ব্রাসেলসে অভিবাসীবিরোধী বিক্ষোভ, সংঘর্ষ, গ্রেপ্তার | বিশ্ব | DW | 17.12.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

ব্রাসেলসে অভিবাসীবিরোধী বিক্ষোভ, সংঘর্ষ, গ্রেপ্তার

জাতিসংঘের নতুন অভিবাসন চুক্তির বিরুদ্ধে বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে ব্যাপক বিক্ষোভ হয়েছে৷ বিক্ষোভে অংশ নিয়েছে অন্তত সাড়ে পাঁচ হাজার মানুষ৷ অভিবাসন চুক্তিতে প্রধানমন্ত্রীর সমর্থনের বিরুদ্ধে তাঁদের এই প্রতিবাদ৷

জাতিসংঘের নতুন চুক্তিটি অভিবাসীবান্ধব হওয়ায় তা সমর্থন করেছিলেন বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রী চার্লস মিশেল৷ রবিবার এই সমর্থনের প্রতিবাদে রাজধানী ব্রাসেলসের রাস্তায় নামেন হাজারো মানুষ৷ পুলিশ বলছে, এই বিক্ষোভের আয়োজক কট্টর ডানপন্থি দলগুলো৷ বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ও পানি ছোঁড়ে৷ চারশ'র মতো বিক্ষোভকারী

ইউরোপীয় কমিশনের ভবনে ঢুকে পড়ে৷ সেই সময় ৬৯ জনকে আটক করা হয়৷ তাঁদের বিরুদ্ধে ঐ ভবনের সম্পদ নষ্ট করার অভিযোগ আনা হয়েছে৷

বিক্ষোভকারীদের ব্যানারগুলোতে লেখা ছিল ‘‘আমাদের জনগণ সবার আগে'' ‘‘সীমান্ত বন্ধ করে দাও'' এমন অনেক স্লোগান৷ এই বিক্ষোভের প্রতিবাদে বামপন্থি এবং বেসরকারি কিছু সংগঠনের অন্তত এক হাজার সদস্য সিটি সেন্টারে পাল্টা বিক্ষোভ করে৷

ভিডিও দেখুন 01:39

Belgian government coalition collapses over migration

গত সপ্তাহেবেলজিয়ামের পার্লামেন্টে অভিবাসন চুক্তি নিয়ে আলোচনায় বিরোধিতা করেছিল কট্টর ডানপন্থি দল নিউ ফ্লেমিশ অ্যালায়েন্স৷ মরক্কোতে অভিবাসন সম্মেলনে যে চুক্তি হয়েছে, তাতে স্বাক্ষর করা নিয়ে আলোচনা চলছিল সংসদে৷ চুক্তিকে সমর্থন জানিয়েছিল প্রধানমন্ত্রী চার্লস মিশেলের ক্ষমতাসীন জোট৷

আগামী বছরের মে মাসে বেলজিয়ামে কেন্দ্রীয় নির্বাচন৷ বিক্ষোভকারীরা মেয়াদ শেষের আগেই প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে৷ পাশাপাশি কিছু বিরোধী দল সরকারের বিপক্ষে আস্থা ভোটের আহ্বান জানায়৷ জাতিসংঘের অভিবাসনবান্ধব ঐ চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়া ১৯৩ দেশের সদস্য রাষ্ট্র সমর্থন দিয়েছিল৷ তবে পরে মোট ১৬৪টি দেশ আনুষ্ঠানিকভাবে এতে স্বাক্ষর করে৷

এপিবি/এসিবি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন