বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবি: মালিকের বিরুদ্ধে মামলা | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 30.06.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবি: মালিকের বিরুদ্ধে মামলা

ঢাকার বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবির ঘটনায় ময়ূর-২ লঞ্চের মালিক ও মাস্টারসহ সাতজনের বিরুদ্ধে ‘অবহেলাজনিত মৃত্যু' ঘটানোর অভিযোগে মামলা করেছে পুলিশ৷

নৌপুলিশের এসআই শামছুল আলম মঙ্গলবার ভোর রাতে দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ থানায় মামলাটি করেন বলে জানায় বাংলাদেশে ডয়চে ভেলের কনটেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম৷

ওই মামলায় ময়ূর-২ লঞ্চের মালিক মোসাদ্দেক হানিফ সোয়াদ, মাস্টার আবুল বাশার, মাস্টার জাকির হোসেন, স্টাফ শিপন হাওলাদার, শাকিল হোসেন, হৃদয় ও সুকানি নাসির মৃধার নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত পরিচয়ের আরো কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে৷

এদিকে, ডুবে যাওয়া এমএল মর্নিং বার্ড নামের লঞ্চটি থেকে মঙ্গলবার দুপুরে আরো একটি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়৷ মৃতদেহটি একজন পুরুষের, তবে তার পরিচয় পাওয়া যায়নি৷

সোমবার সকালে মুন্সিগঞ্জের কাঠপট্টি থেকে যাত্রী নিয়ে মর্নিং বার্ড সদরঘাটের দিকে আসছিল৷ শ্যামবাজারের কাছে বুড়িগঙ্গায় ময়ূর-২ নামের আরকটি বড় লঞ্চের ধাক্কায় সেটি ডুব যায়৷ ওই দিন দুপুর পর্যন্ত ৩০টি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়৷ আরো দুইজনকে হাসপাতালে নেওয়া পর চিকিৎসকরা তাদের মৃত ঘোষণা করেন৷ মঙ্গলবার উদ্ধার মৃতদেহ নিয়ে এখন মোট মৃত্যু ৩৩ জন৷

একজনকে জীবিত উদ্ধার:

ডুবে যাওয়ার প্রায় ১৩ ঘণ্টা পর এমএল মর্নিং বার্ডের ভেতর থেকে একজনকে জীবত উদ্ধার করা হয়েছে৷ তিনি কিভাবে ডুবে যাওয়া জাহাজের ভেতর দীর্ঘ সময় জীবিত ছিলেন তা নিয়ে হইচই পড়ে গেছে৷

উদ্ধার ওই ব্যক্তির নাম সুমন ব্যাপারী (৩৫)৷ তিনি মিটফোর্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন৷

এসএনএল/ (বিডিনিউজ টোয়িন্টফোর ডটকম)

২০১৯ সালের জানুয়ারির ছবিঘর দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন