1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়
ছবি: DW/P. Samanta

ভারতে শিক্ষকদের আন্দোলন, প্রশ্ন

পায়েল সামন্ত কলকাতা
১৭ নভেম্বর ২০১৮

স্কুল চলাকালীন মিটিং-মিছিলে অংশ নেওয়া যাবে না৷ এমনই হুঁশিয়ারি দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়৷ তবে আন্দোলনকারীরা মনে করেন, এভাবে আসলে প্রতিবাদের কন্ঠরোধ করতে চাইছে সরকার৷

https://p.dw.com/p/38Pa4

পশ্চিমবঙ্গের প্রাথমিক শিক্ষকরা ন্যায্য বেতনের দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন৷ গত ২৯ ও ৩০ অক্টোবর কলকাতার শহীদ মিনারে বড় আকারের সমাবেশ করে প্রাথমিক শিক্ষকদের একটি সংগঠন৷ সেই সমাবেশে হাজির ছিলেন রাজ্যের বিরোধী দলের শীর্ষ নেতারা৷ এই সমাবেশের বিরুদ্ধে কড়া বার্তা দিয়েছে রাজ্য সরকার৷ এই সমাবেশের উল্লেখ না করলেও কাজের দিনে মিটিং-মিছিল করা নিয়ে যে হুঁশিয়ারি শিক্ষামন্ত্রী দিয়েছেন, তা ২৯ ও ৩০ অক্টোবরের সভা সম্পর্কে বলেই অনেকে মনে করেছেন৷

ওই সমাবেশের পর তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষকদের সংগঠনের সঙ্গে এক বৈঠকে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘সমাবেশ করতে হলে ছুটির দিনে করুন৷ ক্লাসের সময় নয়৷'' শুধু অনুরোধেই বিরত থাকেননি শিক্ষামন্ত্রী৷ তিনি বলেছেন, ‘‘স্কুলে অনুপস্থিত থেকেও পরে হাজিরা খাতায় সই করে দেবেন, ক্লাস কামাই করবেন, এসব মেনে নেওয়া হবে না৷ জেলা পরিদর্শক ও প্রশাসনকে এ বিষয়ে নজর রাখতে বলা হয়েছে৷ নির্দেশ অমান্য হলে শিক্ষকদের বেতন কেটে নেওয়া হবে৷''

কার্তিক মান্না

শিক্ষামন্ত্রীর এই বক্তব্যের নেপথ্যে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য আছে বলে অনেকে মনে করছেন৷ বঙ্গীয় প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির প্রাক্তন সভাপতি ও অল বেঙ্গল স্টেট এডুকেশন কমিটির সাধারণ সম্পাদক কার্তিক মান্না বলেন, ‘‘এ সব বাজে কথা৷ এই বাহানা করে আন্দোলন বন্ধ করার চেষ্টা৷ এর সঙ্গে বাস্তবের কোনো সম্পর্ক নেই৷ ছুটির দিনে আন্দোলন হয় না৷ প্রশাসনিক দপ্তর বা মন্ত্রীর অফিস, সবই তখন বন্ধ থাকে৷ তাই ছুটির দিন আন্দোলন করার পরামর্শ দেওয়া যায় না৷ শিক্ষকেরা ছুটি নিয়েই আন্দোলনে যোগ দেন৷ তাঁরা স্কুল কামাই করেন, অথচ হাজিরা খাতায় সই করে দেন, এটা হয় না৷''

যে শিক্ষক সংগঠনের সমাবেশ নিয়ে এত কথা উঠছে, তার নাম ‘উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন'৷ এই সংগঠনের রাজ্য সম্পাদিকা পৃথা বিশ্বাস বলেন, ‘‘আমাদের সভার দিন দুটি সোম ও মঙ্গলবার হলেও তা পুজোর ছুটির মধ্যেই পড়েছিল৷ তখনই আমাদের সমাবেশ হয়েছিল৷ কোনো শিক্ষক স্কুল কামাই করে সমাবেশে আসেননি৷''

ওই সমাবেশে উপস্থিত হয়েছিলেন বিধানসভায় বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী৷ তিনি তাঁদের দাবি তুলে ধরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠিও লিখেছেন৷ সুজন চক্রবর্তী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘সোম ও মঙ্গল হলেও পুজোর ছুটি ছিল৷ উনি যা বলেছেন, সেটা ওঁর দলই মানে না৷ যারা বিধানসভা ভাঙচুর করে, যারা চালু শিল্প নষ্ট করে, যারা প্রতিদিন একটা করে শিল্প বন্ধ করে দেয়, তাদের কাছ থেকে এসব জ্ঞানের কথা শোনার মানে হয় না৷''

পশ্চিমবঙ্গে শিক্ষকদের কর্মসংস্কৃতি নিয়ে অভিযোগ প্রায়ই শোনা যায়৷ তাঁরা প্রায়ই ক্লাসের সময়ে মিটিং-মিছিলে যোগ দেন৷ ক্লাসের পঠনপাঠনে তাঁদের আন্তরিকতা নেই বলেও অভিযোগ করেন অনেকে৷ দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে এই পরম্পরা৷ কিন্তু, কেন শিক্ষকদের প্রায়ই মিছিল বা সমাবেশ করতে হয়? পৃথা বিশ্বাস বলেন, ‘‘বেতন কাঠামোর সে অর্থে কোনো পরিবর্তন হয়নি৷ যোগ্যতামান অর্জন করেও আমাদের ন্যায্য বেতন দেওয়া হচ্ছে না৷ শিক্ষার অন্যান্য ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় হারে বেতন কাঠামো নির্ধারণ করা হয়েছে৷ শুধুমাত্র প্রাথমিক শিক্ষকদের ক্ষেত্রেই এই কাঠামো প্রায় আর্ধেক৷''

শিক্ষক সংগঠনগুলির মধ্যে অবশ্য বেতন বৃদ্ধির দাবি নিয়ে পরস্পরবিরোধ রয়েছে৷ পৃথা যা মনে করছেন, তার সঙ্গে পুরোপুরি একমত নয় শাসকদলের শিক্ষক সংগঠন৷ পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কৃষ্ণেন্দু বিষই বলেন, ‘‘দাবি তোলার অধিকার সকলেরই আছে৷ কিন্তু অন্যায় দাবি করা উচিত নয়৷ কেন্দ্রীয় সরকারের স্কেল অনুযায়ী বেতন দেওয়া সম্ভব নয়, রাজ্য সরকারের সীমাবদ্ধতার কথাও বুঝতে হবে৷ তার থেকে বড় কথা, বেতন কমিশন কাজ করছে৷ তারা শিক্ষকদের বেতনের বিষয়টিও খতিয়ে দেখছে৷ আশা করি, ইতিবাচক কিছু হবে৷'' তাঁর মতে, ‘‘স্কুল চলাকালীন শিক্ষকদের সভা-সমাবেশ করা ঠিক নয়৷ এতে পঠনপাঠনের ক্ষতি হয়৷ ছাত্রদের স্বার্থে পড়াশোনার সময় আন্দোলন করা অনুচিত৷ শিক্ষামন্ত্রী যা বলছেন, তা ভেবেচিন্তেই বলছেন, এটা বলার অধিকার তাঁর আছে৷ দল থেকে আমাদের পরিষ্কার নির্দেশ দেওয়া আছে, শনিবার স্কুল ছুটির পর সভা করা যেতে পারে৷''

সংশ্লিষ্টদের মতে, শিক্ষকদের মনে অনেকদিন ধরেই নানা বিক্ষোভ জমা হয়েছে৷ তা সে ডিএ বৃদ্ধি হোক বা স্পোর্টসের অনুদান হোক, সব ক্ষেত্রেই শিক্ষকেরা বঞ্চিত৷ তবে পৃথা বিশ্বাস বলেন, ‘‘আমরা রাজনীতির মধ্যে নেই৷ প্রায়ই যে মিছিল বা সভা করি, এমনটা নয়৷ এটা আমাদের শুধু বেতনের ব্যাপার নয়, সম্মানেরও ব্যাপার৷''

শিক্ষামন্ত্রীর বেতন কেটে নেওয়ার বার্তা শুনে কার্তিক মান্না বলেন, ‘‘ছুটি নিয়ে আন্দোলনে গেলে বেতন কাটার প্রশ্ন আসে না৷ তাহলে পরিষ্কার করেই বলুন যে, আন্দোলন করতে দেবো না৷ সে কারণেই বেতন কাটার প্রশ্ন আসছে৷ আসলে এটা যে জবরদস্তি আন্দোলন বন্ধ করার চেষ্টা, সেটা বোঝা যাচ্ছে৷''

আগামী ২৫ নভেম্বর কনভেনশনের ডাক দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি৷ দিনটি রবিবার৷ সরকারপন্থি শিক্ষকেরা শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশ অনুসরণ করছেন৷ এটিকে আগের জমায়েতের পালটা হিসেবেই দেখা হচ্ছে৷ তাহলে কি শুধু রবিবারই আন্দোলনের কর্মসূচি নিতে হবে? সুজন চক্রবর্তী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘পাগলের মতো কথা বলছে৷ দাদাগিরি ও চোখ রাঙানোই একমাত্র কাজ তৃণমূলের৷ স্কুলের চৌকাঠ যারা মাড়ায়নি, তারা স্কুল-কলেজের শিক্ষা নিয়ে মাতব্বরি করবে, শিক্ষকদের হুমকি দেবে, এটাই আমাদের রাজ্যে দস্তুর৷''

সুজন চক্রবর্তী

বাম নেতার ক্ষোভ, ‘‘ভারতের মধ্যে সবচেয়ে কম বেতন পান পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষকেরা৷ সে ফুলটাইম হোক বা পার্টটাইম, প্যারাটিচার হোক বা চুক্তিভিত্তিক শিক্ষক, এসএসকে হোক বা শিক্ষাবন্ধু — যে সরকার টাকা দেয় না, কর্মচারী- মাস্টারমশাইদের টাকা লুঠ করে মেলা-খেলা করে, তাদের এই হুমকি মেনে নেওয়া যায় না৷''

শিক্ষকরা যে দীর্ঘদিন ধরেই ক্লাসের সময়েই মিটিং মিছিল করেন, এটা অসংখ্য অভিভাবকের অভিজ্ঞতা৷ বারাসতের সঞ্জয় বিশ্বাস ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এটা আজকের কাল্ট নয়, বহুযুগ আগের৷ ছুটির দিন বাড়িতে থাকবেন শিক্ষকরা৷ স্কুলের দিন মিছিল করবেন৷ বাম আমল থেকেই এটা ছিল৷ শিক্ষামন্ত্রীর কথায় ভুল নেই, তবে হঠাৎ কী উদ্দেশ্যে তিনি এটা বললেন, সেটাও ভেবে দেখার বিষয়৷ তবে পরিস্থিতি দ্রুত বদলাবে বলে মনে হয় না৷''

পায়েল সামন্তের এই লেখাটা আপনার কেমন লাগলো? জানান নীচের ঘরে৷

স্কিপ নেক্সট সেকশন এই বিষয়ে আরো তথ্য

এই বিষয়ে আরো তথ্য

আরো সংবাদ দেখান
স্কিপ নেক্সট সেকশন সম্পর্কিত বিষয়
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

উপনির্বাচনে ভোটারের উপস্থিতি কম, কেন্দ্র দখলের অভিযোগ

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান