বিভক্ত রায়ে নির্বাচনে দাঁড়াতে পারছেন না খালেদা জিয়া | বিশ্ব | DW | 08.12.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

বিভক্ত রায়ে নির্বাচনে দাঁড়াতে পারছেন না খালেদা জিয়া

এবার আর জাতীয় নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারছেন না বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া৷ নির্বাচন কমিশনে আপিলেও তিনি হেরে গেছেন৷ তবে এখনো উচ্চ আদালতে যাওয়ার সুযোগ আছে তাঁর৷

কারাবন্দি খালেদা জিয়া এবার ফেনী-১, বগুড়া-৬ ও বগুড়া-৭ আসনে বিএনপির প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন নির্বাচন কমিশনে৷ কিন্তু ফৌজদারি মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত হওয়ার কারণে ২ ডিসেম্বর যাচাই বছাইয়ে রিটানিং অফিসার তাঁর তিনটি আসনেই মনোননয়পত্র বাতিল করেন৷ এরপর নির্বাচন কমিশনের আপিল ট্রাইব্যুনালে আপিল করা হলে শনিবার শুনানি শেষে সন্ধ্যায় তাঁর আপিল আবদেন নাকচ করে রিটার্নিং কর্মকর্তার দেয়া বাতিলের আদেশ বহাল রাখা হয়৷

প্রধান নির্বাচন কমিশনার এ কে এম নূরুল হুদাসহ পাঁচজন কমিশনারের মধ্যে চারজন খালেদা জিয়ার মনোনয়ন বাতিলের পক্ষে রায় দেন৷ তবে, কমিশনার মাহবুব তালুকদার খালেদা জিয়ার তিনটি মনোনয়নপত্রকেই বৈধ করার পক্ষে রায় দেন৷ ফলে পাঁচজনের মধ্যে ৪-১ ভোটে খালেদা জিয়ার আপিল আবেদন খারিজ হয়ে যায়৷ 

অডিও শুনুন 02:51
এখন লাইভ
02:51 মিনিট

‘বিএনপি'র নেতা কর্মীদের ওপর একটা চাপতো পড়বেই’

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অর্ফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হলে ওইদিনই তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়৷ এরপর রাষ্ট্রপক্ষের আপিলে ওই দণ্ড বাড়িয়ে ১০ বছর করেন আদালত৷ জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট নামে আরো একটি দূর্নীতির মামলায় সম্প্রতি খালেদা জিয়ার সাত বছরের কারাদণ্ড হয়েছে৷ বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী কোনো ব্যক্তির ফৌজদারী মামলায় কমপক্ষে দুই বছরের দণ্ড হলে তিনি নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন না৷ বাংলাদেশের সংবিধানের ৬৬ অনুচ্ছেদে কারা জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না তা বলা আছে৷ এবং সেখানে নানা ধরনের অযোগ্যতার কথা উল্লেখ করা হয়েছে৷

খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রে ধারা ২ বিবেচ্য৷ আরো সুনির্দিষ্ট করে তা বলা হয়েছে ধারা ২-এর ঘ উপধারা৷ তাতে বলা হয়েছে, কেউ যদি ‘‘নৈতিক স্খলনজনিত কোনো ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে অন্যূন দুই বৎসরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন এবং তাঁর মুক্তিলাভের পর পাঁচ বৎসরকাল অতিবাহিত না হয়ে থাকে৷''

তবে, হাইকোর্টের সম্প্রতি আরো দু'টি আদেশে স্পষ্ট হয়েছে যে নির্বাচনে দাঁড়াতে হলে বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে শুধু আপিল করলেই হবেনা, দণ্ডও স্থগিত হতে হবে৷ দণ্ড স্থগিত বা বাতিল না হলে নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তি৷ খালেদা জিয়ার দু'টি মামলার রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হলেও তার দণ্ড স্থগিত বা বাতিল হয়নি৷

শনিবার নির্বাচন কমিশনের রায়ের পর খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘নির্বাচন কমিশনে বিভক্ত আদেশ হয়েছে৷ নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার খালেদা জিয়ার তিনটি মনোনয়নপত্রই বৈধ বলেছেন৷ বাকি চারজন অবৈধ বলেছেন৷ আমরা এখন এই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে যাবো৷'' 

হাইকোর্টে আপিলের জন্য যথেষ্ঠ সময় আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘সময় কোন ব্যাপার না৷ হাইকোর্ট চাইলে যেকোনো আদেশ দিতে পারেন৷ খালেদা জিয়ার প্রার্থীতার জন্য আমরা শেষ পর্যন্ত আইনি লড়াই চালিয়ে যাব৷''

অডিও শুনুন 00:41
এখন লাইভ
00:41 মিনিট

‘আমরা এখন এই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে যাবো’

এদিকে, নির্বাচন কমিশনের রায়ের পর বিএনপি'র নেতাকর্মীরা অনেকটা হতাশ হয়ে পড়েছেন৷ তাদের মন খারাপ হয়ে পড়েছে৷ নির্বাচন কমিশনেও তাদের হতাশা প্রকাশ করতে দেখা যায়৷ তবে বিএনপি'র ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘নির্বাচন কমিশনের আপিলে খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা বাতিল হওয়ায় বিএনপির নেতা কর্মীদের ওপর একটা চাপতো পড়বেই৷ কিন্তু অতীতে দেখা গেছে যেসব নেতা-নেত্রীকে অন্যায়ভাবে কারাগারে রাখা হয়েছে, তাদের ও তাদের দলের জনপ্রিয়তা বেড়েছে৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘এক এগারোতে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে যে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছিল, তা এখনো চলছে৷ নির্বাচন কমিশন তাঁর প্রার্থিতা বাতিল করে সেই ষড়যন্ত্রের নগ্ন বহিঃপ্রকাশ ঘটালো৷ অথচ আওয়ামী লীগের অনেকেই একই অবস্থায় নির্বাচনে প্রার্থী হতে পেরেছেন৷ ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশের মানুষ একটি স্বচ্ছ এবং গ্রহণযোগ্য নির্বাচন চায়৷ আর সেটা যদি না হয় তাহলে সংকট আরো ঘনীভূত হবে৷ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি আরো খারাপের দিকে যাবে৷''

প্রসঙ্গত ,খালেদা জিয়া যে তিনটি আসনে নির্বাচন করতে চেয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন সেই আসনগুলোতে বিএনপি'র বিকল্প প্রার্থী আছে৷ ফলে বিএনপির প্রার্থী সংকট হচ্ছেনা৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন