বিপন্ন প্রবাসী ভারতীয় শ্রমিক | আলাপ | DW | 10.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

বিপন্ন প্রবাসী ভারতীয় শ্রমিক

বিদেশে চাকরি হারিয়ে অসহায়, দেশে ফিরেও শান্তি নেই৷কাজ ফিরে পাবেন কিনা সে বিষয়েও আছে সন্দেহ৷করোনাকালে প্রবাসী ভারতীয় শ্রমিকরা সব মিলিয়েই খুব বিপন্ন৷ 

এক দুই-লাখ নয়, ১ কোটি ২৬ লাখ ভারতীয় বিদেশে গিয়ে কাজ করেন৷ এই সংখ্যাটা অনেক ছোট দেশের জনসংখ্যার থেকে বেশি৷ তার মধ্যে প্রায় ৯০ লাখ লোক কাজ করেন সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ  ছয়টি উপসাগরীয় দেশে৷ করোনার ফলে তাঁদের একটা বড় অংশ কাজ হারিয়েছেন৷ তাঁরা দেশে ফেরার জন্য ব্যাকুল৷ এখন আর মাস গেলে মাইনে নেই৷ অথচ, প্রতিদিনের খরচ আছে৷ যতদিন কাজ ছিল, ততদিন তাঁদের সমাদরের শেষ ছিল না৷বিদেশে প্রচণ্ড পরিশ্রম করার পর মাস গেলে হাতে যখন অর্থ আসতো, তখন অনেক দুঃখ ভুলে যেতেন৷ কিন্তু কাজ হারানোর পর দেশে ফিরতেও তাঁদের কম হয়রানির মুখে পড়তে হয়নি৷ মাদ্রাজ হাইকোর্টে একটি মামলার সূত্রে কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে, এ পর্যন্ত মোট পাঁচ লাখ তিন হাজার ৯৯০ জনকে দেশে ফেরানো সম্ভব হয়েছে৷ এরপরও অপেক্ষার লাইনটা বিশাল৷  

করোনার গোড়া থেকেই সরকার অনেক ভুলভাল সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ তার মধ্যে প্রথম ভুল পদক্ষেপ হলো, চার ঘণ্টার নোটিশে সম্পূর্ণ লকডাউন ঘোষণা করে দেওয়া৷ পরিযায়ী শ্রমিকরা দেশের অন্য রাজ্য থেকে ঘরে ফিরবেন, বিদেশে থাকা কর্মী ও ছাত্ররা দেশে ফিরবেন, সেই কথাটা মাথাতেই রাখা হয়নি৷ কেন রাখা হয়নি, সেই প্রশ্ন তুলে লাভ নেই, কারণ, এতদিন ধরে আমরা এটা জেনে গিয়েছি, ভারতে যখন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, তার অনেক সময়ই অগ্রপশ্চাত ভাবা হয় না৷ প্রতিক্রিয়া কী হতে পারে তা  ঠিকভাবে খতিয়ে দেখা হয় না৷ করোনাকালেও বারবার তার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে৷ লকডাউন যখন হলো, তখন দেশে করোনা রোগীর সংখ্যা মাত্র পাঁচশ৷ যখন তুলে দেওয়া হলো, তখন করোনার তাণ্ডব বাড়ছে৷ পশ্চিমের দেশে করোনা একেবারে ওপরে পৌঁছে যখন কমছে, তখন লকডাউন তোলা হয়৷ ভারতে হলো উল্টোটা৷

নোটবন্দি বা জিএসটি চালুর কাহিনি একই৷ সিদ্ধান্ত নিয়ে বারবার নিয়মে বদল করতে হয়েছে৷ আর তার ফল ভোগেন সাধারণ মানুষ৷ এ ক্ষেত্রেও সব চেয়ে বেশি ভুগেছেন দেশের ভিতরের পরিযায়ী শ্রমিক এবং বাইরে থাকা কর্মী, যাঁরা কাজও হারালেন,  আটকে পড়লেন বিদেশ-বিভুঁইয়ে ভারতে লকডাউন শুরু হয়েছিল ২৫ মার্চ থেকে৷ আর বিদেশে আটকে পড়া ভারতীয়দের আনার জন্য বিমান পাঠানো শুরু হয় ৭ মে থেকে৷ অর্থাৎ, দেড় মাস ধরে বিদেশে ভারতীয় কর্মীদের বড় অংশ প্রবল কষ্ট এবং অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন কাটিয়েছেন৷ আর এই যে পাঁচ লাখ কর্মীকে বিদেশ থেকে আনা হয়েছে, তাঁরা তো একদিনে আসতে পারেননি৷ দুই মাস ধরে আনা হয়েছে৷ এখনো লাখ লাখ লোক অপেক্ষা করে আছেন, কবে তাঁরাও সুযোগ পাবেন দেশে ফেরার৷ দেশে ফেরার একমাত্র উপায় দূতাবাসের কাছে নাম লিখিয়ে রাখা৷ তারপর কবে এয়ার ইন্ডিয়ার বিশেষ বিমানে জায়গা হবে তার অপেক্ষা করা৷ কারণ, বিদেশের সঙ্গে বিমান পরিষেবা শুরু হয়নি৷ শুধু এয়ার ইন্ডিয়ার বিশেষ ফ্লাইট ভারতীয়দের নিয়ে ফিরছে৷ একটা বিমানে কতজন আর ফিরতে পারেন৷ ১৭০ থেকে ২২০ জন৷ ফলে বাকিরা কবে ফিরতে পারবেন তার কোনো নিশ্চয়তা নেই৷  

বিদেশে যে ভারতীয়রা শারীরিক পরিশ্রমের চাকরি করেন, তাঁদের সংখ্যা বেশি৷ কাজ চলে যাওয়ায় তাঁরা বিপর্যয়ের মুখে পড়লেন৷ দেশে ফিরতে চেয়েও ফিরতে পারছেন না৷ ছটফট করছেন৷ সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে তামিলনাড়ু ফিরেছেন দুই শ্রমিক রাজা ও জাস্টিন৷ দুজনেই নির্মাণ শিল্পে শ্রমিকের কাজ করতেন৷ জাস্টিনের কাজ শেষ হয়ে গেছিল৷ বাড়ি ফেরার সময় লকডাউন শুরু হয়৷ বিমান চলাচল বন্ধ৷ ফলে ফিরতে পারেননি৷ কোম্পানি অস্থায়ী শিবির করেছিল৷ থাকার ব্যবস্থা হয়েছিল৷নিজেদের পয়সায় রান্না করে খেতে হয়েছে৷ আর অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন কাটতো৷ রাজার অভিজ্ঞতা একই৷ লকডাউনের পর সংস্থা বন্ধ৷ কিন্তু ফেরার পালা আসছে না৷

তাঁরা ফিরতে পেরেছেন৷ কিন্তু এরকম লাখ লাখ কর্মী এখনো ফেরার দিন গুনছেন বেঙ্গালুরুতে থাকেন মাজহার৷ তাঁর ভাই এবং একাধিক আত্মীয়স্বজন দুবাই, আবুধাবিতে আছেন৷ মাজহার বলছিলেন, উপসাগরীয় দেশে অন্যের ভরসায় না থেকে ভারতীয়রাই একে অন্যকে সাহায্য করছেন৷

যাঁরা অপেক্ষাকৃত ভালো চাকরি করেন, ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে আছেন, তাঁরাই অন্যদের রাখছেন৷ খাওয়াচ্ছেন৷ তঁদের বেতন কমেছে৷ বাড়িতে আর টাকা পাঠাতে পারছেন না৷ কিন্তু তাঁদের অবস্থা ওই শ্রমিকদের মতো নয়৷ ফলে এইভাবে তাঁরা রক্ষা করছেন নিজের দেশের লোককে৷ হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপ বা ফেসবুকে অনেকে জানাচ্ছেন, তাঁরা এক বা দুই জনকে বাড়িতে রাখতে পারেন৷ প্রশ্ন হলো, এভাবে কতদিন টানা যাবে?

আর যাঁরা ফিরলেন, তাঁদের কী অবস্থা? ঘরের ছেলে ঘরে ফেরার পর পরিবার আনন্দিত৷ তাঁরাও দেশে ও ঘরে ফেরার স্বস্তি পেয়েছেন৷ কিন্তু তাঁদের চিন্তা যায়নি, বরং বেড়েছে৷ সামনে অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তা৷ তাঁরা একটা কথা বুঝেছেন, উপসাগরীয় দেশে তাঁরা আবার আগের মতো ফিরতে পারবেন কিনা সন্দেহ৷ তেলের দাম কমে যাওয়ার পরে থেকেই কোম্পানিগুলি চাপে ছিল৷ করোনার পর সেই চাপ অনেকটা বেড়েছে৷ কুয়েতের মতো অনেক দেশ নিয়ম করে বিদেশের কর্মীসংখ্যা বেঁধে দিচ্ছে৷

কুয়েত একটা বিল এনেছে৷ খসড়া বিলে বলা হয়েছে, কুয়েতের জনসংখ্যার ১৫ শতাংশের বেশি ভারতীয় সেখানে কাজ করতে পারবেন না৷ বিল পাস হলে ৮০ হাজার কর্মরত ভারতীয়কে কুয়েত ছাড়তে হবে৷ কুয়েতের এমপি-রা দাবি করেছেন, অন্তত আগামী এক বছর সরকারি কোনো চাকরি যেন বিদেশিদের দেওয়া না হয়৷ এবার উপসাগরীয় বাকি দেশগুলো একই সিদ্ধান্ত নিলে অবাক হওয়ার কিছু নেই৷ গালফ কো-অপারেশন কাউন্সিল অনেক দিন থেকেই বিদেশি-নির্ভরতা কমাবার কথা বলছে৷  কারণ, এই দেশগুলিতে কাজ কমছে৷ দেশের লোককে কাজ দিয়ে তারপর বিদেশিদের নিয়োগের দাবি উঠছে৷ এই দেশগুলির অর্থনীতি পুরোপুরি অশোধিত তেলের দামের ওপর নির্ভর করে৷ তেলের দাম না বাড়লে এসব দেশও বেকায়দায় পড়ে৷ তেলের দাম অনেক দিন ধরেই তাঁদের প্রত্যাশার তুলনায় অনেক কম৷   

আর এর প্রতিক্রিয়া পড়ছে ভারতে৷ সাংবাদিক ববি ঘোষ লিখেছেন, ভারতীয় রাজ্যগুলির মধ্যে সব চেয়ে বেশি আর্থিক সমস্যায় পড়বে কেরালা৷ উপসাগরীয় দেশে কেরালার প্রায় ২৫ লাখ লোক কাজ করতেন৷ কেরালার জিডিপি-র এক তৃতীয়াংশ আসত তাঁদের পাঠানো টাকা থেকে৷ কেরালাতে অন্তত পাঁচ লাখ লোক এখন ফিরবেন৷ অদূর ভবিষ্যতে সংখ্যাটা আরো অনেকটাই বাড়বে৷

এবার বিদেশেকাজ হারানো লোকেরা যদি ভবিষ্যতে আর সেখানে ফিরতে না পারেন, তা হলে চাপটা পড়বে রাজ্যের ওপর৷ এই লোকেরা দেশে ফিরে কী করবেন? তাঁরাও চাকরি খুঁজবেন৷ লকডাউনের পর ভারতে ১২ কোটিরও বেশি মানুষের চাকরি গিয়েছে৷ তার সঙ্গে বিদেশ ফেরত ভারতীয়দের সংখ্যাটাও যুক্ত হবে৷

ভারত থেকে সব চেয়ে বেশি লোক কাজের খোঁজে বিদেশে যান কেরালা থেকে৷ তারপরেই আছে তামিলনাড়ু, কর্ণাটক, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্রর মতো রাজ্য৷ এসব রাজ্য আর্থিক দিক থেকে কম-বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে৷ তার থেকেও বেশি ক্ষতির মুখে পড়বেন, ওই মানুষগুলি, যারা নিজেদের শ্রম দিয়ে দুইটি পয়সার মুখ দেখেছিলেন৷ পরিবারের আর্থিক অবস্থার উন্নতি ঘটিয়েছিলেন৷ করোনা, লকডাউন এবং অর্থনীতির বেহাল অবস্থা তাঁদের সুখী ভবিষ্যতের আশায় আপাতত জল ঢেলে দিলো৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন