বেলজিয়ামের বিস্ময় বালক স্নাতকের আগেই বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়ছে! | বিশ্ব | DW | 11.12.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

বেলজিয়ামের বিস্ময় বালক স্নাতকের আগেই বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়ছে!

দশম জন্মদিনের আগেই স্নাতক হয়ে গড়বেন বিশ্ব রেকর্ড৷ গত মাসেই এভাবে সংবাদ শিরোনাম হওয়া বেলজিয়ামের লরাঁ সিমোঁসকে কিনা এখন বিশ্ববিদ্যালয়ই ছাড়তে হচ্ছে৷

স্নাতক পরীক্ষার তারিখ নিয়ে মতপার্থক্যের জেরে নেদারল্যান্ডসের আইন্ডহোফেন ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি ছাড়তে বাধ্য হচ্ছেন লরাঁ৷

কারণ, স্নাতক শেষ করতে লরাঁর এখনো যতগুলো পরীক্ষা বাকি তা ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করা সম্ভব নয় বলে মত  বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের৷

নয় বছরের লরাঁ গত মাসেই আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে সংবাদের শিরোনাম হয়েছিলেন৷ বলা হয়েছিল, আগামী ২৬ ডিসেম্বর দশম জন্মদিনের আগেই এই বালক আইন্ডহোফেন ইউনির্ভাসিটির তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগ থেকে স্নাতক সম্পন্ন করতে যাচ্ছেন৷ সেটা হলে তিনি হতেন বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ স্নাতক ডিগ্রিধারী৷ 

কিন্তু এখন ডিগ্রি পাওয়া দূরে থাক, ডিসেম্বরের মধ্যে পরীক্ষা শেষ করা নিয়েই তো গণ্ডগোল৷

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সোমবার লরাঁ ও তার বাবা-মাকে ডেকে পরীক্ষার তারিখ নিয়ে তাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন সম্ভব নয় বলে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে৷

তারা বলেন, ''লরাঁ ঈশ্বরের বিশেষ উপহার৷ সে অভূতপুর্ব গতিতে তার লেখাপড়ায় এগিয়ে যাচ্ছে৷ তারপরও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বিশ্বাস তাকে এখনো যতগুলো পরীক্ষায় পাস করতে হবে, সেটা ২৬ ডিসেম্বরের মধ্যে সম্পন্ন করা সম্ভব হবে না৷''

বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লরাঁকে পরীক্ষার যে সম্ভাব্য সময়সূচী দিয়েছে তাতে সব শেষ করতে আগামী বছর মাঝামাঝি হয়ে যাবে৷

যদিও এ যুক্তি মানতে নারাজ লরেন্টের বাবা-মা৷ তারা বলছেন, ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ই যথেষ্ট৷ তাই তারা আইন্ডহোফেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রস্তাব গ্রহণ না করার এবং ছেলেকে সেখান থেকে সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন৷

লরাঁর বাবা মঙ্গলবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ''গত সপ্তাহেও সব ঠিক ছিল৷ অথচ এখন তারা ছয় মাস বেশি সময় লাগার কথা বলছে৷

''লরাঁর পরীক্ষা তারিখ কখনোই ধর্তব্যের মধ্যে ছিল না৷ আজই দুইটি বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয় তার ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছে এবং এখনো আমাদের হাতে যথেষ্ট সময় আছে৷''

লরাঁর বাবা বেলজিয়ান এবং মা ডাচ৷ শিশু বয়সে দাদা-দাদীর কাছে বেড়ে উঠা লরাঁ চার বছর বয়সে প্রাথমিক স্কুলে ভর্তি হন৷

বর্তমানে সবচেয়ে কম বয়সে স্নাতক ডিগ্রিধারী যুক্তরাষ্ট্রের মাইকেল করনি৷ ১৯৯৪ সালের জুনে মাত্র ১০ বছর চার মাস বয়সে স্নাতক সম্পন্ন করে তিনি গিনস বুকে নাম লেখান৷

এসএনএল (রয়টার্স, এপি)

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন