএম (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন