ব্রিটেনের প্রতিক্রিয়া নিয়ে কি রাশিয়া চিন্তিত? | বিশ্ব | DW | 15.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাজ্য

ব্রিটেনের প্রতিক্রিয়া নিয়ে কি রাশিয়া চিন্তিত?

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে ব্রিটেনের মাটিতে সাবেক এক রুশ গোয়েন্দা ও তাঁর মেয়েকে বিষ খাইয়ে হত্যা চেষ্টার জন্য রাশিয়াকে দায়ী করেছেন৷ প্রতিক্রিয়া হিসেবে তিনি রাশিয়ার বিরুদ্ধে কয়েকটি পদক্ষেপেরও ঘোষণা দেন৷

বুধবার ব্রিটিশ সংসদে দেয়া বক্তৃতায় টেরেসা মে ২৩ জন রুশ গোয়েন্দাকে এক সপ্তাহের মধ্যে ব্রিটেন ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন৷ এই ২৩ ব্যক্তি কূটনীতিক পরিচয়ের আড়ালে গোয়েন্দা হিসেবে কাজ করতেন বলে ব্রিটেন মনে করছে৷ এছাড়া রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভকে দেয়া লন্ডন সফরের আমন্ত্রণও বাতিল করা হয়েছে৷ দুই দেশের মধ্যে উচ্চ পর্যায়ের যেসব বৈঠক হওয়ার কথা সেগুলোও স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছেন টেরেসা মে৷ আর জুন-জুলাই মাসে রাশিয়া অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ফুটবল বিশ্বকাপের সময় সেখানে কোনো মন্ত্রী কিংবা রাজ পরিবারের কোনো সদস্যকে পাঠাবে হবে না বলেও জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী৷

কিন্তু বিশ্লেষকরা মনে করছেন, ব্রিটেনের এই প্রতিক্রিয়া রাশিয়ার উপর সামান্যই প্রভাব ফেলবে৷ লন্ডনের থিংক ট্যাংক চেটেম হাউসের রাশিয়া বিষয়ক বিশ্লেষক মাটিয়ু বুলেগ মনে করছেন, ‘‘ক্রেমলিন এটাকে খুবই হালকা প্রতিক্রিয়া হিসেবে দেখবে৷ এটি নিয়ে পুটিন চিন্তিত হবে না বলে মনে হচ্ছে৷''

একসময় রাশিয়ায় সবচেয়ে বড় ফরেন ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড ছিল ‘হার্মিটেজ ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট'৷ এই কোম্পানির প্রধান বিল ব্রাউডার রয়টার্সকে বলেন, লন্ডনকে আরও শক্ত প্রতিক্রিয়া জানাতে হবে, নইলে আরও হামলা হতে পারে৷ ‘‘রাষ্ট্র সমর্থিত এমন সন্ত্রাসের প্রতিবাদে ব্রিটিশ সরকার যদি ২৩ জন কূটনীতিককে বহিষ্কার এবং বিশ্বকাপে কিছু কর্মকর্তাকে না পাঠানোর মধ্যে সীমিত থাকে, তাহলে ব্রিটেনের মাটিতে আরও হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে,'' বলেন তিনি৷

২০০৬ সালে লন্ডনে হত্যা হওয়া রাশিয়ার আরেক সাবেক গোয়েন্দা আলেক্সান্ডার লিটভিনেঙ্কোর বিধবা স্ত্রী মারিনা লিটভিনেঙ্কোও মনে করছেন ব্রিটেনের প্রতিক্রিয়া যথেষ্ট নয়৷ অবশ্য তাঁর স্বামীর হত্যার পর নেয়া পদক্ষেপের চেয়ে এবারেরটি শক্তিশালী বলে মনে করছেন তিনি৷

লিটভিনেঙ্কোকে হত্যার জন্য যে দুই রুশ নাগরিককে দায়ী মনে করেছিল ব্রিটেন, তাদের বিচারের মুখোমুখি করতে ব্রিটেনে পাঠাতে রাশিয়াকে অনুরোধ জানানো হয়েছিল৷ কিন্তু রাশিয়া সেটি না করায় ব্রিটেন চারজন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছিল৷

উল্লেখ্য, গত ৪ মার্চ সাবেক রুশ গোয়েন্দা সের্গেই স্ক্রিপাল ও তাঁর মেয়েকে ব্রিটেনের সলসবেরি শহরের এক বেঞ্চিতে অচেতন অবস্থায় পাওয়া যায়৷ এরপর তাঁদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ দু'জনের অবস্থা এখনও সংকটজনক, তবে স্থিতিশীল বলে জানা গেছে৷ তাঁদের শরীরে বিষ প্রবেশ করাতে ‘নোভিচক' নামে একটি ‘নার্ভ এজেন্ট' ব্যবহার করা হয় বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী৷ উল্লেখ্য, নার্ভ এজেন্ট হচ্ছে এক ধরনের রাসায়নিক উপাদান, যা শরীরের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গের কাছে বার্তা পাঠানোর কাজ ব্যহত করে৷

৬৬ বছর বয়সি সের্গেই স্ক্রিপাল রাশিয়ার সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার একজন কর্নেল ছিলেন৷ পরে তাঁর বিরুদ্ধে ব্রিটেনের এম১৬ গোয়েন্দা সংস্থার হয়ে রুশ গোয়েন্দা এজেন্টদের সঙ্গে প্রতারণার অভিযোগ আনা হয়েছিল৷ এরপর ২০১০ সালে লন্ডন ও মস্কোর মধ্যে গোয়েন্দা বিনিময় চুক্তির আওতায় সের্গেই স্ক্রিপাল ব্রিটেনে গিয়েছিলেন৷

রাশিয়ার প্রতিক্রিয়া

রাশিয়ার বিরুদ্ধে স্ক্রিপালের উপর হামলার অভিযোগ এনে টেরেসা মে যে বক্তব্য দিয়েছেন তাকে ‘কাণ্ডজ্ঞানহীন' বলে উল্লেখ করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা৷ রাশিয়াও ব্রিটেনের বিরুদ্ধে পালটা ব্যবস্থা নেয়ার পরিকল্পনা করছে বলেও জানান তিনি৷

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকোভ ব্রিটেনের অবস্থানকে ‘দায়িত্বহীন' বলে মন্তব্য করেছেন৷ আর রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ বলছেন, স্ক্রিপাল ইস্যুতে ব্রিটেনের এমন প্রতিক্রিয়ার অন্যতম একটি কারণ ব্রেক্সিট নিয়ে ব্রিটিশ সরকারের সমস্যায় থাকা৷

এদিকে টেরেসা মের বক্তব্যের পর লন্ডনের রুশ দূতাবাসের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে একটি টুইট করা হয়েছে৷ এতে একটি থার্মোমিটারের ছবি দেয়া হয়েছে, যেখানে তাপমাত্রা মাইনাস ২৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস দেখানো হচ্ছে৷ এর মাধ্যমে দুই দেশের মধ্যকার শীতল সম্পর্কের বিষয়টি বোঝানোর চেষ্টা করা হয়েছে৷ তবে রাশিয়া শীতল আবহাওয়াকে ভয় পায় না বলেও টুইটে উল্লেখ করা হয়েছে৷

আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়া

যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, জার্মানি, যুক্তরাজ্যের নেতৃবৃন্দ এক যৌথ বিবৃতিতে ইংল্যান্ডে সাবেক রুশ গোয়েন্দার উপর হামলার ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন এবং এর জন্য রাশিয়াকে দায়ী করেছেন৷ বৃহস্পতিবার প্রকাশিত ঐ বিবৃতিতে তাঁরা বলেন, স্ক্রিপালকে হত্যার উদ্দেশ্যে যে ধরণের নার্ভ এজেন্ট ব্যবহার করা হয়েছে সেটি রাশিয়ায় তৈরি৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইউরোপের মাটিতে এটিই প্রথম নার্ভ এজেন্টের ব্যবহার বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়৷ এছাড়া ‘‘এটি যুক্তরাজ্যের সার্বভৌমত্বের উপর হামলা,’’ বলে মন্তব্য করেছেন তাঁরা৷


জেডএইচ/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন