বিলিয়নিয়ারদের মহাকাশ দৌড়ে বেজোসকে হারালেন ব্র্যানসন | বিশ্ব | DW | 12.07.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

মহাকাশ পর্যটন

বিলিয়নিয়ারদের মহাকাশ দৌড়ে বেজোসকে হারালেন ব্র্যানসন

বিলিয়নিয়ারদের মহাকাশযাত্রার প্রতিযোগিতায় অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোসকে হারালেন ৭০ বছর বয়সি ব্রিটিশ বিলিয়নেয়ার রিচার্ড ব্র্যানসন৷ আর নয়দিন পরই বেজোসেরও মহাকাশে যাত্রা করার কথা৷

একজন ক্রুকে কাঁধে নিয়ে সাফল্য উদযাপন করছেন ব্র্যানসন

একজন ক্রুকে কাঁধে নিয়ে সাফল্য উদযাপন করছেন ব্র্যানসন

বেজোসের প্রতিষ্ঠান অবশ্য দাবি করছে ব্র্যানসনের মহাকাশযান যথেষ্ট ওপরে যায়নি৷

রোববার ভার্জিন গ্যালাকটিকে চড়ে ব্রিটিশ ব্যবসায়ী মহাকাশের এমন স্থানে গিয়েছেন, যেখানে কখনো কোনো বিলিয়নিয়ার যাননি৷ অ্যামেরিকার নিউ মেক্সিকোর উৎক্ষেপণ স্থান থেকে স্থানীয় সময় বেলা দুইটা ৪০ মিনিটে মহাকাশে উড়ে যান ব্র্যানসন৷

১৩ কিলোমিটার উচ্চতায় ওঠার পর মহাকাশ বিমান ইঞ্জিন চালু করে মূল যান থেকে বিচ্ছিন হয়ে যায়৷ মহাকাশের সীমানা ছুঁতে বিমানটি ভূপৃষ্ঠ থেকে ৮৮ কিলোমিটার ওপরে ওঠে৷

ব্র্যানসনের সঙ্গে ডেভ মেকি এবং মাইকেল মাসুচি নামের দুজন পাইলট ছিলেন৷ ভার্জিন গ্যালাকটিকের প্রধান মহাকাশ প্রশিক্ষক বেথ মোসেস, প্রধান প্রকৌশলী কলিন বেনেট এবং গবেষণা ও সরকারি বিষয় সম্পর্কিত ভাইস প্রেসিডেন্ট সিরিশা বান্ডলাও ছিলেন ফ্লাইটে৷

ব্র্যানসন কী বলছেন?

মহাকাশযানের ভেতরে তোলা একটি ছবি নিজের টুইটারে শেয়ার করেছেন ব্র্যানসন৷ তিনি বলেন, ‘‘মহাকাশযাত্রার নতুন যুগে সবাইকে স্বাগত৷’’

মহাকাশ থেকে ফিরে আসার পর সেখানে ভিড় জমানো মানুষদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ১৭ বছরের কাজের শেষে অবশেষে ‘একজন গ্রাহকের অভিজ্ঞতা’ পেয়েছেন তিনি৷ আগামী বছর থেকে বাণিজ্যিকভাবে মহাকাশযাত্রা শুরুর পরিকল্পনার কথাও জানান তিনি৷

বিশ্বের বেশ কয়েকজন শীর্ষ ধনী মহাকাশযাত্রা নিয়ে একপ্রকার প্রতিযোগিতাই করছেন৷ এই প্রতিযোগিতায় সবচেয়ে এগিয়ে থাকা অ্যামাজনের জেফ বেজোসকে পেছনে ফেললেন ভার্জিন গ্যালাকটিকের রিচার্ড ব্র্যানসন৷

টেসলার প্রধান নির্বাহী এলন মাস্কও মহাকাশে, এমনকি মঙ্গল গ্রহে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন৷ এজন্য কোনো সঠিক সময় তিনি জানাননি৷ তবে সেপ্টেম্বরেই বেসামরিক নাগরিকদের মাহাকাশে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করছে মাস্কের স্পেসএক্স

প্লেন কি যথেষ্ট ওপরে পৌঁছেছিল?

ব্র্যানসনের যাত্রা শুরুর আগে বেজোসের প্রতিষ্ঠান ব্লু অরিজিন জানায়, বেশিরভাগ দেশ আকাশ শেষ হয়ে মহাকাশের শুরু হিসেবে যে দূরত্বকে হিসাব করে, ব্র্যানসনের মহাকাশযান এত ওপরে উড়ছে না৷

তবে বেজোস নিজে অবশ্য ব্র্যানসনকে এক ইনস্টাগ্রাম পোস্টে শুভ কামনা জানিয়েছেন৷

মার্কিন বিমান বাহিনী এবং মহাকাশ সংস্থা নাসা ভূপৃষ্ঠ থেকে ৮০ কিলোমিটার ওপরে মহাকাশ ও পৃথিবীর আকাশের সীমানা হিসেবে চিহ্নিত করে৷ কিন্তু ওয়ার্ল্ড এয়ার স্পোর্টস ফেডারেশন- এফএআই সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১০০ কিলোমিটার উচ্চতায় মহাকাশের সীমা নির্ধারণ করে৷ এই সীমাকে কারমান লাইন বলা হয়ে থাকে৷

এডিকে/এসিবি (এপি, এএফপি, ডিপিএ)

৮ জুলাইয়ের ছবিঘরটি দেখুন...