ব্রেক্সিটের পর ‘অসাধারণ′ বাণিজ্য চুক্তির টোপ দিলেন ট্রাম্প | বিশ্ব | DW | 05.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্রিটেন

ব্রেক্সিটের পর ‘অসাধারণ' বাণিজ্য চুক্তির টোপ দিলেন ট্রাম্প

ব্রেক্সিট নিয়ে ঘোর অনিশ্চয়তার মাঝে মার্কিন প্রেসিডেন্ট অ্যামেরিকার সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তির প্রস্তাব দিলেন৷ ব্রিটেনের নানা অভ্যন্তরীণ বিষয় সম্পর্কেও খোলামেলা বক্তব্য রাখলেন ট্রাম্প৷

ব্রেক্সিটকে কেন্দ্র করে ব্রিটেনের রাজনৈতিক কাঠামো বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে৷ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে টেরেসা মে পদত্যাগ করতে চলেছেন৷ শুক্রবার দলের নেতা হিসেবে সরে দাঁড়াবেন তিনি৷ সেই শূন্যস্থান পূরণ করতে টোরি দলে নেতৃত্বের লড়াই চলছে৷ বিরোধী লেবার দলের মধ্যেও বিষয়টি নিয়ে ঐকমত্য নেই৷ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে বোঝাপড়ার অভাবে আগামী ৩১শে অক্টোবর ব্রিটেন চুক্তি ছাড়াই ইইউ ত্যাগ করতে পারে, এমন আশঙ্কা বেড়ে চলেছে৷


এমনই প্রেক্ষাপটে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প রাষ্ট্রীয় সফলে এসে ব্রিটেনের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে অভূতপূর্ব হস্তক্ষেপের নজির গড়লেন৷ চুক্তিহীন ব্রেক্সিটের পক্ষে জোরালো সমর্থনের পাশাপাশি তিনি ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী পদের দাবিদারদের সম্পর্কে নিজস্ব ধারণা প্রকাশ্যে তুলে ধরলেন৷ সেইসঙ্গে স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন যে কট্টর ব্রেক্সিটপন্থি নেতা বরিস জনসনকেই তিনি আগামী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান৷ জনসন-এর নেতৃত্বে ব্রিটেন চুক্তি ছাড়াই ইইউ ত্যাগ করলে অ্যামেরিকার সঙ্গে ‘অসাধারণ' বা ‘বিস্ময়কর' বাণিজ্য চুক্তির টোপ দিলেন ট্রাম্প৷ এমন চুক্তির ফলে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের মাত্রা দুই থেকে তিন গুণ বেড়ে যাবে বলে তাঁর ধারণা৷ ব্রেক্সিট পার্টির নেতা নাইজেল ফারাজ-এর সঙ্গেও আলাদা করে সাক্ষাৎ করেন ট্রাম্প৷


ইইউ-র সঙ্গে চুক্তিহীন ব্রেক্সিটের প্রবক্তারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে এমন ‘লোভনীয়' দ্বিপাক্ষিক চুক্তির সম্ভাবনা তুলে ধরে আসছেন৷ তাই ট্রাম্প-এর প্রস্তাব কট্টর ব্রেক্সিটপন্থিদের জন্য সুখবর বয়ে আনছে৷ তবে জাতীয় স্বাস্থ্য পরিষেবা ও খাদ্য নিরাপত্তার মতো কিছু ‘স্পর্শকাতর' ক্ষেত্র উন্মুক্ত করার বিষয়ে ব্রিটেনে যথেষ্ট বিতর্ক রয়েছে৷ ট্রাম্প বলেছিলেন, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তি সংক্রান্ত আলোচনায় কোনো বিষয়ই উহ্য রাখা যায় না। পরে অবশ্য তিনি স্বাস্থ্য পরিষেবার প্রশ্নে সুর কিছুটা নরম করেন৷ তবে বরিস জনসন-ও এমন সার্বিক বাণিজ্য চুক্তির পক্ষে সওয়াল করেছেন৷


এতকাল ব্রিটেনের বিদায়ী প্রধানমন্ত্রীর কড়া সমালোচনা করে এলেও মঙ্গলবার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প টেরেসা মে-র ভূয়সী প্রশংসা করেন৷ ব্রেক্সিট নিয়ে ইইউ-র সঙ্গে আলোচনার ক্ষেত্রে তাঁর অসাধারণ অবদানের উল্লেখ করেন ট্রাম্প৷ তবে মে সম্ভবত কখনোই সেই প্রাপ্য কৃতিত্ব পাবেন না৷ ট্রাম্প বলেন, টেরেসা মে-র সঙ্গে এতকাল কাজ করে তিনি অত্যন্ত খুশি হয়েছেন৷ মে সম্পর্কে নরম সুরে কথা বললেও ট্রাম্প খোলাখুলি লেবার দলের নেতা জেরেমি কর্বিন ও লন্ডন শহরের মেয়র সাদিক খান সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য করেন৷

মঙ্গলবার লন্ডনে ট্রাম্প-বিরোধী বিক্ষোভ দেখা গেছে৷ বিরোধী লেবার দলের নেতারাও তাতে যোগ দেন৷ ট্রাম্প নিজে অবশ্য বিষয়টিকে খাটো করে দেখিয়ে বলেন, বেশিরভাগ মানুষ ব্রিটেন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা উড়িয়েছেন৷ সামান্য কিছু মানুষ প্রতিবাদ দেখিয়েছেন মাত্র৷


এসবি/ডিজি (ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন