ব্যাঙের কথা আগে এমন ভেবেছেন কি? | বিশ্ব | DW | 23.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

ব্যাঙের কথা আগে এমন ভেবেছেন কি?

প্রাণিজগতের ভারসাম্য বজায় রাখার ক্ষেত্রে ব্যাঙের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ অথচ নর্থ রাইন ওয়েস্টফেলিয়া রাজ্যে কমে যাচ্ছে ব্যাঙের সংখ্যা৷ তাই এ ধরনের প্রাণীকে বাঁচিয়ে রাখার উদ্যোগ নিয়েছেন জার্মানির বন শহরের বিজ্ঞানীরা৷

প্রাণিজগতের ভারসাম্য বজায় রাখার ক্ষেত্রে ব্যাঙের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ অথচ নর্থ রাইন ওয়েস্টফেলিয়া রাজ্যে কমে যাচ্ছে ব্যাঙের সংখ্যা৷ তাই এ ধরনের প্রাণীকে বাঁচিয়ে রাখার উদ্যোগ নিয়েছেন জার্মানির বন শহরের বিজ্ঞানীরা৷

খাদ্যশৃঙ্খলে সক্রিয় অবস্থান ছাড়াও বৃষ্টিপাত থেকে শুরু করে ভূমিকম্প, প্রকৃতির নানা ওঠা-পড়ার পূর্বাভাস দিতে পারে এই ছোট্ট প্রাণীটি৷ এ জন্যই একে ‘এনভায়রনমেন্টাল ব্যারোমিটার' বলা হয়৷ অথচ ব্যাঙ সংরক্ষণে সেভাবে কোনো চেষ্টা নজরেই পড়ে না৷ প্রতি বছর শীত শেষে যখন বসন্ত আসে, ব্যাঙেরা শীতঘুম শেষ করে গর্তের বাইরে বেরিয়ে পড়ে মিলনের জন্য৷ এই স্থানান্তরণের সময়েই রাস্তায় প্রচুর ব্যাঙ গাড়ি চাপা পড়ে৷ জানালেন জার্মান বিজ্ঞানী ক্রিস্টিয়ান শামেলা৷

বন শহরের একটি এনজিও-তে ক্রিস্টিয়ান সহ আটজন বিজ্ঞানী বিপন্ন ব্যাঙদের বাঁচানোর কাজটিই করেন৷

উভচর প্রাণীর গবেষক তথা রাইন-এর্ফ্ট বায়োলজি স্টেশন নামক গবেষণা কেন্দ্রের বিজ্ঞানী ক্রিস্টিয়ান শামেলার আক্ষেপ, ‘‘বড় বড় প্রাণী নিয়ে অনেক গবেষণা হয়৷ অথচ বিপন্ন ব্যাঙ বা ফায়ার স্যালামান্ডার সংরক্ষণের কোনো চেষ্টাই কারও নেই৷ যথেচ্ছ পরিমাণে কীটনাশকের ব্যবহার, জঙ্গল সাফ করে বসতি গড়ে ওঠা, দূষণ, কোথাও আবার অ্যাসিড বৃষ্টি বা যুদ্ধ – এ সব নানা কারনে উভচর প্রাণী বিলুপ্ত হয়ে চলেছে৷ ফলে খাদ্যশৃঙ্খল নষ্ট হওয়া থেকে বাস্তুতন্ত্র ভেঙে পড়ার আশঙ্কাও রয়েছে৷ আর তা হলে শুধুই উভচরপ্রাণী নয়, তার ভয়ংকর প্রভাব পড়বে জীবজগতেও৷''

কিন্তু রাস্তায় গাড়ি চাপা পড়ার হাত থেকে ব্যাঙকে বাঁচানোর উপায় কী? বড় রাস্তায় গাড়ি চলাচল বন্ধ করা যাবে না, সেটা ছোট রাস্তার ক্ষেত্রে করা যেতে পারে৷ তাই এ ব্যাপারে সবচেয়ে কার্যকর ভূমিকা নেয় রাস্তার নীচে তৈরি সুড়ঙ্গ৷ এগুলি ব্যবহার করে ব্যাঙ সহজেই রাস্তা পার করতে পারে৷ তবে নতুন রাস্তা তৈরির সময়েই এই সুড়ঙ্গ তৈরি করতে হয়৷

ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি নাগাদ বিশেষভাবে তৈরি বেড়াগুলি রাস্তার ধারে

ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি নাগাদ বিশেষভাবে তৈরি বেড়াগুলি রাস্তার ধারে দেওয়া হয়

বন বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োলজি বিভাগের প্রাক্তন ছাত্র ক্রিস্টিয়ান জানালেন, ‘‘আমরা যেটা করি সেটা সবচেয়ে সহজ৷ ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি নাগাদ বিশেষভাবে তৈরি বেড়াগুলি রাস্তার ধারে ধারে দিয়ে রাখি৷ এতে ব্যাঙ বা অন্য উভচর সেটা ডিঙিয়ে রাস্তায় যেতে পারে না৷ এপ্রিলের মাঝামাঝি পর্যন্ত এগুলো এমন করে দেওয়া থাকে৷''

এরপরে মাটিতে গর্ত খুঁড়ে বালতি বসিয়ে দেওয়া হয়৷ ৮০০ মিটার লম্বা বেড়ার কাছাকাছি ৩ থেকে ৫ মিটার অন্তর অন্তর এই বালতিগুলো বসান হয়৷ বেড়ার কাছাকাছি ব্যাঙ পৌঁছে গেলে সহজেই বালতি পড়ে যায়৷

ভিডিও দেখুন 01:21
এখন লাইভ
01:21 মিনিট

প্রাণিজগতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ব্যাঙের ভূমিকা

বায়ো স্টেশনের স্বেচ্ছাসেবীরা রোজ এই বালতিগুলো নজরদারি করেন৷ বালতিতে ব্যাঙ পড়লেই তাঁরা সেগুলিকে রাস্তা পার করে জঙ্গলে ছেড়ে দেন৷

জার্মানিতে ব্যাঙকে রক্ষা করার জন্য প্রায় ৮০০টি বেড়া ব্যবহার করা হয়৷ এতে সাফল্য পাওয়া যাচ্ছে৷ তবে চিন্তাও রয়েছে৷ নর্থ রাইন ওয়েস্টফালিয়ায় খুবই কমে এসেছে গার্লিক ব্যাঙ এবং হলদে পেট ব্যাঙ৷ সেগুলিকে সংরক্ষণ করার জোরকদমে চেষ্টা চলছে৷

বায়োস্টেশনে এখন সেই কাজই চলছে৷  নর্থ রাইন ওয়েস্টফেলিয়ার বিভিন্ন জলাশয় থেকে এই দু'টি বিপন্ন প্রজাতির ব্যাঙাচি সংগ্রহ করে আনা হচ্ছে৷ এরপরে কৃত্রিমভাবে সেই ব্যাঙাচির প্রজনন ঘটানো হচ্ছে, যাতে পরিবেশে এই বিরল প্রজাতির ব্যাঙের সংখ্যা বাড়ে৷                

নিছক প্রকৃতির প্রতি ভালোবাসা থেকেই বায়োস্টেশনে এই কাজ করেন চার জন তরুণ স্বেচ্ছাসেবী ও আটজন বিজ্ঞানী৷ ব্যাঙের চলার পথকে সুরক্ষিত করে তুলতে তাঁরা সেখানে সাইনবোর্ডও লাগিয়ে রাখেন৷

ভারত, বাংলাদেশের পুকুরে ইদানীং ব্যাঙের সংখ্যা কমে আসছে৷ রাসায়নিকের যথেচ্ছ ব্যবহার এবং দূষণে ব্যাঙ আজকাল তৃতীয় বিশ্বের ক্ষেত খামারেও ব্যাঙের ডাক শোনা যায় না৷ কিন্তু জার্মানির মতো উন্নত দেশে ব্যাঙের সংখ্যা কমে যাওয়ার কারণ কী?

 বেড়ার কাছাকাছি ৩ থেকে ৫ মিটার অন্তর অন্তর এই বালতি

বেড়ার কাছাকাছি ৩ থেকে ৫ মিটার অন্তর অন্তর এই বালতিতে ব্যাঙ পড়ে যায়

ক্রিস্টিয়ান শামেলা জানালেন, ১৬ বছরেরও বেশি সময় ধরে তাঁরা কাজটা করছেন৷ সমস্যাটা শুধু তৃতীয় বিশ্বের নয়, সারা বিশ্বের৷ ঠিক একই কারণে জার্মানিতেও ব্যাঙ কমে যাচ্ছে৷ বহু ব্যঙ শুধু গাড়ি চলাচলের কারণে মারা পড়ছে৷ বিশুদ্ধ জল, সংরক্ষিত এলাকা এবং অধিক প্রজনন ছাড়া ব্যাঙ বা এই জাতীয় উভচর বাঁচিয়ে রাখার উপায় নেই৷

জলাশয়ে যেমন ব্যাঙ থাকে তেমনই নানা ধরনের ক্ষতিকারক কীটপতঙ্গও থাকে৷ ব্যাঙ সেগুলি খেয়ে নেয়৷ ব্যাঙ না থাকলে সেই সব কীটপতঙ্গ মানব জগতের ক্ষতি করবে৷ জিকা ভাইরাস বহনকারী ক্ষতিকারক পতঙ্গ খেয়েও ব্যাঙ আমাদের সুরক্ষিত রাখে৷ এত সব জানার পরেও কি আমরা ব্যাঙের ব্যাপারে সচেতন হবো না?

প্রতিবেদনটি কেমন লাগলো? লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন