বিশ্বের সংকটের আঁচ অ্যান্টার্কটিকার বিজ্ঞানীদের উপর পড়ে না | অন্বেষণ | DW | 03.02.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

বিশ্বের সংকটের আঁচ অ্যান্টার্কটিকার বিজ্ঞানীদের উপর পড়ে না

মানবজাতির সাধারণ সমস্যাগুলির সমাধানের জন্য আন্তর্জাতিক সহযোগিতা কাম্য হলেও চারিদিকে এত সংকটের মাঝে তার লক্ষণ দেখা যায় না৷ কিন্তু অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশে বিজ্ঞানী ও গবেষকরা সেই আদর্শ পরিবেশ সৃষ্টি করেছেন৷

অ্যান্টার্কটিকায় ভারতের গবেষণা স্টেশন (ফাইল ছবি)

অ্যান্টার্কটিকায় ভারতের গবেষণা স্টেশন (ফাইল ছবি)

অ্যান্টার্কটিকার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামার আগেই হিমবাহের উপর রানওয়ে চোখে পড়ে৷ ১০টি দেশের গবেষক তুষারে ঢাকা গ্রীষ্মকাল কাটাতে অ্যান্টার্কটিকায় যাচ্ছেন৷ বেলারুশের দলটি এ বছর বিশেষ বড় আকারের৷ সেই দলের সদস্য আলেক্সি জাভাটভ বলেন, ‘‘বেলারুশ এক বিশাল অ্যান্টার্কটিকা গবেষণা কর্মসূচি চালাচ্ছে৷ জীববিজ্ঞানী, মহাবিশ্বতত্ত্ববিদ, ভূপদার্থবিদ এতে শামিল হচ্ছেন৷ এতকাল শুধু গ্রীষ্মকালীন স্টেশন ছিল৷ এবার শীত কাটানোর উপযুক্ত স্টেশনও তৈরি করছি৷’’

ভিডিও দেখুন 03:50

পরিবেশ গবেষণায় ব্যস্ত অ্যান্টার্কটিকার বিজ্ঞানীরা

ভারতও এক বড় টিম পাঠিয়েছে৷ বিজ্ঞানীরা এখান থেকেই সে দেশের দুটি স্টেশনের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হতে পারেন৷ তাঁদের গবেষণার লক্ষ্য খুবই স্পষ্ট৷ ‘মৈত্রী’ স্টেশনের বিজ্ঞানী জীব কৃষ্ণমালি বলেন, ‘‘জলবায়ু সংক্রান্ত গবেষণা এই মুহূর্তে আমাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প৷ এ ক্ষেত্রে দীর্ঘমেয়াদী প্রবণতা আমাদের কাছে জরুরি৷ তুষারের গভীরে ও হিমবাহের মধ্যে কী পরিবর্তন ঘটছে?’’

রুশ বিজ্ঞানীরা নয়মায়ার স্টেশনে জার্মানির সিসমোলজিস্টদের সঙ্গে সহযোগিতা করছেন৷ প্রায় ৭০০ কিলোমিটার দূরে প্রত্যন্ত এক জায়গায় সেটি অবস্থিত৷ অ্যান্টার্কটিকার গভীরে সেই গবেষণাকেন্দ্রে খুব বেশি বিজ্ঞানী যাতায়াত করেন না৷ ইওসেফিন স্টাকেমান ও এডিট কর্গার সেখানে পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্র নিয়ে গবেষণা করেন এবং ভূমিকম্পের তীব্রতা মাপেন৷ অন্যান্য দেশের গবেষকদের মতোই তাঁরা ১৫ মিটার গভীরে পরীক্ষা চালাচ্ছেন৷ তবে তাঁদের মতে, এই পরীক্ষা যথেষ্ট নয়৷ স্টাকেমান বলেন, ‘‘মহাদেশ হিসেবে অ্যান্টার্কটিকা নিয়ে আসলে এখনো যথেষ্ট গবেষণা হয় নি৷ আমার মতে, তথ্য সংগ্রহের জন্য যথেষ্ট কেন্দ্রও নেই৷’’

বায়ুমণ্ডলীয় রসায়ন পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের প্রধান মার্কুস শুমাখারও এমনটা মনে করেন৷ অ্যান্টার্কটিকার বায়ুমণ্ডলে কার্বন-ডাই-অক্সাইড বেড়ে চলায় তিনি দুশ্চিন্তায় ভুগছেন৷ বিশেষ করে পৃথিবীর দক্ষিণে নির্মল এই মহাদেশটিতে দীর্ঘমেয়াদী ভিত্তিতে প্রাকৃতিক সম্পদ আহরণ করার আশঙ্কা তাঁকে ভাবাচ্ছে৷ কোনো রাষ্ট্রের অন্তর্গত না হওয়ায় সেখানে এমন কাজে কোনো বাধা নেই৷ শুমাখার বলেন, ‘‘কী ঘটবে, কীভাবে সবকিছু এগোবে, সেটা বলা অবশ্যই কঠিন৷ কোনো এলাকা থেকে বরফ সরে গেলে মূল্যবান প্রাকৃতিক সম্পদ মানুষের নাগালের মধ্যে এসে যাবে৷ তবে বহু বছর আগে অ্যান্টার্কটিকা চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল৷ আমার কাছে এটা ভালো লক্ষণ, যে বিষয়টি সে দিকেই এগোচ্ছে৷’’

নয়মায়ার কেন্দ্রের গবেষকদের কাছে এম্পারার পেঙ্গুইন বিশেষভাবে আকর্ষণীয়৷ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সম্ভাব্য বিপদ সম্পর্কে আগাম আভাস পেতে এই প্রাণীর রক্ত চলাচল যতটা সম্ভব নিখুঁতভাবে পরীক্ষা করতে হবে৷ এ ক্ষেত্রেও আন্তর্জাতিক গবেষক দলগুলি পরস্পরের সঙ্গে তথ্য বিনিময় করছেন৷ ‘থিংক’ পরিবেশ সংগঠনের মারি-শার্লট রুমলার মনে করেন, ‘‘সব সময়ে বলা হয় এটা হলো অ্যান্টার্কটিক পরিবার৷ জগতের সব সংকট এখানে ম্লান হয়ে যায়৷ সবাই সবাইকে সাহায্য করে এবং পারস্পরিক বোঝাপড়ার চেষ্টা চালু থাকে৷ অত্যন্ত কঠিন পরিস্থিতির মধ্যেও এই মনোভাব দেখা যায়৷ বিশ্বের সব নেতিবাচক খবরের মাঝেও এমন সহযোগিতা দেখলে খুব সুন্দর লাগে৷’’

পৃথিবীর সবচেয়ে জনবিরল মহাদেশে এমনটা ঘটে চলেছে৷

মাটিয়াস এবার্ট/এসবি

ইন্টারনেট লিংক