ব্রাজিলে প্রান্তিক মানুষের কল্যাণে সৌর বাতি | অন্বেষণ | DW | 14.02.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ব্রাজিলে প্রান্তিক মানুষের কল্যাণে সৌর বাতি

বহুকাল ধরে আফ্রিকা থেকে মানুষ ধরে অ্যামেরিকা মহাদেশে ক্রীতদাস হিসেবে বিক্রি করা হয়েছে৷ ব্রাজিলে তাদের উত্তরসুরিদের এক সম্প্রদায় কয়েক দশক আগে পর্যন্ত আত্মগোপন করে ছিল৷ এবার তাদের জীবনে আলো আসছে৷

প্রান্তিক কালুঙ্গা সম্প্রদায়ের দুর্দশা

প্রায় ৩ শতাব্দী ধরে ব্রাজিলের বুকে কালুঙ্গারা বসবাস করছেন৷ তাঁদের পূর্বপুরুষরা আশেপাশের স্বর্ণখনিতে ক্রীতদাস হিসেবে কাজ করতেন৷ তারপর পালিয়ে গিয়ে জঙ্গলে বসবাস শুরু করেন৷ ক্রীতদাসদের উত্তরসূরি হিসেবে কালুঙ্গারাই সবচেয়ে বড় গোষ্ঠী৷ বেশ কয়েকটি ছোট জনপদে তাঁরা বসবাস করেন৷

আবার ক্রীতদাস হবার ভয়ে কালুঙ্গাদের অনেক জনপদ গত শতাব্দীর আশির দশক পর্যন্তও বহির্জগত থেকে বিচ্ছিন্ন ছিল৷ কালুঙ্গা সম্প্রদায়ের মানুষ হিসেবে আদির সোয়ারেস সুসা বলেন, ‘‘আমরা কার্যত লোকচক্ষুর অন্তরালেই বসবাস করছি৷ আমাদের সাহায্য করার কেউ নেই৷ রাস্তাঘাট, সুস্থ জীবনের জন্য বিশুদ্ধ পানি, স্কুল-কলেজ, বিদ্যুৎ – কিছুই আমাদের নেই৷’’

এখনো পর্যন্ত অবস্থা খুবই কঠিন ছিল৷ তাঁর গ্রাম রাজধানী ব্রাসিলিয়া থেকে মাত্র ২৫০ কিলোমিটার উত্তরে অবস্থিত হওয়া সত্ত্বেও সেটি বহির্জগত থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন৷ শাপাদা দোস ভেইয়াদেইরস জাতীয় অরণ্যের মাঝে গ্রামটি অবস্থিত৷ পার্কটি ইউনেস্কোর বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় রয়েছে৷ আফ্রিকার সাভানা অঞ্চলের মতো ব্রাজিলের মধ্যভাগে সেরাডো-র অংশ এটি৷

ভিডিও দেখুন 05:30
এখন লাইভ
05:30 মিনিট

এবার তাঁদের জীবনে আলো আনছে সৌর বাতি

তিনি যে আধুনিক সভ্যতা থেকে কতটা বিচ্ছিন্ন, প্রতি সন্ধ্যায় বাসায় ফেরার পর আদির সুসা তা টের পান৷ সন্ধ্যা সাতটার মধ্যেই তাঁর বাড়িতে ঘন অন্ধকার নেমে আসে৷ তাঁর স্ত্রী আগেই নৈশভোজ প্রস্তুত করেন৷ কিন্তু বাসনপত্র দেখার জন্য তাঁর কাছে শুধু একটা ছোট ডিজেলচালিত বাতি রয়েছে৷ কিন্তু সেই বাতির দুর্গন্ধ ও তাতে আগুন লাগার ভয় কম নয়৷ আদির বলেন, ‘‘বিদ্যুত ছাড়া জীবন মানেই কষ্টের জীবন৷ অনেক কাজ হয় না, সবকিছু থেমে থাকে৷ সন্ধ্যা নামলেই কাজ করার জো নেই৷ পরের দিন আলো আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়৷’’

সৌরশক্তিচালিত বাতির প্রয়োগ

লিট্রো দে লুস নামের এনজিও কালুঙ্গা সম্প্রদায়ের জীবনে আলো আনতে চায়৷ সেই লক্ষ্যে তারা নতুন গির্জাটিকে সাক্ষাতের স্থান ও প্রযুক্তিকেন্দ্র হিসেবে কাজে লাগাচ্ছে৷ অনেকেই সেখানে গিয়ে সৌরশক্তিচালিত বাতি তৈরির পদ্ধতি শিখতে চান৷ রিসাইকেল করা প্লাস্টিক বোতল দিয়ে সেগুলি তৈরি করা হয়৷

গ্রামে অনেক মানুষেরই অক্ষরজ্ঞান নেই৷ তাই বাতি তৈরির পদ্ধতির কোনো লিখিত রূপ নেই৷ তা সত্ত্বেও সমস্যার মুখে পড়লে সাহায্য করা হয়৷ এই দিকে ব্যাটারি লাগাতে হবে৷ কালোর সঙ্গে কালো, লালের সঙ্গে লাল মিলিয়ে৷ ভুল করলে পুড়ে যেতে পারে৷ এই বাতি ৫ ঘণ্টা ধরে জ্বলে৷ তারপর এক সৌর প্যানেলে সেটি আবার চার্জ করা যায়৷ তবে এমন বাতির আয়ু সাধারণত ২ বছরের বেশি হয় না৷

এই সংগঠন প্রস্তুতকারকের কাছ থেকেই সস্তায় উপাদান সংগ্রহ করে৷ ব্রাজিলের কেন্দ্রীয় ব্যাংক আয়োজিত এক প্রতিযোগিতায় ‘সামাজিক প্রযুক্তি' বিভাগে পাওয়া প্রায় ২৫,০০০ ইউরো মূল্যের পুরস্কারের অর্থ দিয়েই এই এনজিও কাজ চালায়৷

৩ মাসেরও বেশি সময় ধরে লিট্রো দে লুস কালুঙ্গা সম্প্রদায়ের জন্য কাজ করেছে৷ সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবী কামিলা রেবেলো আমুই বলেন, ‘‘সম্পর্ক গড়ে তোলা আমাদের জন্য অত্যন্ত জরুরি৷ বিভিন্ন ধরনের চাহিদা বুঝতে আমরা প্রত্যেকটি মানুষ ও তার নিজস্ব পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত হয়েছি৷’’

দেশজুড়ে সৌর বাতি চালু

‘লিটার অফ লাইট’ নামের এক আন্তর্জাতিক সংগঠন ২০১৪ সালে ব্রাজিলে ‘লিট্রো দে লুস’ নামের শাখা খোলে৷ তখন থেকে এই সংগঠন ব্রাজিলে ১০,০০০-এরও বেশি মানুষের কাছে আলো পৌঁছে দিয়েছে৷ সে দেশে প্রায় ১০ লক্ষ মানুষ বিদ্যুৎ সংযোগ থেকে বিচ্ছিন্ন৷ সাঁও ডোমিঙ্গোস শহরে স্থানীয় তরুণরা সৌরশক্তিচালিত ল্যাম্প পোস্ট তৈরি করেছেন৷ গ্রামের মানুষ আগে থেকেই তার জন্য জায়গা চিহ্নিত করেছিল৷ যেমন নতুন এক উৎসব প্রাঙ্গণের সামনে, অথবা স্কুলের সামনে৷ ফলে অনেকেই খুশি৷ কেউ কেউ আগে সন্ধ্যায় বাইরে যেতেন না, কারণ জঙ্গল ও সাপে ভরা জায়গাটা বিপজ্জনক ছিল৷ সাপের গায়ে পা পড়লে মৃত্যুর ভয় ছিল৷

নতুন আলোকসজ্জা সত্ত্বেও রাতে কার্যকলাপ শুরু হতে আরও সময় লাগবে৷ আদির সুসা-র পরিবারের জন্য সন্ধ্যায় নতুন এক সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে৷ আদির বলেন, ‘‘আলো আসায় অবশ্যই অনেক উন্নতি হয়েছে৷ কারণ আগে বিকেল ৪টা বা ৫টার মধ্যে যে কাজ সেরে ফেলতে হতো, এখন তা সন্ধ্যা ৭টা, ৮টা পর্যন্ত তা করা যায়৷ দেরিতে রান্না করা যায়, নৈশভোজ সারা যায়, ঘুমাতে যাওয়া যায়৷’’

এই গ্রাম অদূর ভবিষ্যতে বিদ্যুৎ গ্রিডে যুক্ত হবে বলে তাঁর আশা৷ প্রায় ২০০ বছর ধরে মানুষ ক্রীতদাসের জীবন থেকে পালিয়ে অন্ধকারে দিন কাটিয়েছে৷ এবার অবস্থার পরিবর্তন হচ্ছে৷

বিয়াংকা কপ্শ/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন