1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান

বিড়ালের গলায় ঘণ্টা বাঁধার কেউ নেই

এম আবুল কালাম আজাদ
২ ডিসেম্বর ২০২২

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে দুর্ধর্ষ ব্যাংক ডাকাতির ঘটনা আমরা জানি৷ অভিনব কায়দায় কোথাও সুড়ঙ্গ তৈরি করে, আবার কোথাও কর্মকর্তাদের জিম্মি করে বা অস্ত্র নিয়ে হামলা করে ব্যাংক লুট করা হয়েছে৷

https://p.dw.com/p/4KP3T
বাংলাদেশ ব্যাংক
দেশের সবচেয়ে বড় ব্যাংক থেকে ঋণের নামে বিপুল অঙ্কের অর্থ বের হওয়ার পর হঠাৎ তৎপর হয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক৷ছবি: Reuters/A. Rahman

যেমন, ২০০৫ সালে ব্রাজিলে ২৫ জনের একটি ডাকাত দল মাটির নীচে ২৫০ মিটার সুড়ঙ্গ কেটে একটি ব্যাংকে প্রবেশ করে৷ তারা ৭১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার লুট করে৷ গিনেসবুকে স্থান পাওয়া ওই ডাকাতির ঘটনায় পুলিশ ৮ জনকে আটক করে ২০ মিলিয়ন ডলার উদ্ধার করেছিল৷

এর আগে ১৯৮৭ সালে লন্ডনে এক দুর্ধর্ষ ডাকাতি হয়৷ ভল্ট ভাড়া নেয়ার নাম করে ডাকাতরা অস্ত্র নিয়ে কিংস্টন সিকিউরিটি ডিপোজিট কেন্দ্রে ঢুকে ৯৭ মিলিয়ন ডলার লুট করে নিয়ে যায়৷ পরবর্তীতে ডাকাত দলের প্রধানকে আটক করা হয়৷

এমন ডাকাতির ঘটনায় থাকে মৃত্যু বা ধরা পড়ার ঝুঁকি৷ তবে ব্যাংকের লোক বা ক্ষমতার বলয়ের কেউ জড়িত থাকলে ঝুঁকি কম থাকে, ফলে সফলভাবে ডাকাতি করে পালিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়৷

এ রকম দুর্ধর্ষ না হলেও ২০০৮ সালে বেশ অভিনব কায়দায় বড় ধরনের ডাকাতি হয় ব্র্যাক ব্যাংকে৷ শুক্রাবাদে হোটেল নিদমহল ভবনের দোতলায় ছিল ব্যাংকের শাখা৷ ভুয়া নাম, ঠিকানা ব্যবহার করে ব্যাংকের ঠিক উপরের চারটি রুম ভাড়া নেয় ডাকাত দল৷ একটি রুমে প্রতিরাতে একটু একটু করে ছাদ কেটে গর্ত করে৷ প্রায় মাস খানেক পর ঐ গর্ত দিয়ে ব্যাংকে ঢুকে ৬০টি ভল্টে থাকা সোনার গহনাসহ মূল্যবান জিনিস নিয়ে সটকে পড়ে৷

সে সময় আলোড়ন সৃষ্টি করা ডাকাতির ঘটনায় পুলিশ পাঁচ জনকে আটক করে৷ বেশ কিছু স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করারও সম্ভব হয়েছিল৷

কিন্তু বাংলাদেশে ব্যাংক লুট করতে এমন সব অভিনব কায়দা বা সশস্ত্র হামলার প্রয়োজন হয় না৷ প্রভাবশালী ব্যবসায়ী হলে আর ক্ষমতাসীনদের সাথে হট কানেকশন থাকলে সুদের নামে ব্যাংক থেকে বিলিয়ন ডলার তুলে নেয়া কোনো ব্যাপার না৷

ইসলামী ব্যাংক থেকে যেভাবে নামে-বেনামে হাজার হাজার কোটি টাকা ঋণ দেয়া হচ্ছে, সেটাকে এক ধরনের ডাকাতিই বলা যায়৷ কেননা, এর বড় এক অংশ ইতিমধ্যেই বিদেশে পাচার হয়েছে৷ আর বাকিটা হয়ে যাবে খেলাপি, অর্থাৎ ফেরত না দিলেও চলবে৷ আবার টাকা উদ্ধারের জন্য লুটেরাদের কাউকে আটক করার সম্ভাবনাও কম৷

কিছু ব্যবসায়ী ব্যাংক থেকে অনেক বছর ধরেই টাকা নিয়ে ফেরত দেয় না৷ তারা জোট বেঁধেছে ক্ষমতাসীন কিছু মানুষের সাথে৷

ড. কামাল হোসেন এমনটাই বলেছেন সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে৷ তার মতে, আর্থিক খাতে দুর্নীতিগ্রস্তদের বিচারহীনতায় অর্থপাচার, লুটপাট মহামারি আকার ধারণ করছে৷ তিনি অভিযোগ করেন, সরকারের অনেকে বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার আগে টাকা পাচার করছে৷  

মজার ব্যাপার হলো, এই চক্র প্রয়োজনে ব্যাংক দখলে নিতেও দ্বিধা করে না৷ যেমন, ২০১৭ সালে ইসলামী ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণনেয় এস আলম গ্রুপ৷ পরিচালনা পর্ষদে বসানো হয় নিজেদের লোক৷ পরিকল্পনা কষেই তা করা হয়েছিল, যেন ঋণের নামে হাজার কোটি অনায়াসে বের করে আনা যায়৷ ঘটেছেও তাই৷

ইসলামী ব্যাংক নিয়ন্ত্রণে নেয়ার পরেও বছর, অর্থাৎ, ২০১৮ সালে ঋণ বেড়েছিল ৯ হাজার ৫০৩ কোটি টাকা৷ তিন বছরে মধ্যে ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় এক লাখ ৪৩ হাজার ৯৬৬ কোটি টাকা৷ এ থেকেই বোঝা যায় পরিকল্পনা মাফিক সব কিছু করা হয়েছে৷

এস আলম ছাড়াও আরেকটি ব্যবসায়ী গ্রুপকে (নাবিল গ্রুপ) অনিয়ম করে কয়েক হাজার কোটি টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে৷ নতুন করে গজিয়ে ওঠা আরো কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিকে বড় অংকের ঋণ দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়৷ অতি অল্প সময়ের মধ্যে এসব ঋণ দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়৷ এ থেকে বোঝা যায়, এর পেছনে রয়েছে একটি গোষ্ঠী, যারা ব্যাংক থেকে টাকা তুলে সটকে পড়তে চায়৷

অন্যদিকে, এই চক্রের সাথে যেহেতু সরকারের একটি মহলের আঁতাত হয়, ফলে তাদের কেউ কিছু বলার সাহস করে না৷ যেমন, বাংলাদেশ ব্যাংক চাইলে অনেকভাবে এসব ঋণ প্রদান ঠেকাতে পারে৷ কিন্তু নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসাবে তাদের হাত-পা বাঁধা৷

শুধু তাই না, ইসলামী ব্যাংক থেকে মোটা অংকের টাকা সরাতে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদে পর্যবেক্ষক ২০২০ সালের মার্চে প্রত্যাহার করে বাংলাদেশ ব্যাংক৷ এরপর দ্রুত ঋণ বৃদ্ধি করে ইসলামী ব্যাংক, যার বড় অংশ দেয়া হয় অনিয়ম করে, নামে-বেনামে৷

ব্যাংক কোম্পানি আইনে কোনো ব্যাংক একক ব্যক্তি গ্রুপকে মোট মূলধনের সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ সমপরিমাণ ঋণ দিতে পারে৷ গত জুন পর্যন্ত হিসাবে ইসলামী ব্যাংকের মূলধনের বিপরীতে একক ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে সর্বোচ্চ ২ হাজার ৫০৭ কোটি টাকা দিতে পারতো৷ কিন্তু এস আলম গ্রুপের কয়েক প্রতিষ্ঠানের ৩০,০০০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে৷ জানা যায়, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদনে তা দেয়া হয়েছে৷

নিউ এজ পত্রিকার এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, আইন ও নিয়ম-কানুন মানলে এস আলম ইসলামী ব্যাংক থেকে ঋণ পেতে পারে মাত্র ২১৫ কোটি টাকা৷ কিন্তু ক্ষমতা ও প্রভাব খাটিয়ে ঋণ নেয়ার ক্ষেত্রে সীমার বাইরে চলে গেছে গ্রুপটি৷

এম আবুল কালাম আজাদ, ডয়চে ভেলে
এম আবুল কালাম আজাদ, ডয়চে ভেলেছবি: privat

২০১৬ সালে সে সময়ের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এক অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, সোনালী ব্যাংকে ডাকাতি হয়েছে আর বেসিক ব্যাংকে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা লুটপাটের চেষ্টা চালিয়েছেন৷ কিন্তু কারো কিছু হয়নি৷

বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারির মূল হোতা কে তা সকলেরই জানা৷ তিনি ছিলেন ব্যাংকটির সাবেক চেয়ারম্যান শেখ আবদুল হাই বাচ্চু৷ কিন্তু দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারির সঙ্গে তার কোনো সম্পর্কই খুঁজে পায়নি৷ আবার হল-মার্ক কেলেঙ্কারির পর সোনালী ব্যাংক বড় বিপদে পড়ে, অথচ দুদক রহস্যের কোনো কিনারাই করতে পারেনি৷ হল-মার্ক ঘটনায় বর্তমান সাংসদ এক ব্যাংক পরিচালকের নাম থাকলেও দুদকের মামলায় তার নামই নেই৷

দেশের সবচেয়ে বড় ব্যাংক থেকে ঋণের নামে বিপুল অঙ্কের অর্থ বের হওয়ার পর হঠাৎ তৎপর হয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক৷ ঋণের নামে ব্যাংক থেকে নামে-বেনামে প্রচুর অর্থ বের করে নেওয়ার অভিযোগের তদন্ত শুরু করেছে৷ অথচ তারা জেনেও আগে পদক্ষেপ নেয়নি৷

ইসলামী ব্যাংকসহ অন্য যেসব ব্যাংক থেকে ঋণের নামে যেভাবে টাকা বেহাত হয়ে গেছে, তার সঠিক তদন্ত করে ফলাফল জনগণের সামনে প্রকাশ করা উচিত৷ উচিত যারা এর সাথে যুক্ত তাদের চিহ্নিত করে আইনি ব্যবস্থা নেয়া৷ তবে এমন আশা করলে নিরাশ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি৷ অতীতের উদাহরণ তাই বলে৷

যে দেশের অর্থমন্ত্রী আর্থিক বা ব্যাংক খাতে কোনো সমস্যা দেখে না, সেখানে ‘সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা কোনো টাকা না’ মন্তব্য করে, যেখানে দেশে সর্বোচ্চ আদালত ঋণ খেলাপি, ব্যাংক লুটেরা ও দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হওয়ার কারণে ক্ষোভ প্রকাশ করে, সেখানে বিড়ালের গলায় ঘণ্টা বাঁধার মতো কাউকে খুঁজে পাওয়া কঠিন৷

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ভূমিকম্পে বিধ্বস্ত সিরিয়ায় খালিহাতেই চলছে উদ্ধারকাজ

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান