‘বিদ্যুৎ-পানির দাম বাড়ছে, আয় তো বাড়ছে না’ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 28.02.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

‘বিদ্যুৎ-পানির দাম বাড়ছে, আয় তো বাড়ছে না’

বাংলাদেশে সাধারণ গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম, পানির দাম বাড়ানো হচ্ছে৷ মধ্যবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্তরা সরকারের এ সিদ্ধান্তে চিন্তিত৷

একটি বেসরকারি ব্যাংকের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার রুবিনা আক্তার খানম ডয়চে ভেলের কাছে জানতে চান, ‘‘বছরে বেতন বাড়ে সামান্য কয় টাকা, খরচ বাড়ে চারদিক দিয়ে৷ তাহলে আমরা চলবো কিভাবে?’’ যারা এসব সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন, তারা সাধারণ মানুষের খবর রাখেন কিনা সে বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন তিনি৷

গত কয়েকমাস ধরে  পেঁয়াজ-রসুনসহ  নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম নিয়ে চরম অস্বস্তিতে রয়েছেন সাধারণ মানুষ৷ এর সঙ্গে এবার যুক্ত হলো বিদ্যুৎ ও পানির দাম৷ বিশেষ করে বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির ফলে সাধারণ মানুষ ব্যাপকভাবে চাপে পড়বেন বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন৷

অধ্যাপক এম শামসুল আলম ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বিদ্যুৎ এমন পণ্য যেটার মূল্য বাড়লে সঙ্গে আরো অনেক কিছুই বাড়ে৷ পুরো জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়ে যায়৷ এতে মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয় অনেক বেড়ে যাবে৷ আসলে এই সেক্টরে সরকার যে ৭ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দেয়, সেটা এখন আর দিতে চাচ্ছে না৷ এখন এই মূল্য বৃদ্ধির ফলে এই সেক্টর থেকে সরকার তিন হাজার কোটি টাকা তুলে নেবে৷ এতে সরকারের সার্বিক আয় খুব একটা বাড়বে বলে মনে হয় না৷ কারণ, মানুষের তো আয় বাড়ছে না৷ তাহলে সে কী করবে? খরচ কমিয়ে দেবে৷ কেনা-কাটা কমিয়ে দেবে৷ তাতে সরকার ট্যাক্স, ভ্যাট কম পাবে৷ দিন শেষে মানুষ কষ্টে থাকবে, সরকারের খুব একটা আর্থিক লাভ হবে না৷ শুধু অযোগ্য দুর্নীতিবাজরা লাভবান হবে৷’’

অডিও শুনুন 02:00

বেতন বাড়ে সামান্য, খরচ বাড়ে চারদিক দিয়ে, আমরা চলবো কিভাবে: রুবিনা আক্তার

পহেলা মার্চ থেকে বিদ্যুৎ ও পানির দাম বৃদ্ধি কার্যকর হবে৷ ফলে চাহিদা অনুসারে সরবরাহ না মিললেও এপ্রিল থেকে গ্রাহককে পানি ও বিদ্যুতের জন্য অতিরিক্ত টাকা গুনতে হবে৷ বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি সারা দেশের জন্য প্রয্যেজ্য হলেও পানির দাম বৃদ্ধি কার্যকর হবে শুধু ঢাকা ও চট্টগ্রাম নগরীর গ্রাহকদের জন্য৷ সাধারণ গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম প্রতি ইউনিটের (কিলোওয়াট/ঘণ্টা) জন্য গড়ে ৩৬ পয়সা করে বেশি দিতে হবে৷ ঢাকা ওয়াসার প্রতি হাজার লিটার পানিতে আবাসিকে বেড়েছে ২৪ দশমিক ৯৭ শতাংশ ও বাণিজ্যিক ৭ দশমিক ৯৯ শতাংশ৷ চট্টগ্রাম ওয়াসার আবাসিক প্রতি হাজার লিটার পানিতে ২৫ শতাংশ এবং বাণিজ্যিকে ৯ দশমিক ৯৪ শতাংশ দাম বেড়েছে৷ দাম বৃদ্ধির সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়বে নিম্নমধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত মানুষের উপর৷

রুবিনা আক্তার খানমের প্রশ্ন, ‘‘এভাবে প্রতি বছর বিদ্যুৎ-পানির দাম বাড়লে মানুষ কিভাবে চলবে?'' কিভাবে খরচ ম্যানেজ করবেন? এই প্রশ্নের জবাবে রুবিনা খানম বলেন, ‘‘আমাদের দৈনন্দিন যে চাহিদা আছে, সেটা কমাতে হবে৷ এছাড়া তো কোনো উপায় নেই৷ কারণ, যে আয় তার মধ্যেই তো চলতে হবে৷ টাকা তো আর ইচ্ছে করলেই বাড়াতে পারবো না৷’’

অডিও শুনুন 05:25

বিদ্যুৎ এমন পণ্য যে মূল্য বাড়লে সঙ্গে অনেক কিছুই বাড়ে: শামসুল আলম

কারওয়ান বাজারের চায়ের দোকানি শাহজাহান আলী বলেন, ‘‘যারা চাকরি করেন, তাদের তো মাস শেষে একটা আয় আছে৷ কিন্তু আমরা যারা ছোট দোকানি, তাদের সমস্যা তো আরো বেশি৷ চা-বিস্কুট বেঁচে কয় টাকা আয় হয়? মানুষের পকেটে টাকা না থাকলে তা-ও খেতে চায় না৷ আমাদের আয়ও কমে যায়৷ দুই সন্তান আর স্ত্রী-কে নিয়ে কোনোভাবে বেঁচে আছি৷ এখন মনে হচ্ছে, এসব বাদ দিয়ে গ্রামে চলে যেতে হবে৷’’

শাহজাহানের চায়ের দোকানে তখন বসে কথা বলছিলেন রিক্সা চালক রফিকুল ইসলাম৷ পঞ্চাশোর্ধ এই রিক্সাচালক বলছিলেন, ‘‘সারাদিন রিক্সা চালিয়ে মালিকের জমা বাদে ৫শ' টাকা ঘরে নেওয়া কঠিন৷ গত এক সপ্তাহে চালের দাম কেজিতে ৩/৪ টাকা বেড়েছে৷ পেঁয়াজ খাওয়া তো ছেড়েই দিয়েছি৷ এখনো পেঁয়াজের দাম একশ' টাকার বেশি৷ এবার বিদ্যুৎ-পানির দাম বাড়লে আমরা কিভাবে বাঁচবো? আমাদের দুঃখগুলো কি দেখার কেউ নেই? আরেক রিক্সাচালক মো. খোরশেদও বলছিলেন তার কষ্টের কথা, ‘‘স্যার, সত্যি চলতে কষ্ট হয়৷ বউ-বাচ্চাদের গ্রামে রেখেছি, সব মিলিয়ে মাসে ৬-৭ হাজার টাকার বেশি পাঠাতে পারি না৷ মেয়েটার স্কুলের বেতনও চেয়েচিন্তে দিতে হয়৷ ওরা মাছ খায় সপ্তাহে একদিন৷ আসলেই আমাদের বাঁচা কঠিন৷’’

মিরপুরের শেওড়াপাড়ার শামীম সরণীর মুদি দোকানি আসলাম শেখ বলছিলেন, ‘‘এখন কিছু মানুষ দাম বাড়ানোর জন্য সুযোগের অপেক্ষায় বসে থাকে৷ বিদ্যুতের দামের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক না থাকলেও অনেক কিছুর দামই বেড়ে যাবে৷ বাস ভাড়া, বাসা ভাড়া, এমনকি রিক্সা ভাড়াও বেড়ে যাবে৷ তাহলে সাধারণ মানুষ চলবে কিভাবে? আমাদের দোকানে বিক্রিও কমে যাবে৷ কারণ, মানুষের আয় তো বাড়ছে না৷ তারা বাসার কেনাকাটা কমিয়ে দেবে৷ খাওয়া কমিয়ে দেবে? তা না হলে চলবে কিভাবে? এভাবেই বাঁচতে হবে সাধারণ মানুষকে৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন