‘বিপজ্জনক′ ইসলামপন্থিদের মাত্র অর্ধেক ‘বিপজ্জনক′: জার্মান পুলিশ | বিশ্ব | DW | 23.12.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

‘বিপজ্জনক' ইসলামপন্থিদের মাত্র অর্ধেক ‘বিপজ্জনক': জার্মান পুলিশ

এখন থেকে আরো সূক্ষ মানদণ্ডের ভিত্তিতে ইসলামপন্থিদের ভয়াবহতা নির্ধারণ করা হবে৷ ‘রাডার-আইটিই' নামের এক যন্ত্র ব্যবহার করে জার্মান পুলিশ আরো নিখুঁতভাবে বলতে পারবে, ইসলামপন্থিদের মধ্যে সহিংস হয়ে ওঠার ঝুঁকি কতটুকু৷

এখন থেকে আরো সূক্ষ মানদণ্ডের ভিত্তিতে ইসলামপন্থিদের ভয়াবহতা নির্ধারণ করা হবে৷ ‘রাডার-আইটিই' নামের এক যন্ত্র ব্যবহার করে জার্মান পুলিশ আরো নিখুঁতভাবে বলতে পারবে, ইসলামপন্থিদের মধ্যে সহিংস হয়ে ওঠার ঝুঁকি কতটুকু৷

জার্মান পুলিশ বিকেএ-এর এক নতুন রিপোর্ট বলা হচ্ছে, জার্মানিতে ‘সাংঘাতিক' হিসেবে যে সব ইসলামপন্থিদের চিহ্নিত করা হয়েছে, তাদের মধ্যে কেবল অর্ধেক সংখ্যককে সত্যিকার অর্থে ভয়ংকর বলা যায়৷ জার্মান পত্রিকা স্যুড ডয়চে সাইটুং এবং সরকারি গণমাধ্যম এনডিআর ও ডাব্লিউডিআর-এ প্রকাশিত সংবাদ অনুযায়ী, জার্মানিতে যে ৭২০ জন ইসলামপন্থিকে ‘বিপজ্জনক' হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে, তাদের মধ্যে অর্ধেকই আক্ষরিক অর্থে বিপজ্জনক নয়৷ তবে বাকি অর্ধেক ‘অত্যন্ত বিপজ্জনক'৷

প্রথমবারের মতো এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে বিকেএ ব্যবহার করেছে নতুন একটি যন্ত্র, যা দিয়ে এই বিশ্লেষণ করা হয়েছে৷ এর আগে  বার্লিনের ক্রিসমাস মার্কেটে টিউনিশীয়ার নাগরিক আনিস আমরির ট্রাক হামলায় মারা যান ১২ জন, আহত হন আরো অনেকে৷ ঘটনার পর থেকে সন্দেহভাজনদের সম্পর্কে খোঁজ রাখার বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়৷ জার্মানির কন্সটান্স বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরেনসিক মনোবিদদের সহায়তায় বিকেএ উদ্ভাবন করেছে ‘রাডার-আইটিই' নামের এ প্রযুক্তি৷ বিকেএ-র মতে, ‘রাডার-আইটিই' নামের এ প্রযুক্তি ব্যবহার করে সন্দেহভাজনদের বিশ্বাস বা ধর্মাচারণ নিয়ে বিশ্লেষণ না করে তাদের ‘আচরণ', বিশেষ করে তাদের জীবনাচরণ সংক্রান্ত তথ্যের ভিত্তিতে সামগ্রিকভাবে নির্দিষ্ট ব্যক্তিকে বিশ্লেষণ করা হয়৷

এ ‘রিস্ক অ্যাসেসমেন্টে' ৭৩ টি প্রশ্নের নির্ধারিত উত্তরের প্যাটার্ন অনুযায়ী ব্যক্তিটি কতটা বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে তার ধারণা নেয়া হবে৷ এর মাধ্যমে ‘সর্বোচ্চ ঝুঁকি', ‘লক্ষ্যণীয় ঝুঁকি' ও ‘সহনীয় ঝুঁকি' এই তিন মাত্রার ঝুঁকি নির্ধারিত করা হবে৷

এ পদ্ধতি আবিষ্কারের সাথে জড়িত কন্সটান্স বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিদ জেরোম এনড্রাস বলেন, ‘‘আমরা যে পদ্ধতি ব্যবহার করেছি, আগের গবেষণা থেকে জানি যে এগুলো ভালো কাজ করে৷ অনেক যন্ত্র রয়েছে যেগুলো মতবাদের উপর জোর দেয়, কিন্তু আমরা জানি যে মতবাদই একমাত্র গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নয়৷ এ এলাকায় অনেক বিপজ্জনক মানুষ আছে, যাদের ক্ষেত্রে মতবাদের প্রভাব খুব সামান্য৷''

এনড্রাস বলেন, অভ্যাসগতভাবে অপরাধী এমন অনেকে আছেন যারা পরবর্তীতে ইসলামের বিষয়ে আগ্রহ দেখিয়েছেন, তাদের আগের পদ্ধতি অনুযায়ী ‘ভয়াবহ বিপজ্জনক' হিসেবে চিহ্নিত করার সম্ভাবনা কম৷ ‘‘এমন হতে পারে যে তাদের ইসলাম সম্পর্কে কোনো ধারণাই নেয়, কিন্তু তারা অত্যন্ত হিংস্র৷ আবার অনেকে আছেন যারা মতাদর্শের দিক থেকে অত্যন্ত গোঁড়া, কিন্তু বিপজ্জনক নন কারণ তারা হয়ত সহিংসতা থেকে অনেক দূরে থাকেন৷ এ জন্যই একটি বিষয়ে নজর দেয়ার চাইতে অনেকগুলো বিষয় নজর দেয়া এত জরুরি৷'' এ পদ্ধতিতে মতবাদ যাই হোক না কেন, যারা অতীতে সহিংসতা দেখেছেন বা এর শিকার হয়েছেন, ছোট বেলায় কিংবা যুদ্ধাবস্থায়, তাদের  ‘সর্বোচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ' হিসেবে চিহ্নিত করা হয়৷

যদিও বিপজ্জনক চিহ্নিত করার কোনো নির্দিষ্ট সংজ্ঞা নেই, জার্মান পুলিশের মতে কিছু তথ্যের ভিত্তিতে কেউ ভবিষ্যতে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত হতে পারে বলে ধরে নেয়া হয়৷ পুলিশ ইউনিয়ন জিডিপি-র প্রধান অলিভার মালচাও বলেন, ‘‘এর আগে আমাদের কোনো নির্দিষ্ট পদ্ধতি ছিল না এবং এক-একজন একএকভাবে বিচার করত৷'' যদিও এ পদ্ধতি কতটা কাজ করবে এর উত্তরে অলিভার বলেন, ‘‘এটা কতটা সফল তা জানতে আমাদের আরো অপেক্ষা করতে হবে৷''

বেন নাইট/আরএন

প্রতিবেদনটি নিয়ে কোনো মন্তব্য থাকলে লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন