বৈশ্বিক উষ্ণায়ন রোধের বড় প্রত্যাশায় শুরু জলবায়ু সম্মেলন | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 31.10.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জলবায়ু সম্মেলন

বৈশ্বিক উষ্ণায়ন রোধের বড় প্রত্যাশায় শুরু জলবায়ু সম্মেলন

জীবাষ্ম জ্বালানির ব্যবহার কমিয়ে বৈশ্বিক উষ্ণায়ন কমিয়ে আনা আর ভুক্তভোগী দেশগুলোর জন্য জলবায়ু তহবিলের প্রতিশ্রুতি আদায়ের বড় প্রত্যাশা নিয়ে শুরু হয়েছে জাতিসংঘের জলবায়ু সম্মেলন৷

বিশ্ব নেতাদের উপর চাপ প্রয়োগে জলবায়ুকর্মীরা জড়ো হয়েছেন গ্লাসগোতে৷

বিশ্ব নেতাদের উপর চাপ প্রয়োগে জলবায়ুকর্মীরা জড়ো হয়েছেন গ্লাসগোতে৷

রাষ্ট্রপ্রধান ও সরকারের প্রতিনিধিরা গ্লাসগোতে জড়ো হয়েছেন প্রত্যাশা পূরণের চাপ নিয়ে৷ প্রশ্ন উঠেছে শেষ পর্যন্ত তা কতটা পূরণ হবে?

স্বল্পোন্নত দেশ থেকে শুরু করে উন্নত, উত্তর গোলার্ধ্ব থেকে শুরু করে দক্ষিণ; জলবায়ু পরিবর্তন এখন আর কারো একার মাথাব্যাথার বিষয় নয়৷ যে দেশগুলো এতদিন নিজেদের নির্ভার মনে করেছে বৈশ্বিক উষ্ণায়ণ বৃদ্ধির আঁচ তারাও টের পেতে শুরু করেছে৷ চলতি বছরই অস্বাভাবিক দাবানলে পুড়েছে যুক্তরাষ্ট্র, ক্যানাডা, তুরস্ক৷ অভূতপূর্ব বন্যা দেখা দিয়েছে চীন, জার্মানিতে৷ অন্যদিকে বাংলাদেশের মতো নীচু দেশগুলো দায়ী না হয়েও আগে থেকেই জলবায়ু পরিবর্তনের ভুক্তভোগী৷

ঠিক এমন বাস্তবতায় স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে রোববার থেকে শুরু হলো জাতিসংঘের ২৬তম জলবায়ু সম্মেলন যা কপ নামে বেশি পরিচিত৷ ছয় বছর আগের প্যরিস চুক্তি বাস্তবায়নে আগামী দেড় সপ্তাহ বৈশ্বিক নেতাদের দেন দরবার, তর্ক বিতর্ক চলবে সেখানে৷ বৈশ্বিক উষ্ণায়ন দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামিয়ে আনার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের অচলাবস্থা ঘোচাতে শিল্পোন্নত দেশগুলোর উপর বড় চাপ থাকবে এবারের সম্মেলনে৷ এ নিয়ে কূটনৈতিক মত পার্থক্যের সময় আগেই পার হয়ে গেছে বলে মনে করেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তনিও গুতেরেস৷ সম্মেলন শুরুর আগে করা টুইটে তিনি উল্লেখ করেন, বিশেষ করে জি-টোয়েন্টি নেতারা জলবায়ু সংকট মোকাবিলায় তৈরি অচলাবস্থা কাটানোর নেতৃত্ব না দিলে ভয়ংকর ভোগান্তির মুখোমুখি হবে মানব সম্প্রদায়৷

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে প্রাকৃতিক দুর্যোগ বেড়ে চলায় এবং বিশ্বের নানা প্রান্তে শিক্ষার্থী, পরিবেশকর্মীদের আন্দোলনের কারণে বিভিন্ন দেশের রাজনীতিতে জলবায়ু পরিবর্তন যে কোন সময়ের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হয়ে উঠেছে৷ তারপরও বিজ্ঞানীরা গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমণের জন্য বিজ্ঞানীরা অর্ধশত বছর ধরে যে জীবাষ্ম জ্বালানিকে দায়ী করে এসেছেন তার ব্যবহার বন্ধে সর্বজনগ্রাহ্য কোন রূপরেখা হাজির করতে পারেননি রাজনৈতিক নেতারা৷ প্রতিবারের মতো এবারও তাদের উপর চাপ প্রয়োগে হাজারো জলবায়ুকর্মী প্রতিবাদের জন্য জড়ো হচ্ছেন গ্লাসগোতে৷ তাদের অভিযোগ ধনী দেশগুলো মোটেও তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করছে না৷ আন্দোলনকর্মী গ্রেটা টুনব্যার্গ যেমনটা বলেছেন, তথাকথিত নেতারা এমন সব কথা বলছেন যা ভালো শোনায় কিন্তু তাদের কাজের বেলায় তার কোন প্রতিফলন নেই৷ এবার আর প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি নয় বরং বাস্তবায়ন দেখতে চান তারা৷  

এই বিষয়ে আশাবাদী আয়োজক দেশ যুক্তরাজ্যের সরকার৷ ‘কয়লা, গাড়ি, অর্থ, বৃক্ষ’ এই চারটি বিষয়কে তারা এবারের সম্মেলনের সামনে রাখতে চাইছে৷ জি টোয়েন্টি সম্মেলনে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বিশ্ব রক্ষায় রাষ্ট্রনেতাদের প্রতি বারবার আর্জি জানিয়েছেন৷ তবে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি কার্বন নির্গমণকারী দেশ চীনের প্রেসিডেন্ট এই শি ঝিনপিং সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন না৷ থাকছেন না আরেক জি-টোয়েন্টি সদস্য রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিনও৷ এমন বাস্তবতায় এই সম্মেলন অভিন্ন ও সুস্পষ্ট কোন সিদ্ধান্ত আসবে কীনা সেই প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে৷

ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর নেতৃত্ব দিবে বাংলাদেশ

প্যারিস চুক্তির সিদ্ধান্ত মোতাবেক ধনী দেশগুলোর কাছ থেকে বার্ষিক ১০০ বিলিয়ন ডলারের জলবায়ু তহবিল আদায় সম্মেলনে স্বল্পোন্নত দেশগুলোর প্রধান লক্ষ্য থাকবে ৷ এই বিষয়ে ঝুঁকির মুখে থাকা ৪৮টি দেশের জোট ‘ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের (সিভিএফ)' চেয়ারপার্সন হিসাবে গ্লাসগো সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ শনিবার ঢাকায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন সংবাদ ব্রিফিংয়ে বলেছেন, ২০১৫ সালে প্যারিস সম্মেলনে উন্নত দেশগুলো অঙ্গীকার করেছিল, জলবায়ু তহবিলে ২০২০ থেকে প্রতিবছর ১০০ বিলিয়ন ডলার অনুদান দেবে৷ বাংলাদেশে ডয়চে ভেলের কনটেনন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম তাকে উদ্ধৃত করে বলেছে, ‘‘আমরা চাই, এবার সেটির বাস্তবায়ন হবে, তোমরা শুধু মুখে মুখে বলো, এবার তোমাদের অবশ্যই দিতে হবে৷’’

পাশাপাশি তাপমাত্রা বৃদ্ধির মাত্রা ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামিয়ে আনতে ‘ন্যাশনালি ডিটারমাইন্ড কনট্রিবিউশনস (এনডিসি)’ ঠিক করা, এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানি বাড়াতে সহযোগিতা বাড়ানোর বিষয়টিও সম্মেলনে তুলে ধরবে বাংলাদেশ৷

এফএস/এআই

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়