বৈধ পথে অভিবাসন শান্তির, সম্মানের | আলাপ | DW | 05.02.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

বৈধ পথে অভিবাসন শান্তির, সম্মানের

প্রতি বছর অবৈধ পথে ইউরোপে প্রবেশ করছেন শত শত বাংলাদেশি৷ দুর্বিষহ অবস্থার মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে তাদের৷ অথচ একই টাকা খরচ করে বৈধ উপায়েই এসব দেশে আসার সুযোগ আছে৷

একজন বাংলাদেশির গল্প শোনাই আপনাদের৷ ধরুন তার নাম তরুণ৷ সুইজারল্যান্ডে গিয়ে পরিচয় হয় তরুণদার সঙ্গে৷ ওনার বাড়ি নারায়ণগঞ্জে৷ দেশ ছেড়েছেন আজ থেকে ২২ বছর  আগে৷ চার বছর আগে বৈধ কাগজপত্র হয়েছে তার৷ কিন্তু এই সময়ে বাবা-মা মারা গেছেন, মারা গেছেন বড় এক ভাই৷ অথচ বৈধ কাগজ না থাকায় দেশে ফেরা হয়ে ওঠেনি তার৷ ২২ বছর আগে ভারতের এক দালালের মাধ্যমে নরওয়েতে এসেছিলেন জানুয়ারি মাসে৷ ১২ লাখ টাকায় ভারতের পাসপোর্ট-ভিসাসহ সব কিছুর ব্যবস্থা করেছিল দালালটি৷ তাদের দলে ছিল ৭ জন৷ তিনি এইচএসসি পাস করে পড়ালেখায় মন বসাতে পারেননি৷ তাই ইউরোপে আসার স্বপ্ন দেখেছিলেন৷ বাবা-র কাছ থেকে অনেকটা ‘ইমোশনাল ব্ল্যাকমেইল’ করে টাকা আদায় করেছিলেন৷ তার দলে বাকিরা বেশ শিক্ষিত৷ কেউ অনার্স পাস করেছে, কেউবা ডিগ্রি৷ এর মধ্যে ভারতের ছেলে রতনের সঙ্গে তার ভাব হয়ে যায়৷ তারা একই ফ্লাইটে পাশাপাশি বসে প্রচণ্ড ঠান্ডার মধ্যে নরওয়েতে পৌঁছান৷

দালাল আগেই বলে দিয়েছিল, নরওয়ে পৌঁছেই পাসপোর্ট ছিঁড়ে ফেলে দিতে৷ তাই করেছিলেন৷ ফলে ইমিগ্রেশনে গেলে পুলিশ ধরে জেলে নিয়ে যায়৷ দালাল লোকটি বলে দিয়েছিল মুখ দিয়ে একটাও শব্দ করা যাবে না৷ অর্থাৎ, পুলিশ যাতে বুঝতে না পারে কোন দেশি৷ বিভিন্ন দোভাষী এনেও তরুণদার মুখ থেকে একটা শব্দ উদ্ধার করতে পারলো না তারা৷ কিন্তু রতনের মুখ ফস্কে ইংরেজি ভাষা বের হয়ে গেল৷ এরপর তাদের আলাদা রাখা হলো৷ তখন থেকে রতনের আর খবর জানেন না তিনি৷ প্রায় বছর খানেক সেখানকার জেলে রেখে একসময় তাকে একটা বিশেষ কাগজ ধরিয়ে দেশে পাঠানোর সব ব্যবস্থা পাকা করা হয়৷ কিন্তু তিনি দেশে ফিরতে রাজি ছিলেন না৷ সড়কপথে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে পালিয়ে যান ডেনমার্ক৷ এরপর নানা দেশ ঘুরে ১৮ বছর পর পর্তুগালে গিয়ে অবশেষে বৈধ কাগজপত্র করতে পারেন৷ এর তিনবছর পর সুইজারল্যান্ডে এসে থিতু হন৷ বর্তমানে একটা হোটেলে কাজ করছেন৷

তিনি যখন আমাদের কাছে এই গল্প করছিলেন, তখন কখনো তার মুখে আনন্দ কখনো বা বিষাদ খেলা করছিল, চোখের কোণে কখনো ঝিলিক দিচ্ছিল জল৷ বলছিলেন বিস্তারিত বলতে গেলে অনেক সময় লাগবে, আর আমাদের হাতে এত সময়ও ছিল না৷ বললেন, তার জীবনে যেসব ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে, যে কষ্টের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে, তা সিনেমাকে হার মানায়৷ তবে এ কথা স্বীকার করলেন, এভাবে না এসে যদি বৈধ পথে আসতেন, তাহলে বাবা-মাকে অন্তত শেষ দেখাটা দেখতে পেতেন৷ এতদিন দেশে না গিয়ে থাকতে হতো না৷

এটা গেল মাত্র একজন বাংলাদেশির কথা৷ এমন কত শত বাংলাদেশি পুরো ইউরোপ জুড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন একটি দেশে আশ্রয়ের আশায়৷ বসনিয়ার কথা আপনারা সবাই জানেন৷ এইসব অভিবাসন-প্রত্যাশী কিন্তু বেশ শিক্ষিত৷ ১৫ থেকে ১৮ লাখ টাকা খরচ করে দালাল ধরে ইউরোপ পাড়ি দিয়েছেন৷ অথচ চাইলেই এর চেয়ে কম টাকায় ভাষা শিখে কোনো একটি বিশেষ কাজে প্রশিক্ষণ নিয়ে বৈধ পথে ইউরোপের কোনো দেশে আসা সম্ভব ছিল তাদের পক্ষে৷ হয়ত বলবেন ভাষা শেখাটা সহজ নয়৷ তাহলে আমি বলবো, এখন তারা যে পরিস্থিতিতে আছেন সেটা কি সহজ! আর ইটালিতে ঘুরতে গিয়ে আমি দেখেছি অনেক স্বল্প শিক্ষিত বাংলাদেশিরা কয়েক বছরেই চমৎকার সেদেশের ভাষায় কথা বলেন৷ অর্থাৎ, আপনি যে কাজটা এখানে আসার পর করতে বাধ্য, সেটা আগে থেকে করলে ঝঞ্ঝাটমুক্তভাবে সম্মানের সাথে থাকার সুযোগ পাবেন৷

এই যেমন ধরুন জার্মানিতে গত বছর অভিবাসনের যে নতুন আইন করা হয়েছে, তাতে কত সুবিধা আছে৷ এদেশে ৮ কোটি মানুষের মধ্যে দুই কোটি ৮০ লাখ মানুষ ষাটোর্ধ্ব৷ ফলে এখানে তরুণ জনশক্তির অভাব রয়েছে৷ জার্মানিতে ১০ লাখের বেশি দক্ষ শ্রমিকের অভাব রয়েছে৷ এই ঘাটতি পূরণে নতুন অভিবাসন আইন করা হয়, যা ২০২০ সালের ১ মার্চ থেকে কার্যকর হয়েছে৷

নতুন আইনে যা আছে

১. নতুন আইনে বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ ডিগ্রিধারীদের পাশাপাশি কারিগরি প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের জন্যও আবেদনের সুযোগ আছে৷ তবে এই প্রশিক্ষণের মেয়াদ কমপক্ষে দুই বছরের হতে হবে এবং এই ডিগ্রি জার্মান ডিগ্রির সমান বলে অনুমোদিত হতে হবে৷

২. সার্টিফিকেট ঠিক আছে কিনা তা জার্মান শ্রম মন্ত্রণালয়ের ইনফরমেশন পোর্টালে গিয়ে যাচাই করে দেখা যাবে৷ কীভাবে যাচাই করা যাবে তার ব্যাখ্যা পাওয়া যাবে ‘মেক ইট ইন জার্মানি’ ওয়েবসাইটে

৪. ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাইরে বসবাসকারীরাও জার্মানিতে চাকরির আবেদন করতে পারবেন৷

৫. কারিগরিশিক্ষার যে লেভেল ঠিক করা হয়েছে, তার চেয়ে কম যোগ্যরা চাকরির আবেদন করতে না পারলেও অভিবাসনের চেষ্টা করতে পারবেন৷ তবে শর্ত হচ্ছে, জার্মানির কোনো চাকরিদাতার কাছ থেকে তাদের চাকরির প্রস্তাব পেতে হবে৷ সেক্ষেত্রে চাকরিদাতাকে আবেদনকারীর জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে এবং দুই বছরের মধ্যে তিনি যেন পেশাদার পর্যায়ের সার্টিফিকেট পেতে পারেন, তা নিশ্চিত করতে হবে৷

৬. যারা চাকরির সুযোগ পাবেন, তাদের চার বছর কিংবা চাকরির মেয়াদ পর্যন্ত ভিসা দেওয়া হবে৷ চার বছর পর তারা স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতির জন্য আবেদন করতে পারবেন৷

৭. জার্মান ভাষায় বি২ লেভেল পর্যন্ত দক্ষতা ও নিজের খরচ বহনের সামর্থ্য থাকলে জার্মানিতে এসে চাকরি খোঁজার অনুমতিও পাওয়া যাবে৷

৮. ৪৫ বছরের বেশি বয়সি আবেদনকারীদের মাসে কমপক্ষে ৩,৬৮৫ ইউরো আয় করতে হবে৷

অমৃতা পারভেজ, ডয়চে ভেলে

অমৃতা পারভেজ, ডয়চে ভেলে

৯. জার্মানিতে যেসব খাতে দক্ষ জনশক্তির অভাব প্রকট, যেমন চিকিৎসা, তথ্যপ্রযুক্তি, নার্সিং, সেসব ক্ষেত্রে আইন একটু শিথিল করা হয়েছে৷ অর্থাৎ, আবেদনকারীর যদি অন্তত পাঁচবছরের চাকরির অভিজ্ঞতা থাকে, তাহলে জার্মান কর্তৃপক্ষের দ্বারা সার্টিফিকেট যাচাইয়ের যে শর্ত, তার আর প্রয়োজন পড়বে না৷

১০. যারা চাকরি পাবেন, তারা স্বামী-স্ত্রী ও সন্তানদের জার্মানি নিয়ে আসতে পারবেন৷ অবশ্য সেক্ষেত্রে পরিবারের সদস্যদের খরচ চালানোর সামর্থ্যের প্রমাণ দিতে হবে৷

জার্মানিতে প্রায় সাত বছর থাকার পর এটা সহজেই বুঝতে পারি বৈধভাবে বিদেশে থাকাটা কত সম্মানের৷ বৈধভাবে অর্থ উপার্জন করছি, জার্মান সরকারকে ট্যাক্স দিচ্ছি, ফলে দুই বছরের মধ্যে পারমানেন্ট রেসিডেন্ট কার্ড পেয়ে গেছি৷ বি-২ পর্যায়ে ভাষা শেখা শেষ৷ এখন চাইলেই নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করতে পারি৷ তাই রাস্তায় যখন দু-একজন বাংলাদেশিকে দেখি বোতল কুড়াতে, তখন সত্যিই কষ্ট লাগে৷ নিজেদের সর্বস্ব বিক্রি করে সুন্দর জীবনের আশায় ইউরোপ পাড়ি দিয়ে এ কেমন জীবন কাটাচ্ছেন তারা!

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়