বিশ্বে স্থূল শিশুর সংখ্যা বাড়বে | বিশ্ব | DW | 11.10.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

স্বাস্থ্য

বিশ্বে স্থূল শিশুর সংখ্যা বাড়বে

ধনী দেশগুলোতে শিশুদের স্থূলতার হার সবচেয়ে বেশি, কিন্তু উন্নয়নশীল দেশগুলোতেও শিশুরা স্থূল হয়ে যাচ্ছে৷ মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যভিত্তিক জনস্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সাময়িকী ল্যানসেটের নতুন এক গবেষণায় এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে৷

তবে বিশ্বে মোটা বা স্থূল শিশুদের তুলনায় পুষ্টিহীনতায় ভুগছে বা স্বাভাবিকের চেয়ে ওজন কম এমন শিশুর সংখ্যা বেশি৷  বর্তমানে বিশ্বে সাড়ে ৭ কোটি মেয়ে এবং ১১ কোটি ৭০ লাখ ছেলের ওজন স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম৷ কিন্তু বর্তমান অবস্থা চলতে থাকলে ২০২২ সাল নাগাদ স্থূল শিশুর সংখ্যা অপুষ্টিজনিত শিশুদের চেয়ে বেশি হবে৷

যুক্তরাজ্যের কয়েকজন বিজ্ঞানী এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যৌথভাবে ২ হাজার ৪০০টি গবেষণার তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে এই গবেষণা প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে৷ সেখানে ৫ থেকে ১৯ বছরের ৩ কোটি ২০ লাখ শিশুর ওজন ও উচ্চতা পরীক্ষা করা হয়েছে৷ ১৯৭৫ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত এ সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করে একটি ‘বডি মাস ইনডেক্স বিএমআই' বা সূচি তৈরি করা হয়েছে৷

এতে দেখা যাচ্ছে, উন্নত দেশগুলোতে সাম্প্রতিক সময়ে শিশুদের স্থূলতার হার অনেক বেশি৷ গত কয়েক বছরে শিশুদের স্থূলতার হার যুক্তরাজ্যে ১০ ভাগ এবং যুক্তরাষ্ট্রে ২০ ভাগ বেড়েছে৷

গবেষণা প্রতিবেদনটির অন্যতম লেখক লন্ডনের ইমপেরিয়াল কলেজের অধ্যাপক মাজিদ এজ্জাতি বলেন, ‘‘এটা শিশুদের জন্য মোটেও ভালো খবর নয়৷ এই হার বর্তমানে অনেক বেশি এবং এখনই এই সমস্যা সমাধানে পদক্ষেপ নেয়াটা জরুরি৷''  তিনি আরও বলেন, ‘‘স্কুল এবং বাড়িতে শিশুদের পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যকর খাবারের দিকে খেয়াল রাখতে হবে, বিশেষ করে দরিদ্র পরিবারগুলো যাতে অল্প খরচে স্বাস্থ্যকর খাবার পায়, সেদিকে নজর দিতে হবে৷''

এজ্জাতি এবং তাঁর গবেষণা দল দেখেছেন, এশিয়া, উত্তর আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যের কিছু অঞ্চলে শিশুদের স্থূলতার হার বাড়ছে৷ ১৯৭৫ সালে বিশ্বব্যাপী শিশু-কিশোরদের স্থূলতার হার ছিল মেয়েদের ক্ষেত্রে ৬ ভাগ এবং ছেলেদের ক্ষেত্রে ৮ ভাগ৷ বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ৫ কোটি মেয়ে এবং ৭ কোটি ৪০ লাখ ছেলে স্থূলতায় ভুগছে৷

অন্যদিকে, অপুষ্টিতে ভোগা শিশুদের সংখ্যা যেসব দেশে সবচেয়ে বেশি, বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান এবং আফগানিস্তান তাদের মধ্যে অন্যতম৷ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে ২০ ভাগ মেয়ে এবং ২৮ ভাগ ছেলে শিশু ভয়াবহ অপুষ্টিতে ভুগছে৷ এর ফলে তাদের দেহে খুব দ্রুত রোগ সংক্রমণ ঘটছে৷

গত চার দশকে সারা বিশ্বের শিশু–কিশোরদের মধ্যে স্থূলতার হার বেড়েছে ১০ গুণ৷ বর্তমানে বিশ্বের প্রায় সাড়ে ১২ কোটি শিশু-কিশোরের ওজন স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক বেশি৷

বিশ্বের ২০০টি দেশের ওপর এই গবেষণা চালানো হয়৷ এই স্থূল শিশু কিশোরেরা বড় হয়েও স্থূলই থেকে যাচ্ছে৷ স্থূল হওয়ার কারণে নানা ধরনের শারীরিক সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছে তারা৷ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ‘এন্ডিং চাইল্ডহুড ওবিসিটি কমিশন'ও শিশু-কিশোরদের জন্য স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর খাদ্য সরবরাহ নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছে৷ এছাড়া প্রতিদিন ৬০ মিনিট ব্যায়াম করা এবং স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকা বন্ধ করা বা নড়াচড়া কম করা অভ্যেস ছাড়ার পরামর্শও দিয়েছে তারা৷ এটিকে ‘বৈশ্বিক স্বাস্থ্য সংকট' হিসেবে উল্লেখ করে ডাব্লিউএইচও অবিলম্বে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে৷

ব্রিটেনের ন্যাশনাল ওবিসিটি ফোরামের চেয়ারম্যান ট্যাম ফ্রাই বলেছেন, ‘‘শিশুদের স্থূলতা রোধে এখনই কিছু করা না গেলে এই সমস্যা আরও প্রকট হবে এবং পরবর্তীতে তাদের ডায়াবেটিস দেখা দেবে৷''

এপিবি/এসিবি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন