ব্লগার লিমন ফকিরের মুক্তি চায় আরএসএফ | বিশ্ব | DW | 08.11.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

ব্লগার লিমন ফকিরের মুক্তি চায় আরএসএফ

আন্তর্জাতিক সংগঠন রিপোর্টাস উইদাউট বর্ডার্স (আরএসএফ) বাংলাদেশে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে আটক ব্লগার লিমন ফকিরের মুক্তি দাবি করেছে৷ ঢাকার হাইকোর্ট বুধবার তাঁর জামিনের আবেদন নাকচ করেছে বলেও জানিয়েছে সংগঠনটি৷

বাংলাদেশের সমাজের একাংশে ইসলামী মৌলবাদের বেড়ে চলা প্রভাব নিয়ে নিজের ব্লগে নানা নিবন্ধ এবং ভিডিও প্রকাশ করায় লিমন ফকির ৫৬৭ দিন ধরে কারাগারে আছেন বলে মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে আরএসএফ৷ ব্লগার হিসেবে লেখালেখির কারণে ২০১৭ সালের ৯ জানুয়ারি তাঁর বিরুদ্ধে বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের শহর বরগুনার আদালতে ‘মহানবিকে (সা.) নিয়ে কটূক্তির’ অভিযোগ দায়ের করেন ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ (আইএবি)-এর এক সদস্য৷

পরবর্তীতে ২০১৭ সালের ১৮ এপ্রিল লিমন ফকিরকে গ্রেপ্তারের পর দুই সপ্তাহ পুলিশ তাঁর ওপর নির্যাতন চালায় বলে দাবি করেছে আরএসএফ৷ সংগঠনটি লিখেছে, ‘‘নির্যাতনের পর তথ্য প্রযুক্তি আইনের কুখ্যাত ৫৭ ধারায় তাঁকে অভিযুক্ত করা হয়৷’’ সাধারণত ব্লগার এবং সাংবাদিকদের কণ্ঠরোধ করতে আইনের এই ধারাটি ব্যবহার করা হয় বলেও মনে করছে আরএসএফ৷

২৪ বছর বয়সি এই ব্লগার নানা রোগে আক্রান্ত বলেও উল্লেখ করেছে প্যারিসভিত্তিক সংগঠনটি৷ যে আইনে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তাতে তাঁর ১৪ বছর কারাভোগের শাস্তি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে৷

আরএসএফ-এর এশিয়া-প্যাসিফিক ডেস্কের প্রধান ডানিয়েল বাস্টার্ড এই বিষয়ে বলেন, ‘‘আমরা লিমন ফকিরের দ্রুত মুক্তি দাবি করছি৷ শুধুমাত্র মৌলবাদ সম্পর্কে নিজের দেশের মানুষকে জানানোর কারণে তাঁকে গ্রেপ্তার, নির্যাতন এবং অন্তহীনভাবে আটকে রাখা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়৷’’

লিমন ফকিরের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা সংগঠন আইএবি'র বাংলাদেশে বিশ মিলিয়নের মতো অনুসারী রয়েছে বলে নিজেরাই দাবি করেছে৷ আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে দলটি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারে৷ বাংলাদেশের প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি গোষ্ঠীটিকে নিজেদের দলে ভেড়ানোর চেষ্টা করছে বলেও লিখেছে অধিকার বিষয়ক সংগঠনটি৷

উল্লেখ্য, আইএবি আরেক ব্লগার আসাদ নূরের বিরুদ্ধেও আদালতে একই ধরনের অভিযোগ দায়ের করেছিল৷ নূর তখন পালিয়ে ভারত গিয়ে কিছুদিন অবস্থান করেন৷ পরবর্তীতে সেখান থেকে নেপাল যাওয়ার পথে ঢাকা বিমানবন্দরের ট্রানজিটে অবস্থানকালে তাঁকে বাংলাদেশ পুলিশ গ্রেপ্তার করে বলে লিখেছে আরএসএফ৷ তবে গত আগস্টে জামিনে মুক্ত হন আসাদ নূর৷

এআই/এসিবি (আরএসএফ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন