বিরোধী শিক্ষাবিদকে গ্রেপ্তার করলো তালেবান | বিশ্ব | DW | 10.01.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

আফগানিস্তান

বিরোধী শিক্ষাবিদকে গ্রেপ্তার করলো তালেবান

প্রকাশ্যে তালেবান শাসনের বিরোধিতা করার অপরাধে বিশিষ্ট শিক্ষাবিদকে গ্রেপ্তার করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গেল তালেবান।

ফৈজুল্লাহ জালাল ছিলেন কট্টর তালেবান বিরোধী।

ফৈজুল্লাহ জালাল ছিলেন কট্টর তালেবান বিরোধী।

অধ্যাপক ফৈজুল্লাহ জালাল। আফগানিস্তানে তালেবান আবার ক্ষমতাদখলের পর থেকে এই বিশিষ্ট অধ্যাপক সামাজিক মাধ্যমে তালেবান শাসনের সমালোচনা করছিলেন। তার স্ত্রী ফেসবুক পোস্ট করে জানিয়েছেন, অধ্যাপককে তালেবান আটক করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গেছে।

তার স্ত্রী জানিয়েছেন, তার স্বাস্থ্য কেমন আছে, তিনি কীরকম আছেন, কিছুই পরিবার জানে না।  কেন তাকে গ্রেপ্তার করা হলো, তাও সরকারিভাবে জানানো হয়নি।

তালেবানের বক্তব্য

তালেবানের মুখপাত্র জবিদুল্লাহ মুজাহিদ বলেছেন, জালাল মানুষকে তালেবানি ব্যবস্থার বিরুদ্ধে উসকাচ্ছিলেন এবং তিনি মানুষের মর্যাদাহানি করছিলেন। জালাল সামাজিক মাধ্যমে বিরূপ মন্তব্য করেছেন।

জালালের স্ত্রী অবশ্য দাবি করেছিলেন, ওইসব পোস্ট জাল। জালাল এরকম কোনো পোস্ট করেননি।।

তালেবান মুখপাত্র বলেছেন, জালালকে দেখে অন্যরাও যাতে এই ধরনের কাণ্ডজ্ঞানহীন মন্তব্য না করেন, তা বোঝাতেই অধ্যাপককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। একজন অধ্যাপক, শিক্ষাবিদ এরকম মন্তব্য করলে অন্যদের মর্যাদা ক্ষুণ্ণ হতে বাধ্য।

তালেবানের সমালোচনায় জালাল

জালাল কট্টর তলেবান-বিরোধী। তিনি সাবেক প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই এবং আশরাফ গনিকে নিয়েও তিনি খোলাখুলি নিজের মত জানিয়েছেন। 

২০২১ সালের নভেম্বরে তালেবান মুখপাত্র মহম্মদ নইমের সঙ্গে মতবিরোধে জড়িয়ে পড়েন জালাল। দুজনেই একটি টিভি বিতর্কে অংশ নিয়েছিলেন। সেখানেই তিনি তালেবানের নীতির তীব্র সমালোচনা করেন। তিনি তালেবানের মুখপাত্রকে 'বাছুর' বলেও সম্বোধন করেন।

তালেবান-বিরোধীরা জালালের সাহস ও খোলাখুলি কথা বলার ক্ষমতার প্রশংসা করেন। অনেকে তাদের সামাজিক মধ্যমে প্রোফাইল পিকচারে জালালের ছবিও রেখেছেন।

জিএইচ/এসজি (এএফপি, ডিপিএ)

সংশ্লিষ্ট বিষয়