বোরকা নিষিদ্ধকরণ নিয়ে বিতর্ক | বিশ্ব | DW | 04.05.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

বোরকা নিষিদ্ধকরণ নিয়ে বিতর্ক

শ্রীলঙ্কায় বোরকা নিষিদ্ধ হওয়ার পর একই দাবি উঠেছে ভারতে৷ জঙ্গিরা সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ চালাতে বোরকা ব্যবহার করছে বলে অনেকের মত৷ এই দাবির বিরুদ্ধেও উঠেছে আওয়াজ৷ ফলস্বরূপ বিতর্কের কেন্দ্রে বোরকা৷

ভয়াবহ ধারাবাহিক বিস্ফোরণ ও রক্তপাতের পর শ্রীলঙ্কার সরকার বোরকা নিষিদ্ধ করেছে৷ তাদের এই পদক্ষেপের পর নির্বাচনি মরসুমে ভারতেও বিতর্কের কেন্দ্রে এসে পড়েছে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নারীর পোশাক বোরকা৷ দিল্লিতে ক্ষমতাসীন বিজেপির শরিক শিবসেনা সবার প্রথমে দাবি তুলেছে– ভারতে বোরখা নিষিদ্ধ করতে হবে৷ তারা মনে করে, বোরখার আড়ালকে জঙ্গিরা আত্মগোপন করার প্রয়োজনে ব্যবহার করছে, এতে জাতীয় নিরাপত্তা ক্ষুণ্ণ হচ্ছে৷ হিন্দু জাতীয়তাবাদের সমর্থক হলেও বিজেপি অবশ্য এই দাবিকে সমর্থন করেনি৷ কিন্তু তাদের প্রার্থী সাধ্বী প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর শিবসেনার পক্ষে দাঁড়িয়েছেন৷ এবার মধ্যপ্রদেশের ভোপাল কেন্দ্রে লড়ছেন কট্টর হিন্দুত্ববাদী প্রজ্ঞা৷ তাঁর বক্তব্য, দেশের স্বার্থ সবার উপরে, তার জন্য প্রয়োজনে সব কিছুই করা যায়। তিনি মনে করেন, এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে নিতে হবে, বিমানবন্দরে কিংবা বিদেশ সফরে গেলে বোরখা সরাতে হয়, দেশের প্রয়োজনে তা নিষিদ্ধ হলে আপত্তি থাকা উচিত নয়৷ 

অডিও শুনুন 01:16

‘ধর্মীয় নেতারা অনেক কিছু চাপিয়ে দিতে চায় ধর্মের নামে’

পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার খাগড়াগড়ে বিস্ফোরণের সূত্রে এই রাজ্যে জঙ্গি তৎপরতার ছবি সামনে এসেছিল৷ সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপে মহিলাদের যোগও পাওয়া গিয়েছে৷ জেএমবি-র গতিবিধি সম্পর্কে তথ্য মিললেও আইএস আতঙ্কের কারণ এখনো মেলেনি৷ প্রাক্তন পুলিশকর্তা সন্ধি মুখোপাধ্যায় ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘সাধারণ মানুষ জঙ্গি কাজকর্মে জড়িত থাকে না, তারা হিংসার শিকার হয়। তাই বোরখা বন্ধ করলে জঙ্গি তৎপরতা কমবে, এতে ভাবার কিছু নেই৷ পশ্চিমবঙ্গে আইএস বা জেএমবি-র হামলার বিরাট কোনো সম্ভাবনা এই মুহূর্তেই হয়তো নেই, তবু সতর্ক থাকা ভালো৷'' এর থেকে নারীমুক্তির প্রশ্নটিকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন সন্ধি৷ তিনি বলেন, ‘‘ধর্মীয় নেতারা অনেক কিছু চাপিয়ে দিতে চায় ধর্মের নামে৷ তাহলে সতীদাহ চালিয়ে যেতে হতো৷ ধর্মের নামে বিভেদ সৃষ্টি করাটা বন্ধ করতে হবে৷ সাধারণ মানুষদের ক্ষতি করে এসব৷ যে কোনো দেশে সেদিক থেকে বোরখা নিষিদ্ধ করার উদ্যোগকে সমর্থন জানাই৷''

বোরকা নিছকই একটা পোশাক নয়, একটি সম্প্রদায়ের পরম্পরা ও সংস্কৃতির সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে৷ রাজ্যের সংখ্যালঘু জনতার কাছে ধর্মীয় অনুষঙ্গ স্বাভাবিকভাবে বড় হয়ে দেখা দিচ্ছে৷ যদিও সেখানেও কট্টর ও উদারপন্থিদের মধ্যে বিভাজন রয়েছে৷ বর্ধমান জেলার আউশগ্রামের ব্রাহ্মণডিহি মসজিদের ইমাম শেখ নবি হাসান বোরকা নিষিদ্ধ করাকে সরাসরি ‘হারাম' বলে আখ্যা দিলেন৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘শরিয়ত অনুযায়ী মহিলাদের তিনটি অংশ ছাড়া বাকিটা পুরুষের সামনে অনাবৃত থাকা উচিত নয়৷ অর্থাৎ হাত, পা, মুখ ব্যতীত চতুর্থ অংশ বেপর্দা রাখা যাবে না, এটা ইসলামের নীতি৷ পুরুষদের ক্ষেত্রে নাভির নীচ থেকে আবৃত রাখতে হবে৷'' বোরখা বাতিল হলে মুসলিমদের উপর ‘অবিচার' হবে বলে তাঁর মত৷ তবে সবাই তা মনে করছেন না৷ মুর্শিদাবাদ জেলার রানিনগরের কোমনগর হাই মাদ্রাসার শিক্ষিকা শবনম পরভেজ জোর করে কিছু করানোর বিরুদ্ধে৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমি বোরকা ব্যবহার করি না৷ অনেকেই করেন না৷ অর্থাৎ শরিয়ত সবাই অনুসরণ করছেন, এমনটা নয়৷ কিন্তু, কারো যদি বোরকা পরতে সমস্যা না হয়, তার উপর নয়া নিয়ম চাপিয়ে দেওয়া ঠিক নয়৷ বোরখা বন্ধ হলেই কি অপরাধমূলক সমস্যাগুলো মিটে যাবে?''

সংখ্যালঘু মহিলাদের পরের প্রজন্মের ভাবনা আরো প্রগতিশীল৷ শবনমের মাদ্রাসার দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী সান্তানুর আহসানিয়া অকটপে বলে, ‘‘আমিও বোরকা পরি না৷ তবে জানি, ইসলামে বোরকা পরার কথা বলা আছে৷ কেউ যদি পরে, তাহলে কিছু বলার নেই৷ কিন্তু, আমার দেশ সবার উপরে৷ দেশের নিরাপত্তার স্বার্থে বোরকা নিষিদ্ধ করতে হলে সেটা ঠিক৷'' ইতিমধ্যে ভারতের সংখ্যালঘুদের একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বোরকা নিষিদ্ধ করেছে৷ কেরলের কোঝিকোড় শহরের মুসলিম এডুকেশন সোসাইটি বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, তাদের প্রতিষ্ঠানের কোনো ছাত্রী বোরকা পরতে পারবেন না৷ এই প্রতিষ্ঠানের অধীন ৭২টি স্কুল ও ৩৫টি কলেজে এক লক্ষ পড়ুয়া রয়েছেন৷ 

অডিও শুনুন 05:12

‘সাধারণ মানুষ জঙ্গি কাজকর্মে জড়িত থাকে না, তারা হিংসার শিকার হয়’

ভারত সরকার মুসলিমদের তিন তালাক প্রথা বিলোপের উদ্যোগ নিয়েছে৷ এই উদ্যোগকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলছে বিরোধীরা৷ আবার অনেকের মত, পুরুষতন্ত্রের জাঁতাকল থেকে নারীকে মুক্তি দেবে এই চেষ্টা৷ ধর্মের নামে বোরখার নিদানকে পুরুষতন্ত্র অটুট রাখার কৌশল বলে মনে করছেন সমাজকর্মী, অধ্যাপিকা শাশ্বতী ঘো্ষ৷ ইমামের মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি বলেন, "নারীকে আবৃত রাখার কথা যে পুরুষ বলে, তার সবার আগে ঘরে বন্ধ থাকা উচিত৷ তবে বোরকা নিয়ে বিতর্ক নতুন কিছু নয়৷ এখন জঙ্গি হামলা প্রসঙ্গে সেটা সামনে এসেছে৷ সন্ত্রাসবাদের চেয়ে নারীমুক্তির বিষয়টি বেশি গুরুত্ব পেয়েছে বাংলাদেশি লেখিকা তসলিমা নাসরিনের বক্তব্যে৷ তিনি টুইট করেছেন, ‘‘বোরকা নিষিদ্ধ করলে জঙ্গি কার্যকলাপ বন্ধ হবে না ঠিকই, কিন্তু নারী মুখহীন শবের মতো বেঁচে থাকার হাত থেকে পরিত্রাণ পাবে৷''

ভারতের জনসমষ্টির মাত্র ১৪ শতাংশ মুসলিমের একটি অংশের পোশাক নিষিদ্ধ করলে দেশ সুরক্ষিত হবে, এটা মানতে চান না ভারতীয় কবি, গীতিকার জাভেদ আখতার৷ ভারতে জনসংখ্যার ৮০ শতাংশের বেশি হিন্দু ধর্মাবলম্বী৷ কোনো কোনো গোষ্ঠীর হিন্দু মহিলারাও মুখ আবৃত রাখেন৷ রাজস্থান, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, বিহারে শাড়ির আঁচল মাথার উপর থেকে নামিয়ে মুখ ঢেকে রাখেন তাঁরা৷ জাভেদ আখতারের বক্তব্য, ‘‘ইরাকেও মহিলারা বোরকা পরেন না, তাহলে ভারতে পরবেন কেন? আমার পরিবারের কেউ পরেন না৷ তবে বোরকা নিষিদ্ধ হলে, নির্বাচন শেষ হওয়ার আগে রাজস্থানে ঘুঙ্ঘট (ঘোমটা) নিষিদ্ধ করা হোক৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন