বিশ্বকাপে পাকিস্তানকে বয়কট করার দাবি ভারতের | বিশ্ব | DW | 19.02.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

বিশ্বকাপে পাকিস্তানকে বয়কট করার দাবি ভারতের

ভারত-নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ভারতীয় আধাসামরিক বাহিনীর উপর হামলার প্রতিবাদে ভারতের ক্রিকেট সংগঠনসহ অসংখ্য ক্রীড়ামোদী আগামী ক্রিকেট বিশ্বকাপে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের ম্যাচ বয়কট করার আহ্বান জানিয়েছেন৷

Indien Hindu-Nationalisten Cricket-Protest (picture alliance/AP Photo/A. Qadri)

ফাইল ফটো

‘ক্রিকেট ক্লাব অফ ইন্ডিয়া' সিসিআই-এর সচিব সুরেশ বাফনা বলেছেন, হতে পারে সিসিআই একটি ক্রীড়া প্রতিষ্ঠান৷ কিন্তু খেলাধুলার চেয়ে দেশের স্বার্থ সর্বোচ্চ৷ এই নৃশংস ঘটনার পর ভারতীয় ক্রিকেট টিম পাকিস্তান টিমের বিরুদ্ধে ম্যাচ বয়কট করতে চায়৷ পাকিস্তান যদি মনে করে এই হামলার পেছনে তাদের কোনো হাত নেই, তাহলে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক তথা দেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রকাশ্যে বলা উচিত, এই জঙ্গি হামলার সঙ্গে পাকিস্তানের কোনো যোগ নেই৷ কিন্তু তিনি নীরব রয়েছেন৷

উল্লেখ্য, এই বছরের ১৬ জুন ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টারে  ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে বিশ্বকাপের ম্যাচটি হবার কথা রয়েছে৷

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ, আইপিএল-এর চেয়ারম্যান রাজীব শুক্লা মনে করেন, ক্রীড়া ক্ষেত্রেও পাকিস্তান বিরোধী ক্ষোভ পুঞ্জীভূত এবং সেটা সংগত৷ সরকারি অনুমতি না পেলে ভারত-পাকিস্তান ক্রিকেট ম্যাচের সম্ভাবনা নেই৷ রাজীব শুক্লা স্বীকার করেন, খেলোয়াড়সুলভ মনোভাবে তাঁর আস্থা থাকলেও বর্তমান পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে খেলা সম্ভব নয়৷ খেলাধুলা সব কিছুর ঊর্ধ্বে৷ কিন্তু তাঁর কথায়, যে-দেশ সন্ত্রাসে মদত দেয় তার অভিঘাত খেলাধুলাতেও এসে পড়ে৷

অডিও শুনুন 01:54

বর্তমান পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক থাকবে না, থাকা উচিতও নয়: নন্দিনী চ্যাটার্জী

তাহলে চলতি বছরে বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারত খেলবে না, এটাই কি ধরে নেওয়া হবে? এই মুহূর্তে তা বলা মুশকিল, এখনও সময় আছে, দেখা যাক কী হয়, বলেন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের শীর্ষকর্তা রাজীব শুক্লা৷

২০১৩ সাল থেকে ভারত ও পাকিস্তান দ্বিপাক্ষিক সিরিজে কোনো ম্যাচ খেলেনি৷ তবে অন্য দেশে ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি এবং ২০১৮তে এশিয়া কাপে দুই দেশ মুখোমুখি হয়েছিল৷

ক্রীড়া সাংবাদিক নন্দিনী চ্যাটার্জী তাঁর অভিমত ব্যক্ত করে ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বর্তমান পরিস্থিতিতে  পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের কোনোরকম সম্পর্ক থাকবে না, থাকা উচিতও নয়, এই বার্তাটা তো সরকারকে দিতেই হবে জনসাধারণকে৷ এতগুলো প্রাণ চলে গেল৷ তাতে মানুষের মধ্যে ভীষণ অসন্তোষ আছে, উষ্মা আছে, সেজন্য পাকিস্তানকে টোটাল বয়কট করা হচ্ছে৷ খেলাধুলা তো তার বাইরে থাকতে পারে না, জীবনের এক অনুষঙ্গ৷ ভারতীয়রা খেলাধুলা ভালোবাসে, বিশেষ করে ক্রিকেটকে তো বটেই৷''

তবে নন্দিনী চ্যাটার্জী মনে করেন, ‘‘টাইম হলো বেস্ট হিলার৷ সময় সব কিছু বদলে দিতে পারে৷ ব্যাক চ্যানেল ডিপ্লোম্যাসি বলে একটা কথা আছে৷ আপাততঃ সেটা বন্ধ৷ কিন্তু ভবিষ্যতে খুলবে না, সেটা বলা যায় না৷ কিন্তু সাধারণ মানুষ তো অতশত বোঝে না৷ তাদের ভাবাবেগ এবং ক্ষোভকে অস্বীকার করা সম্ভব নয়৷ এতগুলো প্রাণ বলে কথা৷ পরবর্তীকালে হয়ত দেখা যাবে বিশ্বকাপে উভয় দল খেলতে রাজি হয়েছে৷''

সম্প্রচার বন্ধ

ভারতীয় ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি ‘আইএমজি-রিলায়েন্স' দুবাইয়ে চলা টি-টোয়েন্টি প্রতিযোগিতা ‘পাকিস্তান সুপার লিগ' বা পিএসএল-এর বাকি ম্যাচগুলো ‘ডি-স্পোর্টস' টিভি চ্যানেলে সম্প্রচার বন্ধ রাখার, অর্থাৎ স্পনসরশিপ প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড এতে তীব্র অসন্তোষ ব্যক্ত করে বলেছে, ভারতীয় ক্রিকেটপ্রেমীদের এভাবে বঞ্চিত করা অন্যায়৷

ক্রিকেটারদের ছবি সরিয়ে নেয়া হয়েছে

শুধু তাই নয়, ক্রিকেট ক্লাব অফ ইন্ডিয়া, সিসিআই-এর অন্তর্গত বিসিসিআই তার মুম্বাই অফিসে সাবেক পাকিস্তান ক্রিকেট অধিনায়ক ইমরান খানের ছবি ঢেকে দিয়েছে৷ সিসিআই-এর সচিব বাফনা বলেছেন, ভবিষ্যতে এই ছবি সরিয়ে নেওয়া হবে কিনা, তা নিয়ে দ্রুত আরেকটি বৈঠক ডাকা হবে৷

পাশাপাশি পাঞ্জাব ক্রিকেট সংস্থা (পিসিএ) পাঞ্জাবের মোহালি স্টেডিয়ামের রিসেপশন, লং রুম এবং হল অফ ফেম এরিয়া মিলিয়ে যে ১৫ জন পাক ক্রিকেটারের ছবি লাগানো ছিল, সেগুলো সব সরিয়ে ফেলেছে৷ সরিয়ে ফেলা ছবিগুলির মধ্যে ইমরান খান ছাড়াও শহিদ আফ্রিদি, জাভেদ মিঁয়াদাদ, ওয়াসিম আকরামের ছবি রয়েছে৷ পিসিএ বলেছে, পুলওয়ামা জঙ্গিকাণ্ডে নিহত জওয়ানদের পরিবারের পাশে থাকার বার্তা দিতেই এই সিদ্ধান্ত৷ পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড এই ছবি সরানোকে অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক বলেছে৷ এই মাসে দুবাই-এ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল এবং বিসিসিআই-এর যে বৈঠক হবার কথা তাতে বিষয়টি তুলবে পাকিস্তান৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন