বেজিং অলিম্পিক: কূটনৈতিক বয়কটে অস্ট্রেলিয়াও | বিশ্ব | DW | 08.12.2021

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অস্ট্রেলিয়া

বেজিং অলিম্পিক: কূটনৈতিক বয়কটে অস্ট্রেলিয়াও

অ্যামেরিকার পর অস্ট্রেলিয়াও বেজিং অলিম্পিক কূটনৈতিক স্তরে বয়কটের কথা জানিয়ে দিল।

সোমবার জানিয়েছিল অ্যামেরিকা, মঙ্গলবার অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন সাংবাদিক সম্মেলন করে জানিয়ে দিলেন, বেজিংয়ে শীতকালীন অলিম্পিকে অস্ট্রেলিয়া  কোনো সরকারি অফিসারকে পাঠাবে না। চীনের মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে কূটনৈতিক দূরত্ব তৈরি করাই এর কারণ। তবে ৪০ জন খেলোয়াড় বেজিং অলিম্পিকে অংশ নেবেন বলেও জানানো হয়েছে।

অ্যামেরিকা সরাসরি 'গণহত্যা' শব্দটি ব্যবহার করেছিল চীনের বিরুদ্ধে। অস্ট্রেলিয়া তা ব্যবহার না করলেও একই বিষয় উত্থাপন করেছে। অস্ট্রেলিয়ার অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে চীন মানবাধিকার লঙ্গন করছে। দেশের মানুষের বিরুদ্ধে কড়া এবং অসহিষ্ণু ব্যবহার করছে। আন্তর্জাতিক মঞ্চে এ বিষয়ে কথা বলতেও চায়নি তারা। একইসঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার বক্তব্য, অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে কূটনৈতিক চ্যানেলেও কথা বলতে চায় না চীন। একাধিক বিষয়ে অস্ট্রেলিয়া তাদের সঙ্গে কূটনৈতিক চ্যানেলে কথা বলতে চেয়েছে, কিন্তু চীন গুরুত্ব দেয়নি। এরই প্রতিবাদে তারা বেজিং অলিম্পিক কূটনৈতিক স্তরে বয়কট করছে।

চীন-অস্ট্রেলিয়া সম্পর্ক

অস্ট্রেলিয়ায় চীনের বিশাল বাজার। অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে বড় বাণিজ্য পার্টনার চীন। তবে ২০১৮ সাল থেকে দুই দেশের বাণিজ্য সম্পর্ক ক্রমশ খারাপ হতে শুরু করে। করোনাকালে তা আরো খারাপ হয়। অন্যদিকে, তাইওয়ান এবং হংকং নিয়েও সরব অস্ট্রেলিয়া। দক্ষিণ চীন সাগর এবং প্রশান্ত মহাসাগরীয় রাজনীতিতে চীনের একাধিপত্য বন্ধ করতে অ্যামেরিকার সঙ্গে হাত মিলিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ফলে কূটনীতিকরা মনে করছেন, অ্যামেরিকার ঘোষণার পরেই বেজিং অলিম্পিক বয়কটের যে সিদ্ধান্ত অস্ট্রেলিয়া নিল, তা চীন ভালো চোখে দেখবে না। অ্যামেরিকার বিরুদ্ধে মঙ্গলবারই সরব হয়েছিল চীন। তবে অস্ট্রেলিয়ার সিদ্ধান্তের পর এখনো তারা কোনো মন্তব্য করেনি।

এসজি/জিএইচ (রয়টার্স, এপি)