ব্রেক্সিট চুক্তি অধরা থেকে যাবে? | বিশ্ব | DW | 13.11.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্রিটেন

ব্রেক্সিট চুক্তি অধরা থেকে যাবে?

ব্রিটেন ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে ব্রেক্সিট সংক্রান্ত চুক্তির সম্ভাবনা নিয়ে সংশয় বেড়ে চলেছে৷ বুধবারের মধ্যে বোঝাপড়া সম্ভব হলেও ব্রিটেনের মন্ত্রিসভা ও সংসদ তা অনুমোদন করবে কিনা, তা স্পষ্ট নয়৷

ব্রেক্সিট সংক্রান্ত গণভোটের এত মাস পরেও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে ব্রিটেনের বিচ্ছেদ ও দুই পক্ষের ভবিষ্যৎ সম্পর্ক নিয়ে ধোঁয়াশা কাটছে না৷ চূড়ান্ত পর্যায়ে এসেও বিভ্রান্তি কমার বদলে উলটে বেড়ে চলেছে৷ ব্রিটেনের মন্ত্রিসভা ও সংসদের মধ্যে এমন গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নে কিছুতেই ঐকমত্য সম্ভব হচ্ছে না৷ বুধবারের মধ্যে ব্রিটেন ও ইইউ-র মধ্যে সমঝোতা না হলে চুক্তি ছাড়াই ব্রেক্সিটের আশঙ্কা আরও বেড়ে যাবে৷

মূল সমস্যা ব্রিটেনের উত্তর আয়ারল্যান্ড প্রদেশকে নিয়ে৷ ব্রেক্সিটের পর সেই প্রদেশের সঙ্গে আইরিশ প্রজাতন্ত্রের স্থল সীমান্তে কোনোরকম বাধা সৃষ্টি হলে প্রোটেস্ট্যান্ট ও ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের মধ্যে শান্তি বিঘ্নিত হবার জোরালো আশঙ্কা রয়েছে৷ ইইউ কোনো অবস্থায় এমন পরিস্থিতি চায় না৷ অন্যদিকে উত্তর আয়ারল্যান্ডকে ইইউ-র সাধারণ বাজারের মধ্যে রেখে সেই প্রদেশের সঙ্গে ব্রিটেনের মূল ভূখণ্ডের মধ্যে সীমানা সৃষ্টি করার প্রস্তাবের ঘোর বিরোধী ব্রিটেন৷ আয়ারল্যান্ড ও ইইউ-র সীমান্তে ‘ব্যাকস্টপ' বা সাময়িক বোঝাপড়া নিয়েও ব্রিটেনে অনেক মহলে সংশয় রয়েছে৷ তাদের আশঙ্কা, সেই বোঝাপড়া শেষ পর্যন্ত স্থায়ী হয়ে যাবে এবং অন্য দেশের সঙ্গে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি কার্যত অসম্ভব হয়ে পড়বে৷

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে চূড়ান্ত পর্যায়ের আলোচনাকে অত্যন্ত কঠিন বলে বর্ণনা করেছেন৷ তিনি বলেন, সদিচ্ছা থাকলেও যে কোনো মূল্যে ইইউ-র সঙ্গে বিচ্ছেদ চুক্তি চান না তিনি৷ শেষ পর্যন্ত বোঝাপড়া সম্ভব হলেও তাঁর পক্ষে মন্ত্রিসভা ও সংসদের সম্মতি আদায় করা অত্যন্ত কঠিন হবে, এ বিষয়ে কোনো মহলে সন্দেহ নেই৷ সেই অবস্থায় নতুন করে আরও অনিশ্চয়তা অনিবার্য – এমনটাই আশঙ্কা করা হচ্ছে৷

বুধবারের সময়সীমা দুই পক্ষের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ৷ এর মধ্যেবোঝাপড়া সম্ভব হলে চলতি মাসেই ব্রেক্সিট সংক্রান্ত বিশেষ ইইউ শীর্ষ বৈঠকের আয়োজন করা হবে৷ সেখানে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে৷ সেটা সম্ভব না হলে আগামী ১৩ই ডিসেম্বর ইইউ-র আগামী শীর্ষ সম্মেলন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে৷ সে ক্ষেত্রে ২০১৯ সালের মার্চ মাসে ব্রেক্সিটের আগে চুক্তি অনুমোদনের প্রক্রিয়ার জন্য সময় অত্যন্ত কমে যাবে৷

প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে নিজের মন্ত্রিসভা, সরকারি জোট ও সংসদে কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন৷ বিশেষ করে নিজের দলের ইউরোপ-বিরোধী অংশ ও জোটসঙ্গী উত্তর আয়ারল্যান্ডের ডিইউপি দল পদে পদে বাধা সৃষ্টি করে চলেছে৷ এই অবস্থায় তাঁর পক্ষে দেশের হয়ে ইইউ-র সঙ্গে দরকষাকষি করা আরও কঠিন হয়ে পড়ছে৷ সম্ভাব্য বোঝাপড়া ও তার পক্ষে অনুমোদন নিশ্চিত করতে না পারলে টেরেসা মে বাধ্য হয়ে পদত্যাগ করতে পারেন৷ সে ক্ষেত্রে নতুন নেতৃত্ব, নতুন করে গণভোট অথবা আগাম নির্বাচনের কথা শোনা যাচ্ছে৷ কিন্তু ব্রিটেনের অভ্যন্তরীণ সমস্যা ব্রেক্সিটের দিনক্ষণের উপর কোনো প্রভাব ফেলতে পারবে না৷

এসবি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন